রাবিতে রোগ নির্ণয়ে অত্যাধুনিক সাতটি যন্ত্র চালু

প্রকাশ : ০৩ জুলাই ২০২২, ১৮:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

  রাবি প্রতিনিধি

ছবি: প্রতিনিধি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) চিকিৎসা কেন্দ্রে রোগ নির্ণয়ের জন্য অত্যাধুনিক সাতটি যন্ত্র চালু করা হয়েছে। চিকিৎসা কেন্দ্রের ইউনিট-১ ও ইউনিট-২ এ এসব যন্ত্রগুলো যুক্ত করা হয়। রোগ নির্ণয় যন্ত্রগুলো উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার।

রোববার বেলা ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে রোগ নির্ণয় যন্ত্রগুলো উদ্বোধন করা হয়।

উদ্বোধন করা নতুন সাতটি ডায়াগনোসিস মেশিন হলো- আল্ট্রাসাউন্ড মেশিন ভল্যুশন পি৮, অটোমেটেড বায়োকেমিস্ট্রি অ্যানালাইজার, সিসমেক্স এক্সএন-৩৫০ ফুল্লি অটোমেটেড হেমাটোলজি অ্যানালাইজার, অটোমোটেড হিউমোটলজি অ্যানালাইজার সিসমেক্স এক্সএন-৩৫০, হিউমালাইজার-৩০০০, মাইক্রোওয়েভ ডাইথারমি (এমডাব্লিউডি), ইউএসটি (আল্ট্রাসাউন্ড থেরাপি)।

নতুন এসব যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে অনেক ধরনের সেবা পাবেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ কর্মকর্তা-কর্মচারিরা। এর মধ্যে প্যাথোলজি ইউনিট থেকে সিবিসি (টিসি ডিসি এইচবি% ইএসআর), সিপিবিএফ (ব্লাড ফিল্ম), স্টুল আর/এম/ই, ইউরিন আর/এম/ই, এইচবি%, এমপি (ম্যালেরিয়াল প্যারাসাইটস), প্লাটিলেট কাউন্ট, ব্লাড সুগার, টিসিই (টোটাল সার্কুলেটিং ইওসিনোফিল), সিরাম বিলিরুবিন, ওয়াইডাল টেস্ট, ওয়েইল ফেলিক্স টেস্ট, এস ক্রিয়েটিনিন, লিপিড প্রোফাইল, এ.এস.ও, এস. ইউরিক এসিড, এসজিপিটি (এএলটি), রেড টিউব, ইডিটিএ টিউব, ভ্যাকিউম নিডল, সিআরপি, এস ইলেকট্রোলাইট, ডি- ডাইমার, এইচবিএসএজি, এইচবিএ ১ সি, ডেঙ্গু টেস্ট করানো যাবে।

এছাড়াও ই সি.জি ইউনিট থেকে ইসিজি, আই ইউনিট থেকে আই রিফ্র্যাকশন, ডেন্টাল (ওপিজি) থেকে ডেন্টাল এক্স-রে (ওপিজি) ফিল্ম (১০-১২),  আলট্রাসনোগ্রাফি ইউনিট থেকে হোল অ্যাবডোমিন, লোয়ার অ্যাবডোমিন, আপার অ্যাবডোমিন, প্রেগনেন্সি প্রোফাইল, জেনিলো ইউরিনারি সিসটার্ম, হেপাটো ব্রিলিয়ারি সিস্টেম টেস্ট করানো যাবে। হাই রেজোল্যুশন আলট্রাসনোলজি ইউনিট থেকে হাই রেজোলুশন আলট্রাসাউন্ড, অ্যানোমালি স্ক্যান, বায়োফিজিক্যাল প্রোফাইল, থাইরয়েড/ব্রেস্ট/টেস্টিস/আই/নিওনেটাল অ্যান্ড পেডিয়াট্রিক ব্রেইন, ডপলার সিঙ্গেল লিম্ব, ডপলার ক্যারোটিড, ৪ডি প্রেগনেন্সি প্রোফাইল, কালার প্রিন্ট করতে পারবে রোগীরা। ফিজিওথেরাপি ইউনিট থেকে ফিজিক্যাল এক্সারসাইজ, আলট্রাসাউন্ড আই.আর.আর (ইনফ্রা রেড রে) অ্যান্ড আদারস ও ডেন্টাল ইউনিট থেকে পার্মানেন্ট ফিলিং, এক্সট্রাকশন, স্ক্যালিং, ওপারকুলেকটোমি করানো যাবে।

রোগ নির্ণয়ের এসব যন্ত্রপাতি উদ্ধোধন শেষে উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারিরা যাতে তাদের প্রয়োজনীয় সেবা বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্র থেকে নিতে পারেন, সেটা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। আগে থেকেই বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে অনেক রোগ নির্ণয় করা হতো। তবে সেগুলো ম্যানুয়ালি করা হতো। আমরা যে মেশিনগুলো আজ উদ্বোধন করলাম, সেগুলোতে অধিকাংশ রোগ অটোমেটেড নির্ণয় করা সম্ভব হবে। সেইসঙ্গে আরো নতুন অনেক রোগ নির্ণয় করা যাবে।

এ সময় উপাচার্যের সঙ্গে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী মো. জাকারিয়া, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল ইসলাম, কোষাধ্যাক্ষ অবায়দুর রহমান প্রামানিক, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আব্দুস সালাম, জনসংযোগ প্রশাসক অধ্যাপক প্রদীপ কুমার পান্ডে,  চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রধান চিকিৎসক ড. তবিবুর রহমানসহ অন্যান্য চিকিৎসক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে