ঢাকা, সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ৩ কার্তিক ১৪২৮ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে

চরিত্রের প্রয়োজনে সেরাটা দিয়ে কাজ করতে চেষ্টা করি: তিশা

  ইমরুল নূর

প্রকাশ : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:২২  
আপডেট :
 ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৪৭

চরিত্রের প্রয়োজনে সেরাটা দিয়ে কাজ করতে চেষ্টা করি: তিশা
জনপ্রিয় অভিনেত্রী তানজিন তিশা
ইমরুল নূর

গেল ঈদে ‘হ্যালো শুনছেন’, ‘কায়কোবাদ’, ‘সাহসিকা’ দিয়ে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন তানজিন তিশা। এরপর প্রায় দেড় মাসের বিরতি দিয়ে ফিরেছেন কাজে। তবে ফেরার পর খুব বেশি নাটকে দেখা যায়নি তাকে। দুটি নাটক ও একটি ওয়েব ফিল্মে কাজ করেছেন এরমধ্যে। কাজ করেছেন কয়েকটি বিজ্ঞাপনে। এই মূহুর্তে তিনি রয়েছেন ঢাকার অদূরে কক্সবাজারে। কাজ, ব্যস্ততা ও সমসাময়িক বিষয় নিয়ে তিনি কথা বলেন ইমরুল নূরের সঙ্গে।

  • ফেসবুকের ছবি দেখে মনে হচ্ছে আপনি সমুদ্র সৈকতে আছেন। ঘুরতে নাকি কোন কাজে?

হ্যাঁ আমি কক্সবাজারে এসেছি দুই তিন দিন হলো। একটি বিজ্ঞাপনের শুটিং করছি এখানে। একটি কোম্পানির সঙ্গে দুই বছরের জন্য ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হতে যাচ্ছি খুব শিগগিরই, সেটিরই শুটিং করছি এখন। আরও দুইদিন শুটিং করবো এখানে। শুটিং শেষ হওয়ার পর এটা নিয়ে বিস্তারিত তথ্য দিবো, এখন এর বেশি কিছু বলছি না।

  • সম্প্রতি আপনাকে বিজ্ঞাপনে বেশি কাজ করতে দেখা যাচ্ছে। এর কারণ কি?

হ্যাঁ, এরমধ্যে আমি কয়েকটা বিজ্ঞাপনে কাজ করেছি। মাঝখানে কয়েকবছর আমি বিজ্ঞাপনে নিয়মিত ছিলাম না। বিজ্ঞাপন করার সময় আমি কিছু বিষয় খুব গুরুত্বের সাথে দেখি যেমন- যে কোম্পানি বা প্রোডাক্টের হয়ে কাজ করি সেটা কতটুকু মানসম্পন্ন, এরপর দেখি সেটি কে বানাবেন! সবকিছু যদি পছন্দমত হয় তখনই আমি বিজ্ঞাপনের জন্য ‘হ্যাঁ’ বলি। সবকিছু মিলিয়ে যদি ভালো মনে হয় এবং ব্যাটে-বলে মিলে তখনই সেটা করি। এবার সেরকম কিছু পেয়েছি বলেই পরপর কয়েকটা কাজ করেছি, যেটা আমি আগে করতাম।

  • এখন নাটকের কাজ কমিয়ে দেওয়ার কারণ কি?

কমিয়ে দিয়েছি বলতে লাস্ট অনেক দিন ধরে ওটিটির জন্য অনেক কাজের প্রস্তাব পাচ্ছি। এরমধ্যে ‘লোহার তরী’ করলাম। এখনও হাতে আরও কয়েকটা কাজ রয়েছে। আর ভবিষ্যৎ যদি দেখি তাহলে এখন ইউটিউবের পাশাপাশি ওটিটির জন্য অনেক কাজ হচ্ছে আর দর্শকও এতে আগ্রহী হয়ে উঠছে। এটাও একটা কারণ হতে পারে। আমার কাছে মনে হচ্ছে ভবিষ্যতে ওটিটি একটা ভালো অবস্থানে যাবে।

সেজন্য এই প্লাটফর্মটাকে বেশ গুরুত্ব দিচ্ছি। একটা ভালো প্লাটফর্ম থেকে যদি ভালো ও সুন্দর গল্পের কাজ আসে তাহলে সেটা আমি কেন করবো না? আমার কাছে যখন গল্প আসে তখন আমি আমার চরিত্রটা দেখি, আমার কাছে যদি মনে হয় যে আমি এটা ভালোভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারবো তখনই আমি সেটা করি।

  • ওটিটি নিয়ে এখন দর্শকের বেশ গ্রহণযোগ্যতা তৈরি হয়েছে। বিষয়টিকে কিভাবে দেখছেন?

গ্রহণযোগ্যতার বিষয়টা আসলে নির্ভর করে দর্শকের ওপরে। ইউটিউবের যেমন একটা আলাদা গ্রহণযোগ্যতা আছে তেমনি ওটিটিরও এখন গ্রহণযোগ্যতা বাড়ছে দর্শকের কাছে। আমার কাছে মনে হয়, এখন যতটুকু আছে আগামীতে সেটা আরও অনেক বেশি হবে। এরজন্য এখন আমাদের উচিত ভালো ভালো কাজ করা। এই মাধ্যমটি যখন নিয়মিত ভালো কাজ দিতে শুরু করবে তখন ওটিটি আমাদের শিল্পীদের জন্য একটা বিশাল সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিবে।

  • ‘লোহার তরী’ তে কাজ করেছেন, যেটি নিয়ে মুক্তির আগেই দর্শক আগ্রহ দেখা গিয়েছে অনেক। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক পোস্ট ভাইরাল হয়েছে। এটি নিয়ে কি বলবেন?

‘লোহার তরী’ ওয়েব ফিল্মটিও ওটিটি প্লাটফর্মের জন্যই করেছি। ফিল্মটির নির্মাতা সঞ্জয় সমদ্দার দাদার সঙ্গে কাজ করতে আমি অনেক বেশি কমফোর্ট ফিল করি। উনি যখন আমাকে গল্পটা শুনালেন তখন দেখলাম যে, এটা ফিমেল বেইজড একটা গল্প এবং খুবই চমৎকার। গল্প, চরিত্র পছন্দ হওয়া আর নির্মাতার জন্যই কাজটি করা।

এই কাজটি করতে আমাদের অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। টানা লঞ্চের মধ্যে শুটিং করেছি। একটা দৃশ্যে আমি লঞ্চ থেকে নদীতে ঝাঁপ দিয়েছি। যদিও আমি খুব ভালো সাঁতার জানিনা, তারপরও এটা করেছি। সাঁতার জানলেও স্রোতের মধ্যে নদীতে সাঁতার কাটা খুব সহজ কাজ নয়। সাঁতার কেটে ডান দিকে আসতে চাইলে স্রোত আমাকে বামদিকে নিয়ে যেত। আমি তো এক পর্যায়ে লঞ্চের নিচে চলে যাচ্ছিলাম! এটা আমার জন্য খুবই ভয়ংকর একটা অভিজ্ঞতা ছিলো। তারপরও আমি চেষ্টা করেছি গল্প ও চরিত্রের প্রয়োজনে সেরাটা দিয়ে কাজ করতে। ওইটার একটা ছোট ভিডিও দেখেছি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এটার কারণেই হয়তো কাজটি নিয়ে দর্শকের আগ্রহ বেড়েছে অনেক। তবে আমি অনেক আশাবাদী কাজটি নিয়ে। আমার বিশ্বাস কাজটি মুক্তি পেলে দর্শকের ভালো লাগবে।

  • ওয়েব ফিল্মে দেখা গেলেও সিনেমা নিয়ে আপনার আগ্রহ নেই কেন?

আসলে বিষয়টি তেমন না। আমি অনেকবারই বলেছি যে, যখন সিনেমার কোনো গল্প এবং চরিত্র পাবার পর যখন আমার মনে হবে যে, এটা আমার প্রজেক্ট, এটা আমি করতে পারবো; তখনই আমি সেটা করবো। সিনেমা যেহেতু একটা বড় ক্যানভাস, সেটার জন্য তো অবশ্যই আমি সঠিক প্রজেক্টটা বেছে নিবো। করার পর যেন মনে না হয় যে, আমি ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

  • আপনার হাতে এখন কি কি কাজ আছে?

এখন তো বিজ্ঞাপনের শুটিং করছি। ঢাকায় ফিরে একটা নাটকের কাজ করবো। এরপর আবার দুইটা বিজ্ঞাপনের কাজ করবো। ওটিটি, নাটকের জন্য কিছু গল্প এসেছে সেগুলো পড়ার পর সিলেক্ট করবো। ঈদের প্রায় দুই মাস পর কাজ শুরু করেছি। ওটিটি আর বিজ্ঞাপনের জন্য এরমধ্যে নাটকে কাজ করা হচ্ছে না তেমন। নাটকে নিয়মিত হতে পারিনি। এই কাজগুলো শেষ করে নাটকেই নিয়মিত হচ্ছি শিগগির।

বাংলাদেশ জার্নাল/আইএন

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত