ঢাকা, বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮ আপডেট : ১২ মিনিট আগে

বৃষ্টি থেকে রক্ষার কৌশল

  জার্নাল ডেস্ক

প্রকাশ : ১৮ জুন ২০২১, ১৪:০৮  
আপডেট :
 ১৮ জুন ২০২১, ১৪:৩৪

বৃষ্টি থেকে রক্ষার কৌশল

জার্নাল ডেস্ক

প্রতিদিনই এখন কমবেশি বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টি থেকে নিজেকে রক্ষায় অনেক কৌশল অবলম্বন করা হয়। তবে সেই কৌশলগুলো কতটা কা‌র্যকারী? বাংলাদেশ জার্নালের আজকের আয়োজনে থাকছে বৃষ্টি থেকে নিজেকে রক্ষার কৌশল ও কা‌র্যকরীতা।

এখন বৃষ্টির মৌসুম। কখনও জোরে কখনও ধীরে আবার কখনও সারাবেলা ঝরেই চলে বৃষ্টি। কখনো চারদিক হয়ে উঠে অন্ধকার। ভোরের রৌদ্রজ্জল আকাশ দেখে ছাতা ছাড়াই মানুষ কাজের জন্য বাইরে বের হয়ে পরছেন। আবার অনেকেই বৃষ্টি পড়তে দেখে বাসা থেকে ছাতা নিয়ে বের হচ্ছেন। কিন্তু ভারী বৃষ্টির কবলে পড়ে কমবেশি কেউই রক্ষা পাচ্ছেন না।

জীবিকার তাগিদে রিকশার সামনে পলিথিন টানিয়ে অথবা মাথায় ছাতা ধরে শহরের একপ্রান্ত থেকে আরেকপ্রান্তে ছুটে চলেছেন কর্মজীবী মানুষ। তবে নিতান্ত প্রয়োজন ছাড়া বৃষ্টির মধ্যে কম মানুষই ঘর থেকে বের হয়ে থাকেন। কিন্তু যারা কর্মজীবী কাজের প্রয়োজনে বাইরে তো তাদের বের হতেই হবে। ঝিরঝির কিংবা মুষলধারায়, যে গতিতেই বৃষ্টি পড়ুক না কেন, তা থেকে আপনাকে বাঁচাতে পারে ছাতা বা রেইনকোট।

তবে ছাতার চেয়ে রেইনকোট আপনাকে বৃষ্টি থেকে বেশি রক্ষা করতে পারবে। ছাতায় ভারী বৃষ্টি আর অধিক বাতাসের হামলা সামলে পথ চলাটা কঠিন হয়ে পরে। তবে রেইনকোট সে ক্ষেত্রে বিশেষ ভরসা হতে পারে। রেইনকোট পুরো শরীর বৃষ্টির পানি থেকে রক্ষা করে। সব বয়সীদের জন্য রেইনকোট রয়েছে। নানা ধরনের রেইনকোট বাজারে পাওয়া যায়। পাওয়া যাচ্ছে নানা রঙের রেইনকোট। বিশেষ করে মেয়েদের জন্য রয়েছে লম্বা রেইনকোট।

আজকাল বেশির ভাগ রেইনকোটে বোতাম ব্যবহার করা হচ্ছে। মেয়ে ও শিশুদের জন্য গাঢ় নীল,কালো, সাদা, গোলাপি,হলুদ, আকাশি, ও লাল রঙের রেইনকোট বেশি পছন্দ করছেন ক্রেতারা। শিশুদের রেইনকোটগুলো রাঙানো হয়েছে স্পাইডারম্যান, ব্যাটম্যান, মিকিমাউসসহ বিভিন্ন কার্টুনের। তবে ছেলেদের রেইনকোটগুলোতে রঙের বৈচিত্র্য কিছুটা কম। কালো, নীল,ছাই ও বাদামি রঙেরই বেশি পাওয়া যাচ্ছে। পলিয়েস্টার অথবা প্যারাসুট কাপড় ব্যবহার করে সাধারণত রেইনকোট তৈরি করা হয়।

বর্তমানে প্লাস্টিকের রেইনকোটও বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। রেইনকোটগুলোর কাপড়ের মধ্যেও রয়েছে ভিন্নতা যেমন সিঙ্গেল পার্ট ও ডাবল পার্টে। ডাবল পার্ট রেইনকোটের দুই পাশই ব্যবহার করা যায়। ক্ল্যাসিক, জুম, হোন্ডা, প্লে-বয়, অ্যাডিডাস বিভিন্ন নামে রয়েছে। আবার ছাতা রোদ-বৃষ্টি দুটোতেই প্রয়োজন। বর্তমানে বাজারে নানা ধরনের পছন্দমত ছাতা পাওয়া যাচ্ছে। প্রায় সব মার্কেটেই কমবেশি ছাতা ও রেইনকোট পাওয়া যায়।

বাংলাদেশ জার্নাল/ এফএম

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত