ঢাকা, সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৫ আশ্বিন ১৪২৮ আপডেট : ৫৪ মিনিট আগে

চেহারায় তারুণ্য ক্যারিয়ারে বৈষম্য

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ২১ জুন ২০২১, ১৬:৪১

চেহারায় তারুণ্য ক্যারিয়ারে বৈষম্য
সংগৃহীত ছবি
নিজস্ব প্রতিবেদক

অসংখ্য প্রমাণ রয়েছে চেহারায় কমবয়সী ছাপ থাকার কারণে কর্মক্ষেত্রে একনিষ্ঠ হওয়ার পরও এটি আপনার কর্মদক্ষতার উপর সরাসরি নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। সকল নারী-পুরুষই চায় তার চেহারায় তারুণ্য থাকুক। কিন্তু এটি আমাদের নাগালের বাইরে। আমরা চাইলে অন্তরে চিরসবুজ থেকে তারুণ্য ধারণ করতে পারি। তবে চেহারায় কমবয়সী ছাপ থাকাটা কারো জন্য আর্শীবাদ। আবার কারো জন্য অভিশাপ।

আমরা ‘প্রোজেরিয়া’ নামে একটি রোগ সম্পর্কে সবাই কমবেশি জানি। যে রোগের কারনে তরুণদেরকে দেখতে বেশি বয়স্ক মনে হয়। অন্যদিকে বেশি বয়স কিন্তু দেখতে বেশ তরুণ, এটি অবশ্যই ইতিবাচক। তবে এটি তাদের ক্যারিয়ারের জন্য ইতিবাচক নয়। ২০২২ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী অ্যান্টি-এজিং পণ্যের বিক্রি ২০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এই তথ্য থেকে কিছুটা হলেও বোঝা যায় যে, নিজেদেরকে তরুণ দেখতে সবাই কতটা উদ্বিগ্ন। কিন্তু কর্মক্ষেত্রে ব্যাপারটি একদমই ভিন্ন। কর্পোরেট ব্যক্তিরা এমন কিছুতে বিনোয়োগে আগ্রহী থাকবেন না যা তাদেরকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে পারে। চেহারায় কমবয়সী ভাব থাকায় কর্পোরেট ক্ষেত্রে শিকার হতে হয় বৈষম্যের।

অনেক ক্ষেত্রে নিজেদের অবস্থান এবং যোগ্যতার প্রমাণ রাখার পরও কমবয়সী চেহারার কর্মীদের উপর আস্থা কম রাখেন। এছাড়া কমবয়সী চেহারার লোকদের মধ্যে প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় আত্মনিয়ন্ত্রণ দক্ষতা কম বলে মনে করা হয়। যা তাদের আত্মবিশ্বাস কমিয়ে দেয় এবং কর্মদক্ষতার উপর সরাসরি নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।

১৯৮০ সালে প্রথম আবিষ্কার হয়েছিলো বেবি ফেস ওভার-জেনারালাইজেশন এফেক্ট । এর আবিষ্কারক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্র্যান্ডিডে ইউনিভার্সিটির সোশ্যাল রিলেশনের অধ্যাপক লেসেলি জেব্রোভিটস এর মতে, যখন কোনো ব্যক্তি শিশুর মুখের বৈশিষ্ট্য ধারণ করে তখন লোকেরা ধরে নিতে পারে যে ওই লোকের ব্যক্তিত্বের মধ্যেও শিশুসুলভ বৈশিষ্ট্য রয়েছে। তার আরেকটি গবেষণায় প্রকাশিত হয়েছে যে, চাকরির আবেদনের ক্ষেত্রে কমবয়সী চেহারার এবং নারীদের ক্ষেত্রে অনুকম্পা দেখানো হয়েছে যেখানে প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রে বুদ্ধিদীপ্ততা এবং নেতৃত্বের গুণাবলীকে বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে।

তবে মানুষ হিসেবে আমাদের সকলেরই রয়েছে বিবেচনা শক্তি। শুধু চেহারা দেখেই কোন ব্যক্তির সাথে কি আচরণ হবে তা ঠিক করে ফেলা উচিত নয়। শিশুসুলভ চেহারা দেখে যোগ্যতা বিবেচনা করা বা তাদের সাথে আচরণের বৈষম্য একধরনের বর্ণবাদ। কর্মক্ষেত্রে এই চর্চা অবশ্যই আমাদের পরিহার করা উচিত।

মানুষকে যদি বইয়ের সঙ্গে তুলনা করা হয়, তবে গল্পটি মস্তিষ্কের; মুখ বা বাহ্যিকতা প্রচ্ছদমাত্র। কোনও বইকে তার প্রচ্ছদ দ্বারা বিচার করা উচিত নয়।

বাংলাদেশ জার্নাল/ এফএম/আরএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত