ঢাকা, বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ২ ভাদ্র ১৪২৯ আপডেট : ১ মিনিট আগে

জার্মানিতে এশিয়া অ্যাপারেল এক্সপোতে বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নে ৩৭ প্রতিষ্ঠান

  জার্মানি প্রতিনিধি

প্রকাশ : ০৬ জুলাই ২০২২, ০০:৫৮

জার্মানিতে এশিয়া অ্যাপারেল এক্সপোতে বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নে ৩৭ প্রতিষ্ঠান
ছবি: প্রতিনিধি
জার্মানি প্রতিনিধি

জার্মানির রাজধানী বার্লিনে শুরু হয়েছে এশিয়ার তৈরি পোশাক শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো নিয়ে তিন দিনব্যাপী নবম বার্লিন আন্তর্জাতিক এশিয়া অ্যাপারেলস এক্সপো মেলা।

মঙ্গলবার (৫ জুলাই) থেকে রাজধানীর আন্তর্জাতিক মেসে দক্ষিন সেন্টারে এই মেলার আয়োজন করা হয়। এই মেলায় রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি), বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও বার্লিনের বাংলাদেশ দূতাবাসের সহযোগিতায় বাংলাদেশের ৩৭টি প্রতিষ্ঠান ছাড়াও হংকং, ভারত, চীন, নেপাল, পাকিস্তান, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনামসহ এশিয়ার বিভিন্ন দেশের কয়েকশ তৈরি পোশাক শিল্পপ্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে।

তিন দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক এই মেলার প্রথম দিনটি ছিল জার্মানিসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের ক্রেতা ও বিক্রেতাদের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নয়ন ও পোশাকশিল্পের বাজার সম্প্রসারণ, পণ্যের মানোন্নয়ন নিয়ে কাজ ও দ্রুততার সাথে বাংলাদেশ থেকে পণ্যের আমদানি ও রপ্তানির বিষয় নিয়ে ব্যস্ততা। মেলায় বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কর্তৃক তৈরি পোশাক ছাড়াও বুটিক, এমব্রয়ডারিসহ বিভিন্ন রকমের সুতা ও কুঠির শিল্পের সামগ্রী প্রদর্শনী করা হয়।

মেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়ন

মেলায় অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশের তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সাহারা এক্সপোর্ট ইনকর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শরিফুল ইসলাম, মেলায় প্রথমবারের মত অংশ নেয়া বি ব্রাদারস গার্মেন্টস কোম্পানি লিমিটেডের স্বত্বাধিকারী হাসান এবং ব্যবসায়ী, মেলার সমন্বয়ক ও লর্ড ইনকর্পোরেটের এমডি প্রবীর কান্তি দাস ও দেওয়ান তাজ আহমেদ বলেন, করোনার কারণে গত দু বছর যাবৎ জার্মানিসহ ইউরোপের বাজার ছিল স্থবির। কিন্তু সকল সমস্যার অবসান ঘটিয়ে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক বিশেষ করে নিট ও ওভেনের বাজার এই মুহূর্তে খুবই সন্তোষজনক। দেশের ব্যাবসায়ীরা জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন যাতে লক্ষ্য মাত্রা অর্জন করে দেশে ফিরতে পারেন।

এবারের মেলাতে ক্রেতাদের উপস্থিতি বাংলাদেশের তৈরি পোশাকশিল্পের বাজারের জন্যও অবশ্যই আশাব্যাঞ্জক বলে মনে করেন বার্লিনের বাংলাদেশ দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর মো. সাইফুল ইসলাম। সফলতা নিয়েও আশাবাদী বাংলাদেশী ব্যাবসায়ীরা। তবে আন্তর্জাতিক এই মেলায় বাংলাদেশের অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৫৫টির বেশি হওয়ার কথা থাকলেও ভিসা জটিলতা ও নানা কারণে সেটা সম্ভব হয়নি। তবে প্রথম দিন থেকেই বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নে স্থানীয় ও ইউরোপীয় ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের আগ্রহ ছিল চোখে পড়ার মত।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত