ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৯:০৭

প্রিন্ট

‘লুকিয়ে বাঁচতে চাই না’

‘লুকিয়ে বাঁচতে চাই না’
অনলাইন ডেস্ক

ফতোয়া জারির দীর্ঘ ৩০ বছর পর বধোদয় হয়েছে ‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস’র লেখক সালমান রুশদির। প্যারিস সফরকালে সংবাদ সংস্থা এএফপিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন,‘এ ভাবে লুকিয়ে বাঁচতে চাই না।’

বিতর্কিত ‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস’উপন্যাসের কারণে গত শতাব্দীর নব্বইয়ের দশকে বিশ্ব জুড়ে মুসলিম সম্প্রদায়ের কাছে তীব্র সমালোচিত হন লেখক সালমান রুশদি। এই বই লেখার কারণে ১৯৮৯ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি তার নামে মৃত্যু পরোয়ানা জারি করেছিলেন ইরানের তৎকালীন সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ রুহুল্লাহ খোমেনী।

খোমেনী মারা গিয়েছেন কিন্তু তার‘ফতোয়া’জারি থেকেছে বছরের পর বছর ধরে। ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই লেখক ১৩ বছর আত্মগোপনে কাটিয়েছেন। প্রতিনিয়ত পুলিশি পাহারায় কার্যত ‘বন্দি’থেকেছেন। তখনকার সেই আতঙ্কিত দিনগুলো নিয়ে সম্প্রতি প্যারিসে একটি সাক্ষাৎকারে মুখ খুললেন সালমান রুশদি।

রুশদি বলেন, ‘তখন ৪১ বছর বয়স ছিল। আর আজ আমি ৭১। এখন পরিস্থিতি অনেকটাই ঠিক।’

২০০১ সালের সেপ্টেম্বরে আত্মগোপন থেকে বেরিয়ে আসেন রুশদি। তার বছর তিনেক আগেই লেখকের বিরুদ্ধে জারি হওয়া পরোয়ানা প্রত্যাহার করে নিয়েছিল তেহরান।

রুশদি এ দিন বলেন, ‘আমরা এমন একটা পৃথিবীতে বাস করি, যেখানে সব কিছু খুব দ্রুত বদলে যায়। এটা অনেক পুরনো একটা বিষয়। এখন ভয় পাওয়ার মতো আরও অনেক কারণ গজিয়ে উঠেছে। আরও অনেক লোক রয়েছেন যাদের মাথার উপরে খাড়া ঝুলছে।’

গত বিশ বছর ধরে নিউ ইয়র্কের বাসিন্দা রুশদি। সম্প্রতি পূর্ব ফ্রান্সে একটি বই-উৎসবে তিনি বলেছিলেন, ‘এখন সম্পূর্ণ স্বাভাবিক জীবন কাটাই।’

যদিও প্যারিসে এই সাক্ষাৎকার চলাকালীন ফরাসি প্রকাশকের দফতরের বাইরে পুলিশি পাহারা ছিল।

‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস’ রুশদির পঞ্চম বই ছিল। এক মুম্বইবাসীকে নিয়ে লেখা আঠারতম উপন্যাস ‘দ্য গোল্ডেন হাউস’সদ্য শেষ করেছেন তিনি। ঘটনাচক্রে যার সঙ্গে লেখকের নিজের জীবনের মিল অনেকটাই বলে জানান তিনি।

‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস’যখন লিখেছিলেন রুশদি, সেই সময়ের কথা টেনে তিনি বলেন, ‘সে সময়ে ইসলাম তেমন কোনও বিষয় ছিল না। কেউ অত ভাবতও না। এখন যেটা হয়েছে, পশ্চিমের মানুষ আগের চেয়ে অনেক বেশি এই বিষয়ে ওয়াকিবহাল।’

তবে রুশদির আক্ষেপ, ‘বইটা সম্পর্কে ভুল বোঝা হয়েছিল।’

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত