ঢাকা, বুধবার, ১৭ আগস্ট ২০২২, ২ ভাদ্র ১৪২৯ আপডেট : ২ মিনিট আগে

নুপুর শর্মাকে সমর্থন করায় দর্জিকে হত্যা

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশ : ২৯ জুন ২০২২, ০৩:০০  
আপডেট :
 ২৯ জুন ২০২২, ০৩:২৩

নুপুর শর্মাকে সমর্থন করায় দর্জিকে হত্যা
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ভারতের সমালোচিত বিজেপি নেত্রী নুপুর শর্মাকে সমর্থন জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করায় কানহাইয়া লাল নামের একজন দর্জিকে নৃশংসভাবে খুন হয়েছেন।

মঙ্গলবার ভারতের রাজস্থানের উদয়পুরে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, দুই ব্যক্তি কানহাইয়া লালকে খুন করেন। এ ঘটনার পরই রাজস্থানে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে শুরু হয় প্রতিবাদ। পরে সেখানে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়। এসময় বন্ধ করে দেয়া হয় সেখানকার ইন্টারনেট সংযোগ।

এ ঘটনায় কংগ্রেসশাসিত রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট বলেন, আমি এই জঘন্য হত্যাকাণ্ডের তীব্র নিন্দা করছি। উদয়পুরে এক যুবককে খুন করা হয়েছে। সমস্ত অপরাধীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অন্যদিকে এ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানান ভারতের কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীও।

তিনি টুইটারে লেখেন, এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের কথা শুনে আমি পুরো স্তব্ধ হয়ে গিয়েছি। ধর্মের নামে বর্বরতা সহ্য করা হবে না। যারা এই আতঙ্ক তৈরির চেষ্টা করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমাদের একসঙ্গে মিলেমিশে ঘৃণাকে হারাতে হবে। আমার সকলের কাছে আবেদন, দয়া করে শান্তি এবং সৌভ্রাতৃত্ব বজায় রাখুন।

এদিকে পরিস্থিতি সামলাতে উদয়পুরসহ রাজস্থানের বিভিন্ন জায়গায় ইন্টারনেট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে রাজস্থান পুলিশের এডিজি (আইন-শৃঙ্খলা) হাওয়া সিং ঘুমারিয়া জানান, উচ্চপদস্থ পুলিশ কর্তাদের নেতৃত্বে সশস্ত্র পুলিশের ৬০০ সদস্যের একটি দলকে উদয়পুরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বহাল করা হয়েছে। পরে পুলিশ রাজসমন্দ জেলা থেকে দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশের দাবি, ওই দুই ব্যক্তিই উদয়পুরের দর্জিকে খুন করেছে। পরে তারা পালানোর চেষ্টা করছিল। সেই সময় তাদের ধরে ফেলা হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্তরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও পোস্ট করেছিল। সেই ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, নিহত দর্জি কানহাইয়া লালের কাছে এক যুবক পোশাকের মাপ দেওয়ার নাম করে যায়। অপরজন গোটা ঘটনাটা ভিডিও করছিল। দর্জি যখন ওই যুবকের পোশাকের মাপ নিচ্ছিলেন, সেই সময় ধারাল অস্ত্র বের করে তার গলা কেটে ফেলে হামলাকারী। ভিডিওতে আহত ওই দর্জিকে বারবার বলতে শোনা গেছে, ‘কী হয়েছে, আমাকে বল, কেন এমন করলে!’

পুলিশ জানিয়েছে, এতেই ক্ষান্ত হয়নি আততায়ীরা। ওই ভিডিওতে তারা দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেও এভাবেই খুনের হুমকিও দিয়েছে। সূত্র : ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

বাংলাদেশ জার্নাল/কেএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত