ঢাকা, শনিবার, ১৯ জানুয়ারি ২০১৯, ৬ মাঘ ১৪২৬ অাপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৮ জুলাই ২০১৮, ০৮:৪৮

প্রিন্ট

সময়মতো অফিসে পৌঁছুতে এ কী করলেন যুবক!

সময়মতো অফিসে পৌঁছুতে এ কী করলেন যুবক!
অনলাইন ডেস্ক

চাকরিতে যোগদানের প্রথম দিনে সবাই চায় সময়মতো অফিসে পৌঁছতে। কারণ প্রথম দিন দেরি করে অফিসে গেলে তার সম্পর্কে ধারণা খারাপ হতে পারে উর্ধ্বতনদের। তাই বলে ৩২ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে অফিসে যাওয়া কিন্তু সত্যিই অসম্ভব! আর এই অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যালাব্যামা অঙ্গরাজ্যের ওয়াল্টার কার। পুরস্কার হিসেবে তিনি জিতে নিয়েছেন আস্ত একখানা গাড়ি।

ওয়াল্টার কার নামের ওই ব্যক্তির গাড়িটি ভেঙ্গে গিয়েছিল। কিন্তু তাকে যে অফিসে ঠিক সময়ে পৌঁছুতেই হবে। অফিসে প্রথম দিন বলে কথা! শেষে তিনি রাতেই হাঁটা শুরু করলেন। সারারাত ৩২ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে সকালে তার কর্মস্থলে পৌঁছান কার। এ ঘটনা জানার পর কোম্পানি তাকে নতুন একটি গাড়ি উপহার দিয়েছে।

কার যে রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন সেখানে তার সাথে দায়িত্বরত এক পুলিশ কর্মকর্তার দেখা হয়। কারের চারিত্রিক দৃঢ়তা দেখে ওই পুলিশ কর্মকর্তা তাকে সকালে নাশতা করাতে নিয়ে যান। এ ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ছড়িয়ে পড়ার পর ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হন কার।

কার যে কোম্পানিতে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন সেটির নাম মুভিং ফার্ম। কোম্পানির প্রধান নির্বাহী লুক মার্কলিন এ খবর জানার পর কারের সঙ্গে দেখা করতে আসেন। দু’জন একসঙ্গে চা পানের সময় কোম্পানির প্রধান নির্বাহী তাকে একটি গাড়ির চাবি হস্তান্তর করেন। এ ঘটনায় অবাক হয়ে যান কার। এরপর তিনি প্রধান নির্বাহীর সাথে কোলাকুলি করেন এবং গাড়ির চাবিটি গ্রহণ করেন।

এদিকে কারের নষ্ট হয়ে যাওয়া গাড়ি মেরামতের জন্য অনলাইনে একটি প্রচারণা শুরু হয়। সে প্রচারণায় আট হাজার ডলারের বেশি সাহায্য এসেছে।

তিনি এ বছরের ডিসেম্বর মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে হেলথ সায়েন্সে ডিগ্রি নিতে চান। মার্কিন মেরিন দলে যোগ দেবারও ইচ্ছা রয়েছে তার।

তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘আমি আমার প্রতিশ্রুতি দেখাতে চেয়েছি। আমি মানুষকে জানাতে চাই, আপনি যদি চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে পারেন, তাহলে কোন কিছুই চ্যালেঞ্জ নয়। কোন কিছুই অসম্ভব নয়, যদি আপনি সেটিকে অসম্ভব করে না তোলেন।’

সূত্র: বিবিসি বাংলা

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত
close
close
close