ঢাকা, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শিরোনাম

পুঁজিবাজারে সূচকের বড় উত্থান

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ২৮ এপ্রিল ২০২৪, ১৯:৩২

পুঁজিবাজারে সূচকের বড় উত্থান
ফাইল ছবি

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বেড়েছে সব কটি সূচকের মান। ঢাকার বাজারে এদিন লেনদেন হয়েছে ৬১৩ কোটি ৯৫ লাখ টাকার শেয়ার। তাতে ডিএসই একদিনেই আট হাজার ১৩১ কোটি টাকার বাজার মূলধন ফিরে পেয়েছে।

রোববার (২৮ এপ্রিল) এ বাজারে বেশিরভাগ শেয়ারের দাম বেড়েছে। লেনদেন হওয়া ৩৯৬টি কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ৩০০টির দাম বেড়েছে, ৫২টির কমেছে এবং ৪৪টির দাম অপরিবর্তত রয়েছে।

গত মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) ডিএসইএক্স সূচকটি ছিল পাঁচ হাজার ৬৩৩ পয়েন্ট। এর পরের দুই দিনে সূচক নেমে গিয়েছিল পাঁচ হাজার ৫১৮ পয়েন্টে, যা গত তিন বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন।

গত বুধবার (২৪ এপ্রিল) জানানো হয়, এক দিনে শেয়ার দরপতনের সর্বোচ্চ সীমা ১০ শতাংশ থেকে ৩ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়েছে। তবে ফ্লোর প্রাইসে থাকা তিনটি কোম্পানির শেয়ারের দর কমতে পারবে না।

এরপর বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ৬০ পয়েন্ট পড়ে যায়। বাজারে নিয়ন্ত্রক সংস্থার এ ধরনের হস্তক্ষেপের বিরোধিতা করা হয় ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের তরফ থেকে।

এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর পরিচালক পর্ষদের সদস্যরা বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলামের সঙ্গে জরুরি সভায় বসেন। ওই সভায় শেয়ার দর কমার সীমা বেঁধে দেয়ার বিরোধিতা করেন ডিএসইর পরিচালকরা।

একই দিনে বিএসইসির পক্ষ থেকে বৈঠক করে রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি)। প্রতিষ্ঠানটিকে সক্ষমতা অনুযায়ী পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের আহ্বান করেন বিএসইসি চেয়ারম্যান। এসব উদ্যোগের মধ্যে একদিন পরেই ইতিবাচক ধারায় ফিরলো ডিএসই সূচক।

আড়াই মাসের কম সময়ে পুঁজিবাজারে ৮১৫ পয়েন্ট সূচক পতনের পর বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন-বিএসইসি বাজারে হস্তক্ষেপ করে।

বিএসইসির সঙ্গে ডিএসই পর্ষদের বৈঠকের পর ঘুরে দাঁড়িয়েছে পুঁজিবাজার, সপ্তাহের প্রথম দিনের লেনদেন শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচকে যোগ হয়েছে ৯৭ পয়েন্ট। আগের সপ্তাহের শেষ দিন বৃহস্পতিবার (২৫ এপ্রিল) ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স পড়ে গিয়েছিল ৬০ পয়েন্ট। সূচকের ঘরে ৫৫১৮ পয়েন্ট নিয়ে রোববার (২৮ এপ্রিল) সকালে লেনদেন শুরু হয় ইতিবাচক প্রবণতায়।

আধা ঘণ্টার মাথায় সূচক কিছুটা কমে গেলেও এরপর ধারাবাহিকভাবে বাড়তে থাকে। লেনদেন শেষ হয় সূচকে ৫৬১৫ পয়েন্ট নিয়ে।

বাংলাদেশ জার্নাল/আরএইচ/এমপি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত