প্রতিরক্ষামন্ত্রী বরখাস্ত, বিক্ষোভে উত্তাল ইসরায়েল

প্রকাশ : ২৭ মার্চ ২০২৩, ১০:৫৮ | অনলাইন সংস্করণ

  আন্তজার্তিক ডেস্ক

সরকারবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল ইসরায়েল । ছবি: এবিসি নিউজ

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্টকে বরখাস্ত করেছেন। এ ঘটনার পর লাখ লাখ ইসরায়েলি রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করছেন। এতে করে মধ্যপ্রাচ্যের এই ভূখণ্ডটিতে বড় ধরনের প্রতিবাদ-বিক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। 

এর আগে এ প্রতিরক্ষামন্ত্রী নেতানিয়াহু সরকারের বিচার ব্যবস্থার বিতর্কিত সংস্কার পরিকল্পনার বিরুদ্ধে কথা বলেন। তিনিই লিকুদ পার্টি সরকারের কোনো জ্যেষ্ঠ সদস্য যিনি এ সংস্কারের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন।

সোমবার এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি। ইসরায়েলি ক্ষুব্ধ জনগণ তেল আবিবের প্রধান সড়ক অবরোধ করে, রাস্তায় নীল-সাদা পতাকার ঢেউ তোলে। কিছুক্ষণ মধ্যে জনসমুদ্রে পরিণত হয় পথে পথে। বিয়ারশেবা, হাইফা, জেরুজালেমসহ অনেক জায়গায় বিক্ষোভ হয়।

এদিকে, সোমবার ভোরে ইসরাইলের প্রেসিডেন্ট আইজ্যাক হারজগ সংস্কার বন্ধ করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। টুইটবার্তায় তিনি বলেন, ইসরাইলের জনগণের ঐক্যের স্বার্থে, দায়িত্বের স্বার্থে, আমি আপনাকে অবিলম্বে আইন প্রণয়ন প্রক্রিয়া বন্ধ করার আহ্বান জানাচ্ছি। ইসরাইলের জনগণ আপনার দিকে তাকিয়ে রয়েছে।

বিবিসি বলছে, বিক্ষোভকারীরা জেরুজালেমে প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর বাড়ির কাছে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করে। পরে তাদের ঠেকাতে পুলিশ ও সেনা সদস্যরা জলকামান ব্যবহার করেছেন। বিক্ষোভকারীরা নেতানিয়াহুর বাড়ির কাছে বিক্ষোভের পর পুলিশকে এড়িয়ে ইসরায়েলের সংসদে ঢোকার চেষ্টা করেন। এ সময় তাদের ইসরায়েলের পতাকা হাতে নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দিতে দেখা যায়।

এদিকে, পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে নেতানিয়াহুর পদত্যাগের দাবি জোরালো হচ্ছে। দেশটির রাজনৈতিক অঙ্গনেও চরম অস্থিরতা দেখা দিয়েছে। সেনাবাহিনীর মধ্যে অসন্তোষের জন্ম দিয়েছে।

একজন সরকারি কর্মচারী বিবিসিকে বলেছেন, নেতানিয়াহু একটি গণতান্ত্রিক দেশ হিসাবে আমাদের সকল সীমা অতিক্রম করেছেন। আমরা আমাদের গণতন্ত্রের শেষ অংশটিকে রক্ষা করছি এবং আমরা এই অবস্থায় ঘুমিয়ে থাকতে পারি না। যতক্ষণ না আমরা এই পাগলামী বন্ধ না করছি ততক্ষণ আমি অন্য কিছুই করতে পারব না।

সরকারবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল ইসরায়েল । ছবি: সংগৃহীত

সংবাদমাধ্যমটি বলছে, সদ্য বরাখাস্ত হওয়া ইসরায়েলি প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ট একজন সাবেক সৈনিক। নেতানিয়াহু বিচার ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তনের জন্য কার্যক্রম শুরু করার পর তিনি কয়েক সপ্তাহ ধরে রিজার্ভ সেনাদের কাছ থেকে প্রস্তাবিত এই আইন পরিবর্তনে তাদের অসন্তুষ্টির কথা শুনেছেন।

মূলত ইসরায়েলে বিচার ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তনের জন্য সরকারি পরিকল্পনার বিরুদ্ধে গত ১২ সপ্তাহ ধরে ভূখণ্ডটিতে এই বিক্ষোভ চলছে। বিক্ষোভকারীরা সুপ্রিম কোর্টের ক্ষমতা কমানোর জন্য কট্টর ডানপন্থি নেতানিয়াহু সরকারের পরিকল্পনার বিরোধিতা করছেন। সমালোচকরা বলছেন, ইসরায়েলি সরকারের এই পরিকল্পনা বিচারিক স্বাধীনতার জন্য হুমকি।

নেতানিয়াহু সরকারের বিচার বিভাগীয় সংস্কার পরিকল্পনার সমালোচকরা বলছেন, এই সংস্কার পরিকল্পনা ইসরায়েলের গণতন্ত্রকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। তবে নেতানিয়াহুর সরকার বলছে, তাদের পরিকল্পিত এই পরিবর্তনই ভোটারদের জন্য ভালো ফল বয়ে আনবে।

মূলত ওই আইন পাস হলে আইনসভা এবং নির্বাহী বিভাগের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের ক্ষমতা সীমিত হয়ে যাবে। একইসঙ্গে বিচারক নিয়োগের ক্ষেত্রে সিদ্ধান্তমূলক ক্ষমতা পাবেন পার্লামেন্টের আইন প্রণেতারা।

ইসরায়েলিদের টানা বিক্ষোভের মধ্যে একদিন আগেই বিতর্কিত ওই সংস্কার পরিকল্পনা নিয়ে সরব হন ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ট। তিনি সতর্ক করে বলেন, এই সংকট সামাজিক বিপর্যয়ের কারণ হচ্ছে এবং সেটি ইসরায়েলের নিরাপত্তার ক্ষতি করতে পারে।

শনিবার টেলিভিশনে দেওয়া সংক্ষিপ্ত এক বিবৃতিতে গ্যালান্ট তার সরকারের সংস্কার পরিকল্পনাকে ‘রাষ্ট্রের নিরাপত্তার জন্য স্পষ্ট, তাৎক্ষণিক এবং বাস্তব বিপদ’ হিসাবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যরা এতে এতোটাই ক্ষুব্ধ ও হতাশ যা তিনি আগে কখনও দেখেননি।

এদিকে প্রতিরক্ষামন্ত্রীর পদ থেকে গ্যালান্টের অপসারণে মার্কিন সরকার ‘গভীরভাবে উদ্বিগ্ন’ বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। রোববার (২৬ মার্চ) হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র অ্যাড্রিয়েন ওয়াটসন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর সঙ্গে প্রেসিডেন্ট সম্প্রতি আলোচনা করেছেন। গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ সবসময়ই মার্কিন-ইসরায়েল সম্পর্কের বৈশিষ্ট্য ছিল এবং এটাই থাকবে।

সূত্র: বিবিসি, দ্য গার্ডিয়ান

বাংলাদেশ জার্নাল/আরআই