মমতা সরকারকে ফেলে দেয়ার হুমকি অমিত শাহের

প্রকাশ | ১৯ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭:৪৬ | আপডেট: ১৯ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮:০৩

ময়ুখ বসু, কলকাতা
অমিত শাহ ও মমতা বন্দোপাধ্যায়। ছবি: সংগ্রহ।

পশ্চিমবঙ্গ থেকে মমতা সরকারকে তুলে ফেলে দেয়ার ডাক দিয়েছেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিজেপি নেতা অমিত শাহ। দুদিনের পশ্চিমবঙ্গ সফরে এসে পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেস শিবিরে এদিন রীতিমতো ধাক্কা দিয়ে দিলেন অমিত শাহ।

একসঙ্গে একঝাঁক তৃণমূলের নেতা মন্ত্রী, সাংসদ বিধায়করা এদিন বিজেপিতে যোগ দেন। ২০২১ সালের পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা ভোটের মুখে রীতিমতো `মাস্ট্রারস্টোক' বিজেপির। 

এদিন পূর্ব মেদিনীপুরে অমিত শাহের সভাতে রাজ্যের সাবেক পরিবহনমন্ত্রী তথা এক সময়ের ডাকসাইটে তৃণমূল নেতা শুভেন্দু অধিকারীসহ মোট ১০ তৃণমূল সাংসদ এবং বিধায়ক তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন। একইসঙ্গে ২ জন বাম ও ২ জন কংগ্রেস বিধায়কও এদিন বিজেপিতে যোগ দেন। 

এছাড়াও তৃণমূলের বেশ কয়েকজন কাউন্সিলর ও জেলা স্তরের নেতারাও এদিন অমিত শাহের হাত থেকে বিজেপির পতাকা হাতে তুলে নেন।

শুভেন্দুর পাশাপাশি দীপক হালদার, বিশ্বজিত কুন্ডু, আশিস দে, বনশ্রী মাইতি, শীলভদ্র দত্ত, দীপালি বিশ্বাস, রঞ্জিত মন্ডল, অনন্তদেব অধিকারী, সুনীল মন্ডলরা যেমন তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দিলেন।

তেমনি কংগ্রেস থেকে বিধায়ক সুদীপ মুখোপাধ্যায়, বিশ্বনাথ পাড়িয়াল যোগ দিলেন বিজেপিতে। একইসঙ্গে সিপিএম থেকে বিধায়ক তাপসী মন্ডল এবং সিপিআই থেকে বিধায়ক অশোক দিন্দাও যোগ দিলেন বিজেপিতে।

অমিত শাহ বাংলার মানুষের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা এই রাজ্যে কংগ্রেসকে তিন দশক সময় দিয়েছেন। সিপিএমকেও তিন দশক সময় দিয়েছেন। তৃনমূলকে দিয়েছেন ১০ বছর। আপনারা বিজেপিকে মাত্র ৫ বছর সময় দিন। পশ্চিমবাংলা থেকে মমতা সরকারকে তুলে ফেলে দিন।

অমিত শাহ তৃণমূল সুপ্রিম তথা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্দেশ করে বলেন, আজ দিদির বিরুদ্ধে চলে গিয়েছে গোটা বাংলা। বিধানসভা ভোটে বাংলাতে ২০০টির বেশি আসন পাবে বিজেপি। তিনি মমতাকে কটাক্ষ করে আরো বলেন, এ তো সবে শুরু। এরপর তৃণমূলে শুধু আপনি একাই থাকবেন। আর কেউ থাকবে না। 

অমিত শাহ বলেন, দিদি বলেছেন বিজেপি দল ভাঙাচ্ছে, আপনাকে প্রশ্ন করি, আপনি যে দলটা করেন, সেই দল কী কোনও দল ভেঙে করেননি?

ভারতের জাতীয় কংগ্রেস ভেঙে তৃণমূল গঠন করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অমিত শাহ সভামঞ্চ থেকে সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্দেশ্য করে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন, কেন এতো মানুষ আজ আপনার দলে ছেড়ে চলে যাচ্ছেন তা একবার ভেবে দেখুন। নিজের ভাতিজাকে গুরুত্ব দিয়ে অন্যদের অপমান করছেন। তাই রাজ্যের নেতারা তৃণমূল ছেড়ে পালাচ্ছেন। 

মমতা সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করে অমিত শাহ বলেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী কৃষক সম্মান নিধির ৬ হাজার রুপি রাজ্যের কৃষকদের পেতে দেননি আপনি। আয়ুষ্মান ভারতের সুবিধা পেতে দেননি আপনি। মমতাকে কটাক্ষ করে অমিত শাহ আরো বলেন, আম্ফান ঝড়ের অর্থ নিয়ে আপনি কী করেছেন তা বাংলার মানুষ দেখেছে। আম্ফানের অর্থ তৃণমূল নেতাদের পকেটে ঢুকেছে। 

বাংলাদেশ জার্নাল/এনএম