ঢাকা, সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৬ অাপডেট : ১১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ১৭:৪৫

প্রিন্ট

শিক্ষিকার আচরণ নিয়ে প্রশ্ন তোলায় পরীক্ষা বন্ধ!

শিক্ষিকার আচরণ নিয়ে প্রশ্ন তোলায় পরীক্ষা বন্ধ!
জার্নাল ডেস্ক

বিভাগের সমস্যা নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে বেকায়দায় পড়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) মার্কেটিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীরা ফেসবুকে এক শিক্ষিকার আচরণ দিয়ে প্রশ্ন তুলে অসম্মান করেছে এমন অভিযোগ এনে বিভাগীয় শিক্ষকরা পরীক্ষা কার্যক্রম স্থগিত করে রেখেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ২৫ নভেম্বর মার্কেটিং বিভাগের ৪৫তম ব্যাচের ৫ম সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। পরীক্ষার আগের রাতে বিভাগের কিছু বিষয় নিয়ে আমির হামজা নামের এক শিক্ষার্থী ফেসবুক স্ট্যাটাসে দেয়। স্ট্যাটাসটি ওই বিভাগের শিক্ষকদের দৃষ্টিগোচর হলে তারা ক্ষুদ্ধ হয় এবং স্ট্যাটাসে বিভাগের শিক্ষকদের সমালোচনা করা হয়েছে এমন অভিযোগ তুলে ২৫ নভেম্বর পরীক্ষার দিন সকালে পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। তাৎক্ষণিক সেই পরীক্ষা স্থগিতাদেশের পর আজো পরীক্ষার কোনো তারিখ ঘোষণা করা হয়নি। এমনকি দেড় মাস পার হয়ে গেলেও এ ব্যাপারে বিভাগের কোনো দৃশ্যমান উদ্যোগ নেই।

ঘটনার সূত্রপাত সম্পর্কে জানা যায়, মার্কেটিং তৃতীয় বর্ষের ‘আন্তর্জাতিক অর্থনীতি’ কোর্সটি পড়ান শিক্ষিকা নওরীন নির্ভানা বৃষ্টি। তিনি ঢাকায় একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। এ শিক্ষিকার টিচিং, আচরণসহ কিছু বিষয়ে ৪৫ ব্যাচসহ তিনটি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা বিভাগীয় সভাপতির কাছে অভিযোগ করেছে। তারপর ওই শিক্ষিকা প্রতিক্রিয়া হিসেবে অভিযোগ করে যে, ‘শিক্ষার্থীরা তাকে নিয়ে ফেসবুকে নানা সমালোচনা ও অসম্মানজনক মন্তব্য করছে।’ এরপর পরীক্ষা স্থগিত করে দেয় বিভাগটি। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকাংশ বিভাগের ৪৫ ব্যাচের তৃতীয় বর্ষ শেষ হলেও ৫ম সেমিস্টারে আটকে আছে মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

৪৫তম ব্যাচের এক শিক্ষার্থী জানান, ‘ম্যামের সমালোচনা করা হয়েছে সন্দেহ করে আমাদর পুরো ব্যাচের পরীক্ষা স্থগিত রাখা হয়েছে। সব শিক্ষার্থী মিলে একাধিকবার ক্ষমা চাইলেও পরীক্ষার বিষয়ে বিভাগ থেকে কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না ।’

এ বিষয়ে মার্কেটিং বিভাগের সভাপতি নাঈমা আহমেদ বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা নম্বর কম পাওয়ায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে। ফেসবুকে শিক্ষকদের হেয় করে লেখালেখি করায় আমরা বিব্রতবোধ করেছি। তবে ৫ম সেমিস্টার ফাইনালের বিষয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়ে পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করব।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম বলেন, ‘পরীক্ষা স্থগিতের এ খবর পাইনি। এমন ঘটনা অনাকাঙ্খিত। আমরা খোঁজ নিয়ে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করব।’

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত
close
close