ঢাকা, রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮ আপডেট : ২ মিনিট আগে

রোবট তৈরি করে অনন্য স্বাদের পিৎজা

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশ : ০৭ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪০

রোবট তৈরি করে অনন্য স্বাদের পিৎজা
ছবি: ডয়চে ভেলে
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

রোবট দিয়ে এখন অনেক কাজই চলে। এমনকী খাবার তৈরির কাজও। স্বাদও থাকে অটুট। ফ্রান্সের পেরিসে রোবটের মাধ্যমে চটজলদি পিৎজা তৈরি করা হচ্ছে; আর স্বাদেও করা হচ্ছে না আপোষ। তিনবারের বিশ্ব পিৎজা চ্যাম্পিয়ন এক রাঁধুনী স্বয়ং এ রোবটকে শিক্ষা দিচ্ছেন।

বেস, টমেটো সস, চিজ আর উপরে দেবার উপকরণ- এ সবই ক্লাসিক পিৎসার মালমশলা। কিন্তু যিনি এই পিৎজা তৈরি করছেন তিনি মানুষ নন। বিশ্বের প্রথম রোবট পিৎজা প্রস্তুতকারকের নাম পাৎজি। পাৎজিরির সহ-প্রতিষ্ঠাতা সেবাস্তিয়াঁ রোভের্সো বলেন, ‘এই রোবট সত্যি অনবদ্য। ঘণ্টায় ৮০টি পিৎজা তৈরি করতে পারে। একইসঙ্গে কয়েকটি পিৎজা ওভেনে গরম করে।

ইতালীয় ভাষায় পিৎজা শব্দটির অর্থ পাগল, যা এ প্রকল্পের সঙ্গে ভালোভাবে খাপ খেয়ে যায়। পিৎজা শব্দটির সঙ্গেও ছন্দের মিল রয়েছে। আমাদের কাছে এটাই রোবটের আদর্শ নাম ছিল।’

সাত বছরেরও বেশি সময় জুড়ে সহ-প্রতিষ্ঠাতা সেবাস্তিয়াঁ রোভের্সো ও তার টিম এই রোবট তৈরির কাজ করেছেন। বেশ কয়েক লাখ ইউরো ব্যয় হয়েছে। কম সংখ্যক কর্মী নিয়ে একই মানের পিৎজা তৈরি এ উদ্যোগের লক্ষ্য।

প্যারিসের এ রোবট প্রায় সব কাজ একাই করতে পারে। স্মার্টফোন বা টার্মিনালের মাধ্যমে পিৎজা অর্ডার দেওয়া যায়। কর্মীরা একমাত্র ক্রেতাদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগের দায়িত্ব পালন করেন।

রোবট সবার আগে ময়দার তাজা তাল থেকে পিৎসার বেস তৈরি করে। তার উপর টমেটো সস লাগানো হয়। শুধু টপিং-এর উপকরণ রোবট নিজে কাটাকুটি করে না। পিৎজা সাজানোর কাজ শেষ হলে রোবট সেটিকে ওভেনে ঢুকিয়ে দেয়। সবশেষে তৈরি পিৎজা কার্টনের মধ্যে রেখে ছুরি দিয়ে টুকরোগুলো ভাগ করা হয়।

অর্ডার দেবার পর পাঁচ মিনিটের কম সময়ের মধ্যে গ্রাহকরা একটি খোপ থেকে পিৎজা সংগ্রহ করতে পারেন। দেখতে সহজ মনে হলেও গোটা প্রক্রিয়াটি কিন্তু অত্যন্ত জটিল। সূত্র: ডয়চে ভেলে।

বাংলাদেশ জার্নাল / টিটি

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত