ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট ২০২০, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭ আপডেট : ১১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:৩৮

প্রিন্ট

এবার মেঘালয়ে কারফিউ, বন্ধ মোবাইল-ইন্টারনেট

এবার মেঘালয়ে কারফিউ, বন্ধ মোবাইল-ইন্টারনেট
অনলাইন ডেস্ক

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল বা সিএবি-র বিরুদ্ধে ক্রমশই উত্তাল হয়ে উঠছে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলি। আসাম ও ত্রিপুরার পর বৃহস্পতিবার বিক্ষোভে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে মেঘালয়। রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে রাজধানী শিলংয়ের কিছু অংশে অনির্দিষ্টকালের জন্যে কারফিউ জারি করা হয়েছে। ৪৮ ঘণ্টার জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়েছে শহরের মোবাইল,ইন্টারনেট এবং এসএমএস পরিষেবাও।

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি জানায়, বৃহস্পতিবার বিক্ষোভে অচল হয়ে পড়েছিল মেঘালয়ের রাজধানী শিলং। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে শহরের অন্যতম প্রধান সড়কে একটি বিশাল মশাল মিছিল বের করে বিক্ষোভকারীরা। এসময় বিক্ষুব্থ লোকজন সড়কের বিভিন্ন স্থাপনা এবং যানবাহনে আগুন ধরিয়ে দেয়। ফলে বন্ধ হয়ে যায় সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও দোকানপাট। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়ে পরে বৃহস্পতিবার রাতে শিলংয়ে কারফিউ জারি করে রাজ্য প্রশাসন। পাশাপাশি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে শহরের মোবাইল ও ইন্টারনেট পরিষেবাও।

এদিকে শিলং থেকে আড়াইশ কিলোমিটার দূরে উইলিয়ামনগর শহরে, বিক্ষোভকারীদের হাতে হেনস্থার শিকার হয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী কনরাড সাংমা। একজন মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে তিনি সেখানে এসেছিলেন। কিন্তু হেলিকপ্টার থেকে নামার পরেই তাকে চারপাশ থেকে ঘিরে ধরে বিক্ষোভকারীরা। তারা মুখ্যমন্ত্রীকে লক্ষ্য করে ‘গো ব্যাক’ শ্লোগান দিতে থাকে।

মেঘালয়ের পাশের রাজ্য অসমেও উত্তেজিত জনতা বেশ কয়েকটি বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণে নামা পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে কমপক্ষে পাঁচজন বিক্ষোভকারী মারা যায় বলে খবর। ত্রিপুরা থেকে কোনও হানাহানির খবর না পাওয়া গেলেও, অশান্তি এড়াতে রাজ্যের রাজধানী আগরতলায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং সরকারি-বেসরকারি দফতর বন্ধ রাখা হয়েছে।

বুধবার ভারতের রাজ্যসভায় পাস হয় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। বৃহস্পতিবার রাতে এতে সম্মতি দেন প্রেসিডেন্ট কোবিন্দ। ফলে বৃহস্পতিবার থেকেই সেটি আইনে পরিণত হয়েছে। কিন্তু সংসদে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাসের পর থেকেই বিক্ষোভে ফেটে পড়েছে সে দেশের উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলি। কারফিউ দিয়েও বিক্ষোভকারীদের দমানো যাচ্ছে না।

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত