ঢাকা, শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ আপডেট : ৬ মিনিট আগে

সেকেন্ড, মিনিটের কাটাবিহীন ঘড়ি; নেই টিকটিক শব্দও

  মেহেরুজ্জামান সেফু

প্রকাশ : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪৪  
আপডেট :
 ২৭ অক্টোবর ২০২১, ২১:১৫

সেকেন্ড, মিনিটের কাটাবিহীন ঘড়ি; নেই টিকটিক শব্দও
ছবি: সংগৃহীত
মেহেরুজ্জামান সেফু

সেকেন্ড ও মিনিটের কাটা নেই, নেই কোন টিকটিক শব্দ। তবে সময় দেয় একদম নিখুঁত। ভাবছেন এ আবার কেমন ঘড়ি! যাচ্ছি সে কথায়। আমাদের জীবন চলার পথে ঘড়ি একটি অপরিহার্য বস্তু। ঘড়ি বলতে আমরা কেবল হাতঘড়ি,দেয়াল ঘড়ি কিংবা টেবিল ঘড়ির সাথেই পরিচিত। তবে এর পাশাপাশি রয়েছে আরো কিছু ঘড়ি। যেমন: সূর্যঘড়ি,বালুঘড়ি,পানিঘড়ি,বৈদ্যুতিক ঘড়ি,পারমাণবিক ঘড়ি,হাতঘড়ি। যেগুলো সম্পর্কে আমাদের অনেকেরই জানা নেই।

চলুন তাহলে জেনে নেই তেমনই এক অজানা সূর্য ঘড়ি সম্পর্কে:-

মাত্র ৭০০ বছর আগে লাতিন শব্দ ‘ক্লক্কা’থেকে এসেছে ক্লক। ক্লক্কা মানে ঘণ্টি। যদিও ইতিহাসে এই মূল্যবান আবিষ্কারটির আবিষ্কারক হিসেবে কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তির নাম পাওয়া যায়নি। তবে সূর্য ঘড়ির ব্যবহার শুরু অনেক কাল আগে থেকেই।

আনুমানিক সাড়ে পাঁচ হাজার বছর আগে মিসর ও ব্যাবিলনে উৎপত্তি হয় সূর্য ঘড়ির। এটি প্রথম যান্ত্রিক ঘড়ি। যা এখনো টিকে আছে। সেকেন্ড ও মিনিটের কাটা নেই, নেই কোন টিকটিক শব্দ। তবে সময় দেয় একদম নিখুঁত। গোলাকার চাকতিতে একটি নির্দেশক কাঁটা ও দাগ কাটা সময়ের ঘর, এ নিয়েই সূর্যঘড়ি।

ধারণা করা হয়- মিশরীয়রাই প্রথম প্রকৃতিনির্ভর অর্থাৎ সূর্য-ঘড়ি নির্মাণ করেছিল আর ১৪ শতাব্দীতে এসে ইউরোপিয়ানরাই এই তত্ত্বের উপর ভিত্তি করে প্রথম যান্ত্রিক ঘড়ি আবিষ্কার করেন। কিন্তু ১৪ শতকের দিকে নির্মিত ঘড়িগুলোতে শুধুমাত্র ঘণ্টা নির্দেশ করতে সক্ষম হত, মিনিট বা সেকেন্ড নির্ণয় করতে পারতো না। তাছাড়া বর্তমান ঘড়ির দুই ঘণ্টা ছিল সেই ঘড়ির হিসেবে এক দিন, যার মানে একদিনে ঘড়িটি মাত্র দুবার ৩৬০ ডিগ্রী কোণে ঘুড়তে পারতো। অর্থাৎ এই ঘড়ি দিয়ে সম্পূর্ণ নির্ভুল ও সূক্ষ সময় গণনা করা যেত না।

অবশেষে ডাচ জ্যোতির্বিদ ক্রিশ্চিয়ার হাইজেন্স ১৬৫৭ সালে এসে সম্পূর্ণ নির্ভুলভাবে মিনিট, সেকেন্ড ও ঘণ্টা নির্দেশকারী উন্নতমানের যান্ত্রিক ঘড়ির নকশা করেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমজে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত