ঢাকা, বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ আপডেট : ৭ মিনিট আগে

দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার নতুন ধরন শনাক্ত, বিপাকে ডব্লিউএইচও

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশ : ২৬ নভেম্বর ২০২১, ০৩:১৪

দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনার নতুন ধরন শনাক্ত, বিপাকে ডব্লিউএইচও
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনাভাইরাসের নতুন একটি ধরন শনাক্ত হয়েছে। দেশটির বিজ্ঞানীরা বলেছেন, করোনার এই ধরন ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি মিউটেশন ঘটিয়েছে। ধরনটি কী ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে, সে বিষয়ে বোঝার চেষ্টা করছেন তারা। খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্স ও এএফপির।

বৃহস্পতিবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিজ্ঞানীদের একটি দল করোনার নতুন ধরন ‘বি.১.১.৫২৯’ শনাক্তের তথ্য নিশ্চিত করেছে। সম্প্রতি দেশটিতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পেছনে এই ধরন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এক সংবাদ সম্মেলনে দেশটির ভাইরোলজিস্ট তুলিও দে ওলিভেইরা বলেছেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা করোনাভাইরাসের নতুন একটি ধরন শনাক্ত করেছি; যা দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য উদ্বেগের কারণ।

দক্ষিণ আফ্রিকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর কমিউনিকেবল ডিজিজেস (এনআইসিডি) বিবৃতিতে বলেছে, বিজ্ঞানীরা অল্প সংখ্যক মানুষের মাঝে জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ে ২২ জনের দেহে কোভিড-১৯ এর নতুন ধরন বি.১.১.৫২৯ শনাক্ত করেছেন। সংস্থাটির অধ্যাপক আদ্রিয়ান পুরেনের বরাত দিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ডেটা সীমিত হলেও আমাদের বিশেষজ্ঞরা নতুন ধরন এবং এর সম্ভাব্য প্রভাব কী হতে পারে, তা বোঝার জন্য বিদ্যমান সব নজরদারি ব্যবস্থা ব্যবহারের মাধ্যমে অতিরিক্ত সময় ধরে কাজ করে যাচ্ছেন।

এদিকে করোনার নতুন পরিবর্তিত যে ধরনটির সন্ধান পাওয়া গেছে, তা কতখানি সংক্রামক ও প্রাণঘাতী হতে পারে, সে সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত কোনো তথ্য নেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) কাছে।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক গবেষণা সংস্থা ইউসিএল জেনেটিক্স ইনস্টিটিউটের পরিচালক ফ্রাঙ্কোইস ব্যালক্সও ডব্লিউএইচওর অবস্থানকে অনুসরণ করে ব্লুমবার্গকে বলেন, ‘নতুন এই পরিবর্তিত ধরনটি কতখানি সংক্রামক হতে পারে, এ পর্যন্ত শনাক্ত হওয়া পরিবর্তিত ধরনগুলোর তুলনায় এটি আরও ধ্বংসাত্মক হতে পারে কি না- এখনই এসব ব্যাপারে মন্তব্য করার সময় আসেনি।’

‘তবে একজন গবেষক হিসেবে আমি বলব, এখনই এই নিয়ে উদ্বেগে ভোগার কোনো কারণ নেই।’

গত বছর বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনাভাইরাসের বেটা ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) যে চারটি ধরনকে ‘উদ্বেগজনক’ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে, বেটা সেসবের একটি। করোনার এই ধরন অতি-সংক্রামক এবং এই ধরনের বিরুদ্ধে টিকার কার্যকারিতা কম।

চলতি বছরের শুরুর দিকে দেশটিতে করোনার আরেকটি ধরন সি.১.২ শনাক্ত হয়। তবে সেটি ডেল্টা ধরনের তুলনায় কম সংক্রামক।

বাংলাদেশ জার্নাল/এএম

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত