ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ আপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৪ নভেম্বর ২০১৯, ১১:০৮

প্রিন্ট

কামড়ে বিক্ষোভকারীর কান কেটে নিল হামলাকারী

কামড়ে বিক্ষোভকারীর কান কেটে নিল হামলাকারী
অনলাইন ডেস্ক

ফের সরকারবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে হংকংয়ের রাজপথ। একই সঙ্গে গণতন্ত্রকামী বিক্ষোভকারীদের ওপর বেড়েছে নিত্য নতুন হামলার ঘটনাও। রোববার বিক্ষোভকারীদের ওপর ছুরি হাতে হামলে পড়ে এক অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি। হামলায় কমপক্ষে পাঁচজন আহত হয়েছেন। এসময় কামড়ে এক বিক্ষোভকারীর কান কেটে নিয়েছে ওই হামলাকারী।

প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা জানান, আহতদের দ্রুতই স্থানীয় একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে হামলাকারীর পরিচয় এখন পর্যন্ত শনাক্ত করা যায়নি।

রোববার হংকংয়ের থাই কো জেলার সিটিপ্লাজা ছিল এই বিক্ষোভের কেন্দ্রস্থল। ওই শপিংমলেই ছুরি হামলার ঘটনাটি ঘটে বলে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে। স্থানীয় হাসপাতাল সূত্রের বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, এ হামলায় চার পুরুষ ও এক নারী আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে দুইজনের অবস্থা গুরুতর।

এছাড়া স্থানীয় এক কাউন্সিলরের কানের একাংশ কেটে নিয়েছে ওই হামলাকারী। তবে তাৎক্ষণিকভাবে হামলাকারীর পরিচয় জানা যায়নি। কেবল জানা গেছে, যে ওই হামলা চালিয়েছিল সে একজন পুরুষ। ওই হামলার পর সে শপিংমলের লোকজনের সঙ্গে মিশে যায়।

তবে হামলাকারী চীনা নাগরিক বলে ধারণা করা হচ্ছে। কেননা তিনি মান্দারিন ভাষায় কথা বলেছিলেন। চীনের মূল ভূখণ্ডের বহু লোক এই ভাষায় কথা বলে থাকেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে বিবিসি আরো জানায়, ছুরি হাতে ওই ব্যক্তি প্রথমে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। পরে তিনি তাদের ওপর হামলা চালান। এসময় কাউন্সিলর চিউ কা ইন হামলাকারীকে ঠেকানোর চেষ্টা করলে সে কামড়ে তার কান ছিড়ে নেয়। এরপর আশপাশের লোকজন হামলাকারীকে পেটাতে থাকে। পরে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে ও নিজেদের কব্জায় নেয়। এ বিষয়ে এখনও কোনো বিবৃতি দেয়িনি পুলিশ।

রোববার নতুন করে বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠে হংকং। গত আট মাসের বেশি সময় যাবত চলা এই আন্দোলন দমনে এরই মধ্যে টিয়ার গ্যাসের সঙ্গে রাবার বুলেট ব্যবহার করছে পুলিশ। এরপরই ছুরি হামলার ঘটনাটি ঘটে। চলতি বছরের মার্চ মাসে শুরু হওয়া বিক্ষোভে এটাই প্রথম কোনো দুর্বৃত্তের হামলার ঘটনা।

প্রসঙ্গত, হংকংয়ে চীন বিরোধী বিক্ষোভ চলছে গত জুন থেকে। প্রথমে চীন ও হংকংয়ের মধ্যে অপরাধী প্রত্যর্পণ সংক্রান্ত একটি বিরুদ্ধে এই বিক্ষোভ দানা বাধে। নতুন এই বিলটিতে চীনকে সন্দেহভাজন অপরাধীদের নিজ ভূখণ্ডে নিয়ে বিচার করার অধিকার দেয়া হয়েছে। আর এ কারণেই এই আইনের বিরুদ্ধে ক্ষেপে উঠেছিল হংকংয়ের বাসিন্দারা। তারা এই বিলের বিপক্ষে শক্ত অবস্থান নেয়।

খসড়া আইনটি বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ দিন দিন আরও সহিংস হয়ে উঠছে। হংকংয়ের লাখ লাখ মানুষ গত তিন মাস ধরে বিক্ষোভ করে করার পর সম্প্রতি এই বিলটি বাতিলের ঘোষণা দিয়েছে হংকং কর্তৃপক্ষ। কিন্তু বিল বাতিলের পরও বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। প্রথমে প্রত্যর্পণ বিলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু হলেও পরে ধীরে ধীরে তা হংকংবাসীর স্বাধীনতার দাবিতে পৌঁছেছে। তারা এখন চীনা খবরদারি থেকে মুক্তি পেতে চায়।

সূত্র: বিবিসি

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত