ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২ ফাল্গুন ১৪২৬ আপডেট : ৩৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২২ জানুয়ারি ২০২০, ১২:০৭

প্রিন্ট

ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারে যা ঘটলো

ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারে যা ঘটলো
জার্নাল ডেস্ক

মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসনের শুনানি শুরু হয়েছে মঙ্গলবার। তবে ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছেন সিনেটররা।

এসময় ডেমোক্রাটরা অভিশংসনের পক্ষে নতুন প্রমাণ সংগ্রহের কথা বললেও তা নাকচ করেছে সিনেট। সিনেটর মিভ ম্যাককনেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে যে তিনি অভিশংসনের পক্ষে সাক্ষী এবং নথি উপস্থাপনের সাবপিনাকে (তলব) বাধা দিতে চান।

সিনেটে যখন নিজের অভিশংসনের বিচার চলছে তখন সুইজারল্যান্ডের ডাভোসে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। সেখানে তিনি সুইডিশ জলবায়ু কর্মী গ্রেটা থানবার্গের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়ান।

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার এবং কংগ্রেসের তদন্তে বাধা দেয়ার অভিযোগ রয়েছে। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি। অভিশংসন বিচারে সিনেটররাও ট্রাম্পের পক্ষেই মত দিয়েছেন। ডেমোক্রাটরা বলছেন, এটা ধামাচাপা দেবার ঘটনা ছাড়া আর কিছুই হবে না।

অভিশংসন বিচারের শুরুতেই বক্তব্য দেন সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা মিচ ম্যাককোনেল। তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পক্ষেই কথা বলেন। এর আগে সোমবার মিচ ম্যাককোনেল প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিচার নিয়ে কিছু আইন ও নীতির কথা প্রকাশ করেন। মঙ্গলবারও সেটি উপস্থাপন করেন তিনি। এরপর সিনেটের ক্লার্ক সেটি পড়ে শোনান। এর ওপর এক ঘণ্টার বিতর্কে অংশ নেন প্রতিনিধি পরিষদের ম্যানেজার তথা ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ডেমোক্র্যাটদের প্রসিকিউশনের নেতৃত্ব দেওয়া ডেমোক্র্যাট কংগ্রেসম্যান অ্যাডাম স্কিফ। তিনি মিচ ম্যাককোনেলের প্রস্তাবে সংশোধনী আনার দাবি জানান। এরপর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পক্ষে আইনজীবীদের নেতা হোয়াইট হাউজের প্যাট সিপোলোনি এক ঘণ্টার যুক্তি তুলে ধরেন।

মিচ ম্যাককোনেল উদ্বোধনী যুক্তিতর্কের জন্য উভয়পক্ষকে ২৪ ঘণ্টা করে ৪৮ ঘণ্টার সময় বেধে দিয়েছেন। বিচারে নতুন সাক্ষীর প্রয়োজন নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি। মূলত তিনি দ্রুত বিচারকাজ শেষ করার কথা বলেছেন। চার দিনের মধ্যে যুক্তিতর্ক শেষ করতে হবে। আর কোনো প্রমাণ গ্রহণ করা হবে কি না সেই বিষয়ে ভোট চেয়েছেন তিনি। তার এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন ডেমোক্র্যাট সিনেটররা।

ডেমোক্র্যাট দলের নেতা চাক শ্যুমার বলেন, ম্যাককোনেল নতুন পদ্ধতির মাধ্যমে বিচার প্রক্রিয়াকে অন্ধকারে ঢেকে দেওয়ার চেষ্টা করছেন। টেলিভিশনে গভীর রাতে সম্প্রচারের বিষয়ে শ্যুমার বলেন, এর ফলে মার্কিনীরা এই যুক্তিতর্ক দেখতে পারবেন না।

দুই পক্ষের আইনজীবীর দুই ঘণ্টার যুক্তিতর্ক শেষে চাক শ্যুমার সংশোধনীর প্রস্তাব দেন। এরপর দুই পক্ষ আবার তাদের প্রস্তাবের বিষয়ে যুক্তি উপস্থাপন করছেন। পরে সিনেটে দুই পক্ষের প্রস্তাব ভোটে পাঠানো হবে। রোববার বাদে সপ্তাহে ছয় দিন বিচার কাজ চলবে। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত জানুয়ারির শেষ নাগাদও চলতে পারে এই বিচারকাজ। ১০০ আসনের সিনেটে ট্রাম্পকে ক্ষমতা থেকে সরাতে দুই-তৃতীয়াংশ ভোটের প্রয়োজন। কিন্তু সিনেটে ডেমোক্র্যাট সিনেটর মাত্র ৪৭। আর রিপাবলিকানরা ৫৩ হওয়ায় ট্রাম্প শেষ পর্যন্ত খালাস পাবেন বলেই ধারণা করা হচ্ছে। তবে ব্যতিক্রমী কিছু ঘটলে তার স্থলে নতুন প্রেসিডেন্ট হবেন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স।

প্রসঙ্গত, যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এ নিয়ে তৃতীয়বার কোনো প্রেসিডেন্টকে অভিশংসন বিচারের মুখোমুখি হতে হলো। ক্ষমতার অপব্যবহার করে নিজের প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাটিক নেতা জো বাইডেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত করতে ইউক্রেনকে চাপ দিয়েছিলেন ট্রাম্প এবং কংগ্রেসের কাজে বাধা দিয়েছেন, এমন দুটি অভিযোগে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন প্রস্তাব আনা হয়।

বাংলাদেশ জার্নাল/কেআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত