ঢাকা, সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০, ১৬ চৈত্র ১৪২৬ আপডেট : ৪ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৫ মার্চ ২০২০, ১৫:২১

প্রিন্ট

‘আমরা ভাসমান অবস্থায় কোয়ারেন্টাইনে আছি’

‘আমরা ভাসমান অবস্থায় কোয়ারেন্টাইনে আছি’
বিনোদন প্রতিবেদক

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের প্রকোপ এখন বাংলাদেশেও। এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯ জন এবং মারা গেছেন ৫ জন। এমন পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে সকল প্রকার শুটিং বন্ধ রাখা হয়েছে। এরমধ্যে অফিস-কলকারখানা, সিনেমা হলও বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

কিন্তু সে সিদ্ধান্ত না মেনে এখনও চলছে ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ সিনেমার শুটিং। নিষেধজ্ঞতা অমান্য করেই সুন্দরবন এলাকায় শুটিং করছেন ছবিটির পরিচালক আবু রায়হান। শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন সিয়াম আহমেদ, পরীমনি, তানভীর। তাদের সঙ্গে ছবিটিতে ১৪জন শিশুশিল্পীও শুটিং করছেন।

সরকারি অনুদানের এই ছবির শুটিং শুরু হয় ১৪ মার্চ থেকে। এমন কঠিন পরিস্থিতির মধ্যেও শুটিং কেন করছে জানতে পরিচালকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তার সাড়া পাওয়া যায় নি।

ছবিটির অভিনয়শিল্পী আবু হুরায়রা তানভীরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এখন দেশের বিভিন্ন জায়গা লকডাউন করা হচ্ছে। অনেককে কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশসহ সবাইকে সচেতন থাকতে বলা হচ্ছে। কিন্তু এমন অবস্হা জারি হওয়ার আগেই আমরা শুটিং শুরু করি। লঞ্চযোগে সুন্দরবন আসি। আর যখন এরকম নির্দেশনা দেওয়া হয় আমরা তখন একদম নেটওয়ার্কের বাইরে।

আমরা এখনো সুন্দরবনের একদম ভিতরের দিকে যেখানে আসলে নেটওয়ার্ক একদমই নাই সে দিক থেকে প্রথমে আমরা এসব বিষয়ে খোঁজখবর বা আপডেট গুলো থেকে একটু বঞ্চিতই ছিলাম। কিন্তু আমরা যখন আপডেট পেয়েছি এরপর থেকে টীমের সবাই বেশ সচেতন হয়েছি। যথেষ্ট সচেতনতা অবলম্বন করছি এবং সেইফ থাকছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা যেহেতু করোনা ব্যক্তির সংস্পর্শে যাই নি কেউ বা বাইরের কেউ আমাদের এখানে আসে নি আমরা নিরাপদেই আছি বলা যায়। আমরা সারাক্ষণ লঞ্চেই থাকছি। স্যানিটাইজার মজুদ করেছি, ব্যবহার করছি নিয়মিত।

এক কথায় বলতে গেলে যতটুকু সেইফটি থাকা যায়, সেভাবেই আছি এবং থাকছি। বাইরে থেকে খাবার আনার বিষয়েও সচেতনতা অবলম্বন করছি। বলতে গেলে আমরা ভাসমান অবস্থাতেই কোয়ারেন্টাইনে আছি। যেহেতু আমরা অন্য কারও সঙ্গে মিশছি না। সবাই যারা এখানে আছি কারও এ রোগের সংক্রামক নেই। বাচ্চারাও বেশ নিরাপদ আছে এখানে।

এমন পরিস্থিতিতে শুটিং করা কতটা জরুরী, এমন প্রশ্নে তানভীর বলেন, পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার আগে থেকেই আমাদের শুটিং চলমান। নির্দেশনা পাওয়ার পর থেকেই আমরা বারবার আলোচনা করছি, আমাদের করণীয় কি!

এই মুহূর্তে শুটিং বন্ধ করে ঢাকায় ফেরাটা আমাদের জন্য কতটা সেইফ! আর আমরা এখন শুটিংকে খুব প্রাধান্য দিচ্ছি না, সেইফ থাকছি। শুটিং যা করছি আসলে অনিচ্ছাকৃতভাবেই। পুরো একটা টীম লঞ্চ লঞ্চযোগে সুন্দরবন, অনেক আর্টিস্ট সবকিছু মিলিয়ে আবার সেটা কবে হতে পারে সে বিষয়ে কোন আইডিয়া নেই! সবাইকে আবারও একসাথে পাওয়া, সময় শিডিউল অসম্ভব।

পরিচালক ভালো বলতে পারবেন, তিনি কি পরিকল্পনা করেছেন! কবে নাগাদ ঢাকায় ফিরবো সেটা তিনি ভালো বলতে পারবেন।

সরকারি অনুদানে জনপ্রিয় ঔপন্যাসিক জাফর ইকবালের 'রাতুলের দিন রাতুলের রাত' উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হচ্ছে সিনেমাটি। ৫০ জনের বড় একটি ইউনিট নিয়ে সুন্দরবনে চলছে ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ ছবির শুটিং।

আইএন

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত