ঢাকা, শনিবার, ১০ জুন ২০২৩, ২৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ আপডেট : ২ মিনিট আগে
শিরোনাম

বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজে পণ্যের ৫০ ভাগ পরিবহনের নির্দেশ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০২ মার্চ ২০২৩, ২৩:৩৯

বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজে পণ্যের ৫০ ভাগ পরিবহনের নির্দেশ
বাংলাদেশের পতাকাবাহী একটি জাহাজ। ছবি: সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক

সমুদ্র পথে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের পতাকাবাহী জাহাজে ৫০ ভাগ পণ্য পরিবহনের নির্দেশনা দিয়েছে নৌ পরিবহন অধিদপ্তর।

বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ১ ফেব্রুয়ারি নৌ পরিবহন অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সভায় অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমডোর মো. নিজামুল হক এ নির্দেশনা দেন।

সভায় ‘বাংলাদেশের পতাকাবাহী জাহাজ (স্বার্থরক্ষা) আইন-২০১৯’ এর আলোকে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রণীত বিধি যথাযথ বাস্তবায়নের ওপর আলোচনা হয়। সভায় মেইন লাইন অপারেটর, শিপিং এজেন্ট এসাসিয়েশন, ফিডার ভেসেল অপারেটর, বাংলাদেশ ওসান গোয়িং শিপস ওনার এসোসিয়েশন, এইচ আর লাইনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে শিপিং এজেন্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অন্তত ১৫ দিন আগে পণ্য বোঝাইয়ের জন্য ওয়েভার সনদের আবেদন করতে হবে এবং আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ ওসান গোয়িং শিপস ওনার এসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন বরাবর বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজের প্রাপ্যতা নিশ্চিতের অনুরোধ করবে।

অনুরোধের পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সর্বোচ্চ ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তাদের মতামত জানাবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজের প্রাপ্যতার নিশ্চয়তা দিতে ব্যর্থ হলে কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজ নেই মর্মে ওয়েভার সনদ জারি করবে।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী নির্দিষ্ট বন্দরে ও তারিখে বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজের উপস্থিতি নিশ্চিত করিতে না পারলে অথবা নির্দিষ্ট বন্দরে ও তারিখের মধ্যে পণ্য বোঝাইয়ে ব্যর্থ হলে দায়ী পক্ষ ক্ষতিগ্রস্থ পক্ষকে বিধি মোতাবেক ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য থাকবে।

সভায় আরও সিদ্ধান্ত হয়, বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজ বন্দরে পৌঁছার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অথবা সংশ্লিষ্ট বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রয়োজনীয় বিধি অনুযায়ী পণ্য বোঝাইয়ের কার্যক্রম শুরু করতে হবে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজ তার ধারণক্ষমতা বা অবশিষ্ট ধারণক্ষমতা অনুযায়ী পণ্য বোঝাইয়ের অগ্রাধিকার পাবে এবং পণ্য পরিবহনের ব্যয় নির্ধারণের ক্ষেত্রে পরিসেবার মান অনুযায়ী প্রতিযোগিতামূলক পরিবহন খরচ নির্ধারণ করা হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/জিকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত