ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৪ আগস্ট ২০১৯, ০৫:০২

প্রিন্ট

শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ শেষে মক্কায় হাজিরা

বিদায়ী তাওয়াফ করতে মক্কায় হাজিরা
জার্নাল ডেস্ক

কাবা শরীফে বিদায়ী তাওয়াফ করতে এরই মধ্যে মক্কার ফিরতে শুরু করেছেন লাখ লাখ হাজি। এর আগে, মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) জামারতে শয়তানের উদ্দেশে প্রতিকী পাথর নিক্ষেপ করেন তারা।

ইসলামের পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভের একটি হচ্ছে পবিত্র হজ। ধারাবাহিকভাবে ধর্মীয় বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠান পালনের মধ্যদিয়ে হজ পালন করতে হয়। এবারের হজে অংশ নিয়েছেন প্রায় ২৫ লাখ মানুষ। এদের বেশিরভাগই সৌদি আরবের বাইরের নাগরিক।

পাঁচদিন ধরে নানা আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে পালিত হয় হজ। প্রত্যেক সামর্থ্যবান মুসলমানের জন্য জীবনে একবার হজ করা বাধ্যতামূলক। হজের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হচ্ছে আরাফাত ময়দানে অংশগ্রহণ। গত ৯ আগস্ট (শুক্রবার) মিনায় রাত্রি যাপনের পর শনিবার (১০ আগস্ট) সকাল থেকেই আরাফাত ময়দানে জড়ো হতে শুরু করেন মুসল্লিরা। মিনা থেকে ১০ কিলোমিটার হেঁটে এখানে যেতে হয়। হাজিরা নামিরা মসজিদ থেকে দেওয়া খুতবা শোনার পর জোহর ও আসরের নামাজ একইসঙ্গে সংক্ষিপ্তভাবে আদায় করেন। তারপর হজ কবুল হওয়ার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া ও কোরান তেলওয়াতের মাধ্যমে সূর্যাস্তের অপেক্ষা করেন। সূর্যাস্তের পর হাজিরা মাগরিবের নামাজ আদায় না করেই আরাফাতের ময়দান থেকে রওনা দেন মুজদালিফার দিকে। সেখানে পৌঁছে মাগরিব ও এশার নামাজ একসঙ্গে আদায় করেন। খোলা আকাশের নিচে রাত যাপন করেন হাজিরা। তারপর মঙ্গলবার মিনার জামারায় (প্রতীকী) পাথর সংগ্রহ করে তা শয়তানের উদ্দেশ্যে নিক্ষেপ করেন।

এরপর পবিত্র কাবা শরিফে বিদায়ী তাওয়াফ করে হজের পূর্ণ আনুষ্ঠানিকতা শেষ করবেন হাজিরা। এরপর যারা আগে মদিনায় যাননি তারা মদিনায় যাবেন। সেখানে হাজিরা সাধারণত ৪০ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করেন। পরে শুরু হবে দেশে ফেরার পালা।

এ বছর হজের সময় এক লাখ ২০ হাজার নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা দিতে নিয়োজিত ছিল প্রায় ৩০ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী।

ডিপি/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত