ঢাকা, বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ২ ভাদ্র ১৪২৯ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে

বাবার জায়গা মা হয়ে শতচেষ্টায়ও পূরণ করতে পারিনি

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০১ জুলাই ২০২২, ১৬:৫৮

বাবার জায়গা মা হয়ে শতচেষ্টায়ও পূরণ করতে পারিনি
নিজস্ব প্রতিবেদক

হোলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলা নিহত বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাউদ্দিনের স্ত্রী রেমকিম খান বলেছেন, দুই ছেলে-মেয়ে প্রতি মুহূর্তে তাদের বাবাকে মিস করে। বাবার জায়গাটা আমি মা হয়ে শতচেষ্টা করেও পূরণ করতে পারিনি। তারা বাবাকে মিস করে না এমন কোনোদিন দেখিনি।

হোলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার ছয় বছর পূর্তি আজ শুক্রবার। ওই হামলা চলাকালে অভিযানে নিহত হন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী কমিশনার রবিউল করিম ও বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাউদ্দিন।

এই দুই পুলিশ কর্মকর্তার স্মরণে নির্মিত গুলশানের দীপ্ত শপথ ভাস্কর্যে আজ ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে এসেছিলেন সালাউদ্দিনের স্ত্রী রেমকিম খান, কন্যা সামান্তা খান ও পুত্র এস এম রায়ান। শ্রদ্ধা জানানোর পর এসব বলেন সালাউদ্দিনের স্ত্রী।

রেমকিম খান বলেন, ‘শুধু এই দিনে আমরা তাকে বেশি মিস করি, বিষয়টি এমন নয়। যেদিন থেকে আমরা ওকে (সালাউদ্দিন) হারিয়েছি, সেদিন থেকে প্রতিটি দিন, প্রতিটি মুহূর্তে আমরা তাকে মিস করি।

দুই সন্তানের প্রসঙ্গ টেনে রেমকিম খান বলেন, ‘বাচ্চারা (দুই সন্তান) বাবাকে মিস করেনি এমন কোনো দিন আমি দেখিনি। তার (সালাউদ্দিন) অনুপস্থিতিতে বাচ্চারা কীভাবে যে বেড়ে উঠছে…। বাবার জায়গাটা আমি মা হয়ে শত চেষ্টা করেও পূরণ করতে পারিনি।’

দুই সন্তানের লেখাপড়া প্রসঙ্গে রেমকিম বলেন, সালাউদ্দিন যখন মারা যায় তখন মেয়েটা সপ্তম শ্রেণিতে আর ছেলেটা কেজি টুতে পড়ত। এখন মেয়েটা দেশের বাইরের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছে। আর ছেলে ঢাকার একটি স্কুলে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ছে।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ১ জুলাই রাতে ঢাকার গুলশানে হোলি আর্টিজান বেকারিতে নৃশংস হামলা চালান জঙ্গিরা। তারা অস্ত্রের মুখে দেশি-বিদেশি অতিথিদের জিম্মি করেন। ভয়াবহ ওই হামলার ঘটনায় স্তম্ভিত হয়ে পড়ে পুরো দেশ।

সেদিন জঙ্গিরা কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করেন ২০ দেশি-বিদেশি নাগরিককে, যাদের মধ্যে ৯ জন ইতালীয়, ৭ জন জাপানি, ১ জন ভারতীয় ও ৩ জন বাংলাদেশি। সেই রাতে অভিযান চালাতে গিয়ে পুলিশের দুই কর্মকর্তাও নিহত হন।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমএম

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত