ঢাকা, সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮ আপডেট : ১৯ মিনিট আগে

কদমতলীতে ট্রিপল মার্ডার

হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করলেন মুনের স্বামী শফিকুল

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ২৬ জুন ২০২১, ০২:১৩  
আপডেট :
 ২৬ জুন ২০২১, ০২:২৭

হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করলেন মুনের স্বামী শফিকুল
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর কদমতলীর চাঞ্চল্যকর মা- বাবা ও বোন হত্যাকাণ্ডে মেহজাবিন ইসলাম মুনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন তার স্বামী শফিকুল ইসলামও। আদালতে তিনি নিজের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

শুক্রবার তিন দিনের রিমান্ড শেষে শফিকুলকে ঢাকা মহানগর হাকিম মইনুল ইসলামের আদালতে হাজির করা হয়। আদালতে তিনি স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। আসামির জবানবন্দি রেকর্ড করে আদালতের নির্দেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গত ২১ জুন কদমতলীর ট্রিপল মার্ডার মামলায় শফিকুল ইসলাম অরন্যর তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। আগের দিন মেহজাবিনের ৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। ওই রিমান্ড শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার তিনি আদালতে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

মামলা থেকে জানা যায়, মেহজাবিনের বাবা মাসুদ রানা ২৬ বছর ধরে সৌদি প্রবাসী ছিলেন। মাঝে মধ্যে তিনি দেশে আসতেন। মাসুদ রানা তার মেয়ে মেহজাবিন ইসলাম মুনকে শফিকুল ইসলাম অরন্যর সঙ্গে বিয়ে দেন। এরপর থেকে মেহজাবিন সম্পত্তি লিখে দেওয়ার জন্য তার মা মৌসুমি ইসলামকে বিভিন্নভাবে চাপ দিতেন। সম্পত্তি লিখে না দেওয়ায় মেহজাবিন ও তার স্বামী শফিকুল ছয় মাস আগে থেকে মাসুদ রানা, তার স্ত্রী মৌসুমি এবং মেয়ে জান্নাতুল ইসলাম মোহনীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। মাসুদ রানা তিন মাস আগে সৌদি আরব থেকে দেশে আসেন। মেহজাবিন ও শফিকুল গত ১৮ জুন বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মাসুদ রানার বাসায় আসেন। রাত ৯টা থেকে বিভিন্ন সময়ে চা-কফি ও পানির সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে মাসুদ রানা, মৌসুমি ইসলাম এবং মোহনীকে তা খাওয়ানো হয়। এতে সবাই অচেতন হলে আসামিরা গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে একে একে সবার মৃত্যু নিশ্চিত করে।

এ ঘটনায় মাসুদ রানার বড় ভাই সাখাওয়াত হোসেন মেহজাবিন ও শফিকুলকে আসামি করে কদমতলী থানায় মামলা দায়ের করেন।

বাংলাদেশ জার্নাল-ওআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত