ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবণ ১৪২৮ আপডেট : ২ মিনিট আগে

প্রকাশ : ০৬ মার্চ ২০২১, ১১:০০

প্রিন্ট

তারুণ্যের বিদ্রোহে দিশেহারা জান্তা শাসক

তারুণ্যের বিদ্রোহে দিশেহারা জান্তা শাসক
মিয়ানমারে বিক্ষোভ চলছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মিয়ানমারে জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে চলমান আন্দোলনে এ পর্যন্ত অন্তত ৫৫ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এর মধ্যে অধিকাংশই তরুণ ও যুবক। তবে এ প্রাণহানিও আন্দোলনের গতি কমাতে পারেনি। প্রতিদিন রাজধানী ইয়াঙ্গুনসহ দেশটির বিভিন্নস্থানে চলছে বিক্ষোভ। বিবিসি।

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থান নতুন কিছু নয়। দেশটির স্বাধীনতার ৭২ বছরে মাত্র ১৫ বছর শাসন করেছে বেসামরিক সরকার। বারবার সেনাশাসনের কবলে বিপর্যস্ত হয়েছে মিয়ানমার। তবে এবার ক্ষমতা দখল করে ভিন্ন এক পরিস্থিতির মুখে পড়েছে দেশটির সেনাবাহিনী। নজিরবিহীন বিক্ষোভের মুখে পড়েছে তাদের জান্তা সরকার।

দেশটির তরুণ-যুবকরা যেভাবে বন্দুকের সামনে রাস্তায় নেমেছেন তাতে রীতিমতো তটস্থ শাসকগোষ্ঠী। তরুণ-যুবকদের সমন্বয়ে ‘জেনারেশন জেড’ এর আন্দোলন এখন বিশ্বজুড়ে আলোচিত হচ্ছে।

প্রায় এক মাস মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটির ক্ষমতা দখল করেছে। এ সময়ে ইন্টারনেট বন্ধ, দিন-রাতে তল্লাশি, অবৈধ গ্রেফতার, রাস্তায় মারধর, অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলির ঘটনা ঘটছেই। গেল এক সপ্তাহে বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে একজন তরুণীও প্রাণ হারিয়েছেন। মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যাওয়ার সময়ে তার পরনে থাকা টিশার্টে লেখা ছিল ‘সবকিছু ঠিক থাকবে।’

ইয়াঙ্গুন ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় এখন কেবলই ধোঁয়ার গন্ধ। শিশুরা টিয়ারগ্যাস এবং বিস্ফোরকের গন্ধে অতিষ্ঠ। এটি ‘কিছুই না’ বলে বোঝানোর চেষ্টা ছাড়া তাদের মায়েরা কোনো উত্তর দিতে পারছেন না।

প্রকাশ্যে গুলি, রাবার বুলেট, সাউন্ড গ্রেনেড, টিয়ারগ্যাস, জলকামান সবকিছুই চিনছে মিয়ানমারের শিশু-কিশোর-তরুণরা। গেল এক মাসে এর সবই দেখেছে তারা। তবুও প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ নতুন করে বিক্ষোভে অংশ নিচ্ছেন। জান্তা সরকারের নৃশংসতায় দেশটির নাগরিকদের ক্ষোভ বাড়ছেই। তবে বিক্ষোভকারীরা এখনও বেশিরভাগই শান্তিপ্রিয়।

শিক্ষার্থী, সন্নাসী, নারী, সরকারি চাকরিজীবী, এমনকি পুলিশ কমকর্তারাও আন্দোলনে অংশ নিচ্ছেন। কিছু পুলিশ সদস্য জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কথাও বলছেন। তারা বলছেন- ‘আমরা আর জান্তা সরকারের কর্মচারী নই।’ ফলে এখন পর্যন্ত বিরোধীরা সংগঠিত এবং তাদের অবস্থানে অনড়। প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ভিন্ন ভিন্ন আঙ্গিকে বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছে তারা।

তরুণ প্রজন্ম তাদের জান্তা সরকারের পতন ও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আন্দোলনে সংকল্প করেই যেন রাস্তায় নেমেছে। সকলের মুখে একই স্লোগান- ‘জান্তা সরকারের পতন আমাদের যুগেই হবে।’

আরো পড়ুন: মিয়ানমার সেনাদের পরিচালিত ৫ ইউটিউব চ্যানেল বন্ধ

বাংলাদেশ জার্নাল/নকি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত