ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬ আপডেট : ৪৮ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৪ আগস্ট ২০১৯, ১৩:০৮

প্রিন্ট

নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক চায় পাকিস্তান

নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক চায় পাকিস্তান
অনলাইন ডেস্ক

অধিকৃত কাশ্মীরের ওপর থেকে জম্মু কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বিলোপ ও তাকে দু’ভাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়ে আগেই জাতিসংঘের দ্বারস্থ হয়েছিল পাকিস্তান। দেশটির সেই উদ্যোগ সফল হয়নি। এবার কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে আলোচনার জন্য ফের নিরাপত্তা পরিষদকে চিঠি দিয়ে বিশেষ বৈঠকের অনুরোধ জানিয়েছে ইসলামাবাদ।

চিঠিতে লেখা হয়েছে, কাশ্মীরকে জোরপূর্বক দখলের মাধ্যমে গোটা দক্ষিণ এশিয়ার নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে উঠেছে ভারত। তাদের এই তৎপরতা জাতিসংঘে কাশ্মীর বিষয়ক প্রস্তাবের স্পষ্ট লঙ্ঘণ। পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মোহাম্মদ কুরেশি চিঠিতে লিখেছেন, ‘আমরা কোনও দ্বন্দ্ব চাই না। কিন্তু ভারত যেন আমাদের সংযমকে দুর্বলতা না ভাবে।’

কুরেশি জানান, ভারতের ওই ‘অবৈধ’পদক্ষেপ নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের সঙ্গে কথা বলতে চায় ইসলামাবাদ। দেশটি আরো চায়, এই ইস্যুতে একটি বিশেষ বৈঠক ডাকুক নিরাপত্তা পরিষদ। ভারতের বিরুদ্ধে পেশিশক্তির হুমকি এনে কুরেশি বলেন, আত্মরক্ষার স্বার্থে পাকিস্তানও সর্বশক্তি দিয়ে নয়াদিল্লিকে প্রতিরোধ করবে।

জম্মু-কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে চীনের সমর্থন আদায়ের জন্যে গত শুক্রবারই বেইজিংয়ে গিয়ে দেখা করেছিলেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই-এর সঙ্গে দেখা করেন কুরেশি। তিনি জানান, জম্মু কাশ্মীর নিয়ে পাকিস্তানের জাতিসংঘের দৃষ্টি আকর্ষণের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেছে চীন।

আগস্ট মাসের জন্যে নিরাপত্তা পরিষদ পরিচালনার দায়িত্ব পাচ্ছে পোল্যান্ড। পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইতিমধ্যে পোলিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাসেক জাপুটোউইচকে কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের একটি পৃথক অধিবেশনের আহ্বান জানিয়েছেন।

এ সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাসেক জাপুটোউইচ সংবাদসংস্থাকে জানাচ্ছেন, তারা পাকিস্তানের চিঠি পেয়েছেন মঙ্গলবার। ভারতে নিয়োজিত পোলিশ রাষ্ট্রদূত অ্যাডাম বোরাওয়াস্কি জানিয়েছেন, ‘নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হিসেবে আমরা এই পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুত। আমরা ওই অঞ্চলের পরিস্থিতিসমূহ গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি এবং সেখানকার অংশীদারদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছি।’

পরে তিনি নিউইয়র্কে সাংবাদিকদের জানান, পাকিস্তানের চিঠি তারা নিয়ে শীঘ্রই আলোচনায় বসবেন।

কুরাশি নিরাপত্তা পরিষদের অন্যান্য সদস্য দেশগুলোর কাছেও কাশ্মীরের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন।

এর আগে কাশ্মীরে ভারতের জবরদখলে ক্ষুব্ধ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বিশ্ববাসীকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছিলেন, অধিকৃত কাশ্মীরের ওপর ভারত যে দমন পীড়ন চালাচ্ছে তা নিয়ে নীরবতা অবলম্বন করে বিশ্বনেতারা আরেকজন হিটলারের উত্থানকেই সমর্থন করছেন।

সূত্র: ডন

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত
close
close