ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২০:১৭

প্রিন্ট

বেতন বৃদ্ধি: প্রাথমিক শিক্ষকদের উদ্দেশে গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর বার্তা

বেতন বৃদ্ধি: প্রাথমিক শিক্ষকদের উদ্দেশে গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর বার্তা
অনলাইন ডেস্ক

সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল উন্নীতকরণের ব্যাপারে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সুস্পষ্ট প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয় সরাসরি নাকচ করে তা ফেরত পাঠিয়েছে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর তীব্র ক্ষোভ ও অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন সারা দেশের সহকারী শিক্ষকরা। তবে এ বিষয়ে শিক্ষকদের হতাশ না হওয়ার অনুরোধ করছেন গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন।

বুধবার কুড়িগ্রামের রৌমারীতে রংপুর বিভাগের জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, পিটিআই সুপার ও কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলার প্রধান শিক্ষকদের নিয়ে এক মত বিনিময় সভায় শিক্ষকদের আশ্বস্ত করেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকারের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী গ্রেড উন্নয়নের প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে। যত সমস্যাই আসুক শিক্ষকদের প্রস্তাবিত গ্রেড কার্যকর হবে। খুব শিগগিরই বিষয়টি নিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সাথে আলোচনা হবে। সেই সাথে টাইমস্কেল সমস্যারও সমাধান হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সহকারি শিক্ষকদের যাদের পাঠদানের মান ভাল হবে তাদের পদোন্নতি দিয়ে প্রধান শিক্ষক করা হবে। আমরা নীতিমালা করেছি সরাসরি প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে না। প্রধান শিক্ষকদের এটিও টিও পদোন্নয়ন দেওয়া হবে

জাকির হোসেন বলেন, বছরের প্রথম দিনে নতুন বই দেওয়া হচ্ছে এটা বিশ্বে কোনো দেশে নেই। যে স্বপ্ন নিয়ে দেশ স্বাধীন হয়ে ছিল। সে স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমরা কাজ করছি। জাতির জনকের সোনার বাংলা গড়তে একটি শিক্ষিত জাতি দরকার। জাতিকে শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে আপনাদের মন দিয়ে কাজ করতে হবে। সেই জাতি গঠনের কারিগর হলেন আপনারাই। আপনাদের মুখের দিকে তাকিয়ে আছে এ দেশের ভবিষ্যৎ। আপনাদের কাছে আমার অনুরোধ, নিজের বাচ্চার মত করে শিক্ষার্থীদের মানুষ করুন। এতে দেশ উপকৃত হবে, জাতি উপকৃত হবে, আপনারা উপকৃত হবেন।

এসময় প্রাথমিক শিক্ষা রংপুর বিভাগের উপ-পরিচালক আব্দুল ওয়াহাবের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম, রৌমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল্লাহ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপঙ্কর রায়, ভাইস চেয়ারম্যান মোজাফফর হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদা আক্তার স্মৃতি, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলাম প্রমূখ। এতে উপস্থিত ছিলেন, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও পিটিআই সুপারিন্টেনডেন্টগণ।

উল্লেখ্য সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন-বৈষম্য কমানোসহ গ্রেড উন্নীতকরণের জন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে যে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল, তা নাকচ করে দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব সাদিয়া শারমিন স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ‘সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক পদে বেতন গ্রেড যথাযথ ও সঠিক থাকায় প্রধান শিক্ষক পদের বেতন গ্রেড-১০ ও সহকারী শিক্ষক পদের বেতন গ্রেড-১২তে উন্নীতকরণের সুযোগ নেই।’ বেতন বাড়ানোর প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয় প্রত্যাখ্যান করায় ক্ষুব্ধ সারা দেশের প্রাথমিক শিক্ষকরা।

বর্তমানে দেশে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোয় প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক পদ রয়েছে। প্রধান শিক্ষকের নেতৃত্বে পাঠদানের কাজ করেন সহকারী শিক্ষকেরা। বর্তমানে প্রধান শিক্ষকেরা বেতন পাচ্ছেন দশম গ্রেডে ১৬ হাজার টাকা স্কেলে। (কোর্টের রায় অনুসারে যেহেতু বকেয়াও পাবেন)। এছাড়া সহকারী শিক্ষকেরা বেতন পান ১৪তম গ্রেডে ১০ হাজার ২০০ টাকা স্কেলে।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত