ঢাকা, সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯ আপডেট : ২ মিনিট আগে

অস্ট্রেলিয়ার বিস্ময় জাগানো কয়েটি দর্শণীয় স্থান

  জার্নাল ডেস্ক

প্রকাশ : ১৪ মার্চ ২০২২, ১১:৩৫  
আপডেট :
 ১৪ মার্চ ২০২২, ১১:৫৪

অস্ট্রেলিয়ার বিস্ময় জাগানো কয়েটি দর্শণীয় স্থান
টুয়েলভ অ্যাপসটেলস
জার্নাল ডেস্ক

তাসমানিয়া দ্বীপ ও অন্যান্য অসংখ্য ছোট দ্বীপ নিয়ে গঠিত অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের মূল ভূখণ্ড। অসাধারণ সব সৌন্দর্য আর বৈচিত্র্যে ভরপুর এই মহাদেশের প্রধান দেশটি হলো অস্ট্রেলিয়া। এখানে এমন কিছু বিস্ময়কর স্থান আছে যা পৃথিবীর অন্যান্য দেশ থেকে দেশটিকে আলাদা করেছে। এমন সব দর্শণীয় স্থানের মধ্যে রয়েছে-

১. সিডনি

অস্ট্রেলিয়ার সবচাইতে জনপ্রিয় শহর হল সিডনি। শহরটি অস্ট্রেলিয়ার দক্ষিণ-পূর্ব উপকূলে অবস্থিত। এটি দেশটির নিউ সাউথ ওয়েলসের রাজধানী এবং একটি আধুনিক শহর। এই অঞ্চলের প্রথম অধিবাসীরা হাজার হাজার বছর আগে থেকেই এই উপকূলে বাস করতো। তবে ১৭৮০ সালে মূলত দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের পাঠানো হত এই উপকূলে। বর্তমানে ফেরীতে করে সমুদ্র ভ্রমণের জন্য দর্শনার্থীদের ঘোরানো হয় সিডনি হারবার ব্রিজ এবং আইকনিক সিডনি অপেরা হাউজে।

২. লর্ড হাও দ্বীপ

বিশ্বের প্রকৃতি প্রেমীদের জন্য অসাধারণ এক স্বর্গ স্বরূপ হলো লর্ড হাও দ্বীপ। নির্জন, মনোমুগ্ধকর এবং আধা গ্রীষ্মমণ্ডলীয় দ্বীপ এটি। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের মাঝামাঝি অবস্থিত অর্ধচন্দ্রাকার ও আগ্নেয়গিরির অবশিষ্টাংশের এই দ্বীপটি মূলত তাসমানিয়া সাগরে অবস্থিত। এই দ্বীপের বেশির ভাগ স্থানই কার্যত অক্ষত বন, প্রচুর উদ্ভিদ ও প্রাণীজ সম্পদ নিয়ে গঠিত। ভূপ্রাকৃতিক অসাধারণ বৈচিত্র্য এই দ্বীপের আরেকটি আকর্ষণীয় দিক। মহাসাগরীয় আগ্নেয়শীলার বৈচিত্র্য, দক্ষিণের প্রবাল প্রাচীর, সামুদ্রিক পাখির বাসা এবং এর ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য দ্বীপটিকে পর্যটকদের জন্য করে তুলেছে অনন্য।

৩. ওলগাস

অস্ট্রেলিয়ার আয়ারস পর্বতের পশ্চিম দিকে ওলগাস অবস্থিত। এটি ৩৬টি গঠনের পাথুরে এলাকা এবং পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘ শুষ্ক স্থান। এটি আয়ারস পর্বত থেকে ১২০০ ফুট উঁচুতে অবস্থিত একটি সমতল মরুভূমি। দুঃসাহসিক কাজ করতে যারা ভালোবাসেন তারাই মূলত এই মরুভূমিতে বেশি ভ্রমণ করে থাকে।

৪. কাকাডু

কাকডু একটি সুন্দর পার্ক যা অস্ট্রেলিয়ার উত্তর অংশে অবস্থিত। অস্ট্রেলিয়ার ডারউইন দ্বীপের দক্ষিণ পাশে অবস্থিত এটি। অসাধারণ সুন্দর ভূ-প্রাকৃতিক দৃশ্যের পাশাপাশি সমৃদ্ধ বন্যপ্রাণী ও চমৎকার গাছপালা নিয়ে এটি গঠিত। জলপ্রপাতের সৌন্দর্য ভ্রমণপিপাসুদের এখানে আকৃষ্ট করে।

৫. গ্রেট বেরিয়ার রিফ

অস্ট্রেলিয়ার উপকূলীয় শহর কুইন্সল্যান্ডের কোরাল সাগরে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় প্রবাল প্রাচীর গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ অবস্থিত। যা ২ হাজার ৯০০টির বেশি প্রবাল প্রাচীর এবং শত শত দ্বীপ নিয়ে গঠিত।

৬. টুয়েলভ অ্যাপসটেলস

টুয়েলভ অ্যাপসটেলস হচ্ছে চুনা পাথরের স্তূপ যা ক্রমান্বয়ে ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে গঠিত হয়। অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়ান উপকূলে অবস্থিত এই টুয়েলভ অ্যাপসটেলস। নাম টুয়েলভ অ্যাপসটেলস হলেও এখানে কিন্তু মোট ৯টি চূড়া ছিলো। তবে সাম্প্রতিক পতনের ফলে এখানে বর্তমানে ৮ টি চূড়া আছে। এদের ভিত্তি বছরে ২ সেন্টিমিটার করে ক্ষয়প্রাপ্ত হচ্ছে। বৈশ্বিক তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় এটি ধীরে ধীরে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/পিএল

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত