ঢাকা, সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯ আপডেট : ১১ মিনিট আগে

মালি এবং বুরকিনা ফাসোতে হামলায় ২১ জন নিহত

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশ : ২৫ এপ্রিল ২০২২, ০১:০৬

মালি এবং বুরকিনা ফাসোতে হামলায় ২১ জন নিহত
সংগৃহীত
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

পশ্চিম আফ্রিকার প্রতিবেশি দুই দেশ মালি এবং বুরকিনা ফাসোতে জিহাদিদের হামলায় হামলায় ১৫ জন সৈন্য এবং ৬ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে। রোববার এক বিবৃতিতে দেশটির সামরিক ও নিরাপত্তা সূত্র নিশ্চিত করেছে।

বিবৃতিতে সামরিক বাহিনী বলেছে, রোববার গভীর রাতে মালির মধ্যাঞ্চলের তিনটি সেনা শিবিরে বিস্ফোরক বোঝাই একাধিক গাড়ি চালিয়ে দিয়েছে আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীরা। সেসময় ক্যাম্পে ছয়জন নিহত ও ১৫ জন আহত হয় এবং অন্য দুটি স্থানে পাঁচজন আহত হয়েছে।

এদিকে, উত্তর বুরকিনা ফাসোর সীমান্তের ওপারে, গাসকিন্দে এবং পোবে-মেনগাওতে একযোগে সামরিক বিচ্ছিন্নতার উপর হামলায় ৯ জন সৈন্য এবং ৬ জন বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে, যাদের মধ্যে দুজন সশস্ত্র আত্মরক্ষা গোষ্ঠীর সদস্য ছিলো।

গত দুই বছরে মালি এবং বুরকিনা ফাসোর ক্ষমতা ছিনিয়ে নিয়েছে দেশ দুটির সামরিক জান্তারা। গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত পূর্বসূরিদের চেয়ে বেশি নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় আসে তারা। কিন্তু দুই দেশেই সহিংস হামলা অব্যাহত রয়েছে।

গ্রামীণ মরু অঞ্চল থেকে ইসলামপন্থী যোদ্ধাদের নির্মূলের প্রচেষ্টার সময় উভয় দেশের সশস্ত্র বাহিনী বেসামরিক নাগরিকদের হয়রানি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ২০১২ সালে মালির উত্তরাঞ্চল ইসলামপন্থীরা দখলে নেয়ার পর দেশটিতে সঙ্কটের শুরু হয়।

ফরাসি সৈন্যরা অভিযান চালালে পিছু হটতে বাধ্য হয় ইসলামপন্থী জিহাদিরা। পরবর্তীতে আবারও সংগঠিত হয়ে রাজধানী বামকোর কাছে একাধিক হামলা চালায় তারা।

কয়েক বছরের মধ্যে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী আল-কায়েদা এবং ইসলামিক স্টেটের সাথে সংশ্লিষ্ট এই জিহাদিরা আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ে এবং বুরকিনা ফাসো ও নাইজারে নারকীয় ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। জঙ্গিদের হামলায় হাজার হাজার মানুষের প্রাণহানি এবং আরও লাখ লাখ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। সূত্র: রয়টার্স

বাংলাদেশ জার্নাল/কেএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত