ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারি ২০১৯, ৫ মাঘ ১৪২৬ অাপডেট : ৮ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:৪০

প্রিন্ট

ফেসবুকে ছবি পোস্ট নিয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষে আহত ১৪

ফেসবুকে ছবি পোস্ট নিয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষে আহত ১৪
জবি প্রতিনিধি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) এক ছাত্রলীগ কর্মী কর্তীক ছবি কর্তন করে ফেসবুকে পোস্ট করাকে ঘিরে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় গুরুতর আহত হয়েছেন ৫ জন । এছাড়া আরও কমপক্ষে ৯ জন আহত হয়েছেন।

জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে শুভেচ্ছা বিনিময়ের একটি ছবি পোস্ট করে জবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের এককর্মী । যেখানে সভাপতির ছবি কর্তন করা হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮ টা হতে দুপুর ২টা পর্যন্ত দু’গ্রুপের মাঝে দফায় দফয় সংঘর্ষে ৫ জন গুরুতর আহত হন । পরবর্তীতে তাদেরকে ন্যাশনাল হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

ঘটনায় অংশগ্রহণকারী কয়েকজনের সাথে কথা হলে তারা জানান, বুধবার রাতে সাধারণ সম্পাদক কর্মীরা সভাপতি তরিকুল ইসলামের ছবি ক্রপ করে ফেসবুকে পোস্ট দেয়। এরপর সভাপতি গ্রুপের কর্মীরাও এর বিপক্ষে ফেসবুকে পোস্ট ও কমেন্টে বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। পরবর্তীতে এ ঘটনার জের ধরে বৃহস্পতিবার সকালে সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের কর্মী উদ্ভিদবিজ্ঞান ১৩তম ব্যাচের সালমান এফ রহমান, সৈয়দ অভি, মনোবিজ্ঞান ১৩ তম ব্যাচের তানভীর, গণিত ১৩তম বিভাগের শান্ত, এবং পরিসংখ্যান বিভাগের অর্পণের নেতৃত্বে ভাস্কর্য চত্বরে থাকা সভাপতি গ্রুপের কর্মী কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৩তম ব্যাচের শিক্ষার্থী শাহরিয়ার শাকিলের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে তার মাথা ফাটিয়ে দেয়।

এরপর সভাপতি গ্রুপের কর্মীরা বিভিন্ন দিক থেকে একত্রিত হতে থাকলে ক্যাম্পাস উত্তপ্ত হতে থাকে। এক সময় ১৩তম ব্যাচের শাহিরুল উম্মি, ১২তম ব্যাচের পিয়াল এবং ১১তম ব্যাচের সানের নেতৃত্বে সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের উপর হামলা করে। সাধারণ সম্পাদক এতে ১২ তম ব্যাচের সাহেদ, ইতিহাস ১২তম ব্যাচের নূরে আলম এবং রাস্ট্রবিজ্ঞান ১১তম ব্যাচের পারভেজ আহত হয়। সংঘর্ষে পিয়ালের আঘাতে নূরে আলম মারাত্মক ভাবে আহত হয়। উল্লেখ্য, নূরে আলম এর আগেও বিভিন্ন অপকর্মে জড়িত থাকার কারণে সম্প্রতি বহিস্কৃত হয়েছেন।

জবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ জয়নুল আবেদীন রাসেল বলেন, ‘বাসে বসা নিয়ে সিনিয়র জুনিয়রের মাঝে ভূল বুঝাবুঝি হয়। আমরা তা সমাধান করে দিয়েছি।’ রাসেল তার কর্মীদের হাতুড়ি, চাপাতি নিয়ে আক্রমণের বিষয়টি কৌশলে এড়িয়ে যান।

এ বিষয়ে ছাত্রলীগ সভাপতি তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘বাসে বসা নিয়ে যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল তা সমাধান করা হয়েছে।’ ফেসবুকে পোস্ট নিয়ে যেসব কথা বলা হচ্ছে তা তিনি অস্বীকার করে বলেন, ‘এরকম কিছু নয়।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. নূর মোহাম্মাদ বলেন, ‘আমরা ভিডিও ফুটেজ দেখে কঠোর ব্যবস্থা নিব। বহিস্কৃতদের ভিতর যারা ক্যাম্পাসে অরাজকতা করছে তাদের ব্যাপারেও কঠোর পদক্ষেপ নেব।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত
close
close
close