ঢাকা, রোববার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮ আপডেট : ৯ মিনিট আগে

রাজ্যসভায় জহর সরকারকে প্রার্থী করলেন মমতা

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশ : ২৪ জুলাই ২০২১, ১৪:৫৭  
আপডেট :
 ২৪ জুলাই ২০২১, ১৫:০২

রাজ্যসভায় জহর সরকারকে  প্রার্থী করলেন মমতা
ছবি : আনন্দবাজার পত্রিকা
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

দিল্লি সফরে যাওয়ার আগে দলের রাজ্যসভা প্রার্থী ঠিক করে ফেললেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রসার ভারতীর প্রাক্তন কর্মকর্তা জহর সরকারকে তৃণমূলের প্রার্থী মনোনীত করেছেন তিনি। শনিবার দলের টুইটার হ্যান্ডলে সে কথা ঘোষণা করা হয়। জন পরিষেবায় ৪২ বছরের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন জহরকে রাজ্যসভায় প্রার্থী করা হচ্ছে বলে জানায় তারা। খবর আনন্দবাজার অনলাইনের।

২০২০ সালের ৩ এপ্রিল রাজ্যসভায় তৃণমূলের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন দীনেশ ত্রিবেদী। ২০২৬ সালের ২ এপ্রিল পর্যন্ত মেয়াদ ছিল তার। কিন্তু এ বছর বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল থেকে পদত্যাগ করেন দীনেশ। যোগ দেন বিজেপি-তে। তারপর গত ১২ ফেব্রুয়ারি তৃণমূলের হয়ে জেতা রাজ্যসভা আসনটি থেকেও পদত্যাগ করেন তিনি। সেই জায়গাতেই এ বার জহরকে বসানোর তোড়জোড় শুরু করে দিল তৃণমূল। আগামী ৯ অগাস্ট ওই আসনে উপ নির্বাচন এবং ফল ঘোষণা।

শনিবার তৃণমূলের ঘোষণার পরই আনন্দবাজার অনলাইনের তরফে জহরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। তিনি বলেন, ‘অনেক দিন পর এ দিন সকালে উনি (মমতা) ফোন করেন আমাকে। জানান, রাজ্যসভার জন্য দলের তরফে আমাকে ভাবা হচ্ছে। আমি তাতে রাজি কি না। একটু ভেবে বলি, কোনও আপত্তি নেই। তার পরই দলের তরফে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করা হয়।’ মাঝে অনেক দিন মমতার সঙ্গে যোগাযোগ ছিল না তার। তাই এত দিন পর ফোন করে সরাসরি রাজ্যসভায় প্রার্থী করার প্রস্তাব দেওয়ায়, এখনও ঘোর কাটছে না বলে জানিয়েছেন জহর।

অবসরপ্রাপ্ত আইএএস অফিসার জহরের সঙ্গে তৃণমূল নেতৃত্বের সম্পর্ক আগাগোড়াই ভাল। আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে মমতা সরকারের টানাপড়েনের সময়, আলাপনেরই পক্ষ নিয়েছিলেন তিনি। আলাপনকে দিল্লিতে তলব করায় খোলাখুলি মোদি-শাহ পাগল হয়ে গেছেন বলে টুইটারে মুখ খুলেছিলেন তিনি। সেসময় তিনি লিখেছিলেন, ‘মোদি-শাহ কি পাগল হয়ে গেছেন? পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের অবসর নিতে আর একদিন বাকি। এখন তাকে দিল্লিতে বদলি করা হচ্ছে? মুখ্যমন্ত্রী মমতা চেয়েছিলেন আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় আরও তিন মাস পদে থাকুন। ঘূর্ণিঝড়ের ত্রাণ বণ্টন এবং করোনার পরিস্থিতি সামাল দেওয়ায় ব্যাঘাত ঘটাতে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অন্তর্ঘাত এটা। বাংলার ৪৮ শতাংশ মানুষ বিজেপি-র বিরুদ্ধে ভোট দেওয়ার বদলা।’

জহরের নাম সামনে আসার পর রাজ্যের তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ টুইটারে লেখেন, ‘রাজ্যসভায় যাচ্ছেন জহর সরকার। একজন কৃতী ছাত্র, দেশের সর্বোচ্চ মহলে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করা অন্যতম সেরা ও অভিজ্ঞ আমলা, একজন রুচিশীল, অসাধারণ জ্ঞানী, সুপটু লেখক ও বাগ্মীকে মনোনয়ন দিল তৃণমূল।’ এমনিতে নেটমাধ্যমে মোদি বিরোধী বলে পরিচিত জহর। তাই রাজ্যসভায় তার প্রবেশ নিয়ে কুণালের বক্তব্য, ‘দিল্লিতে স্পষ্ট হচ্ছে আগামী বিকল্পের পদধ্বনি।’

বাংলাদেশ জার্নাল / টিটি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত