ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ আপডেট : ৪ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৪ জুলাই ২০১৯, ০৮:৫৯

প্রিন্ট

কলকাতায় বাংলাদেশি বইয়ের স্থায়ী ঠিকানা

কলকাতায় বাংলাদেশি বইয়ের স্থায়ী ঠিকানা
কলকাতা প্রতিনিধি

কলকাতায় বাংলাদেশি বইয়ের স্থায়ী ঠিকানা তৈরি হলো। বাংলাদেশের নামী ও অনামী লেখকদের বই, পত্র পত্রিকা নিয়ে কলকাতার বইপাড়া বলে খ্যাত কলেজ স্ট্রিটে দ্বিতীয় সংস্থা হিসাবে পা রাখলো বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত প্রকাশনা সংস্থা ‘অন্যপ্রকাশ’। এটি ভারত ও বাংলাদেশ যৌথ প্রকাশনা উদ্যোগ ‘বইসাঁকো’র নতুন প্রয়াস।

মঙ্গলবার কলকাতার ৩/১ কলেজ রোড, (কলেজ স্ট্রিট মার্কেটের বিপরীতে) কলকাতা-৯ এই ঠিকানায় যাত্রা শুরু হল ‘অন্যপ্রকাশ’ স্টলটির। এদিন এই বই বিপণীটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন কলকাতায় অবস্থিত বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনার তৌফিক হাসান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবাংলার কথাশিল্পী প্রচেত গুপ্ত, কলকাতা পাবলিশার্স এন্ড বুকসেলার্স গিল্ড’এর সাধারণ সম্পাদক ত্রিদিব চট্টোপাধ্যায়, বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি মাজাহারুল ইসলাম, শিক্ষাবিদ ইমানুল হক প্রমুখ। উদ্বোধনের পর স্টলটি ঘুরে দেখার পাশাপাশি বেশ কিছু বই হাতে নিয়ে পড়তেও দেখা যায় বিশিষ্ট জনদের।

মাজহারুল ইসলাম জানান, এই প্রয়াসটি পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের পাঠক ও লেখক উভয়ের পক্ষেই আনন্দের বিষয়। আমাদের উদ্দেশ্য হল পশ্চিমবঙ্গের লেখকদের বই ‘অন্যপ্রকাশ’থেকে বাংলাদেশে প্রকাশিত হবে, তেমনি বাংলাদেশের লেখকদের বইও এখানে প্রকাশিত হবে। বাংলাদেশের বই এখানে খুবই কম পাওয়া যায়, উপরন্ত যে বইগুলো এখানে আসে তা বইমেলা কেন্দ্রিক। তাছাড়াও প্রিন্টিং, বাইন্ডিং, ক্যারিং খরচ সর্বোপরি টাকার মূল্যায়নের ফলে কলকাতার তুলনায় বাংলাদেশ থেকে আসা বইয়ের দাম অনেক বেশি হয়। সেক্ষেত্রে এখানকার পাঠকদের কাছে বাংলাদেশের বই ক্ষমতার বাইরে চলে যায়।

কিন্ত কলকাতাতেই যদি ওই নির্দিষ্ট বইটি প্রকাশিত হয় তবে তার দামও স্থানীয় বাজার দামে বিক্রি হবে। ফলে এখানকার পাঠকদের কাছে তা আরও সহজলভ্য হয়ে উঠবে। পাশাপাশি দুই বাংলার বইয়ের আদান প্রদানের মাধ্যমে দুই দেশের সাহিত্য ও সংস্কৃতির মেলবন্ধন আরও শক্তিশালী ও সুদৃঢ় হবে বলেও আশাপ্রকাশ করেন তিনি।

কলকাতায় অবস্থিত বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনার তৌফিক হাসান জানান ‘পশ্চিমবঙ্গের প্রকাশনা সংস্থা ‘পত্রভারতী’ ও বাংলাদেশের প্রকাশনা সংস্থা ‘অন্যপ্রকাশ’ মিলে ‘বইসাঁকো’ নামে যে উদ্যোগটি নিয়েছে তা এককথায় নি:সন্দেহে ভালো উদ্যোগ।’

এই উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন কলকাতা পাবলিশার্স এন্ড বুকসেলার্স গিল্ড’এর সাধারণ সম্পাদক ত্রিদিব চট্টোপাধ্যায়ও।

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত