ঢাকা, রোববার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৫ আশ্বিন ১৪২৭ আপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৯ জুন ২০২০, ১৮:২৬

প্রিন্ট

‘ভুয়া’ স্বেচ্ছাসেবীদের প্রশিক্ষণ দিতেন ডা. সাবরিনা আরিফ?

‘ভুয়া’ স্বেচ্ছাসেবীদের প্রশিক্ষণ দিতেন ডা. সাবরিনা আরিফ?
ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী। ছবি: সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে করোনা মহামারির মধ্যে মানুষ যখন বেঁচে থাকার জন্য লড়াই করছেন তখন জেকেজি হেলথ কেয়ারের সিইও আরিফুল হক চৌধুরীর মতো এক শ্রেণির প্রতারক নিজের পকেট ভর্তি করতে নানান ছল-চাতুরীর আশ্রয় নিয়েছেন। আর এ কাজে তাদের মতো প্রতারকদের সহায়তা করছেন অপর এক শ্রেণির কথিত সমাজসেবক বা মুখোশের আড়ালে লুকিয়ে থাকা প্রতারক চক্র।

অভিযোগ রয়েছে আরিফুল চৌধুরীর স্ত্রী ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী জেকেজির সার্বিক কাজে শুরু থেকে তাকে সহায়তা করে আসছিলেন। সাবরিনা নিজে জানিয়েছেন তিনি তিতুমীরের স্বেচ্ছাসেবীদের প্রশিক্ষণ দিয়েছেন যারা কিনা গ্রেপ্তার আতঙ্কে কলেজ ছেড়ে পালিয়েছেন। অভিযোগ রয়েছে ভুয়া পরীক্ষা সনদ দিতেন এসব কথিত স্বেচ্ছাসেবীরাও। আর তাদের প্রশিক্ষণ দিয়েছেন সাবরিনা আরিফ। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করছে প্রশাসন।

আরো পড়ুন: জেকেজির প্রতারণা, তিতুমীরে চলতো নাচ গান অশ্লীলতা

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) বনানী থানার ওসি নুরে আজম মিয়া বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, জেকেজির কর্মীরা পালিয়ে গিয়েছে বলে আমরা শুনেছি। তবে, তারা ভুয়া রিপোর্ট দিতো কিনা সে বিষয়টি আমাদের জানা নেই। বিস্তারিত তদন্তের পর জানা যাবে।

২৩ জুন (মঙ্গলবার) জেকেজি হেলথ কেয়ারের সিইও আরিফুল হক চৌধুরীসহ পাঁচজনকে আটক করে পুলিশ। তখন জেকেজি হেলথ কেয়ারের অন্যতম কর্ণধার হিসেবে আরিফুল চৌধুরীর স্ত্রী ডা. সাবরিনা আরিফের নাম এলেও তিনি দাবি করছেন, এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে গত দুই মাস ধরে তার কোনো সম্পর্ক নেই। তিনি বলেন, আমাকে জড়িত করা হবে কেনো? আমি তো অনেকদিন ধরেই এর সাথে নেই।

আরো পড়ুন: তিতুমীরে থাকা জেকেজির কর্মীরাও করোনার ভুয়া রিপোর্ট দিত?

তবে অনুসন্ধানে জানা যায়, এই প্রতিষ্ঠানের শুরুর দিক থেকেই জড়িত ছিলেন ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী। তিতুমীর কলেজে নিজেদের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ব্যবহারের সময় থেকে শুরু করে বিভিন্ন সময় নিজের এই পরিচয় প্রকাশ করেন তিনি। এই প্রতিষ্ঠানের এমডি আরিফুল চৌধুরী তার স্বামী। অনুসন্ধানে জানা যায়, জেকেজি হেলথকেয়ারের অনুমতি পাওয়া থেকে শুরু করে এই প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকাণ্ডেও জড়িত এই চিকিৎসক। এ বিষয়ে খোদ জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের বিভিন্ন কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও নানা রকম অভিযোগ করেছেন।

আরো পড়ুন: নিজ ঘরে ‘পরবাসী’ তিতুমীর পরিবার

তিতুমীর কলেজের হামলার সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ডা. সাবরিনা আরিফ। তিনি তখন গণমাধ্যমেও বক্তব্য দিয়েছিলেন। গভীর রাতে রাস্তায় দাঁড়িয়ে স্বেচ্ছাসেবীদের সাথে কথিত হামলার বিচার চেয়েছিলেন সাবরিনা। সে ঘটনা ঘটে এ মাসের শুরুর দিকে। তার দাবি তিনি গত দুইমাস ধরে এর সাথে সংশ্লিষ্ট নেই।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এই কার্ডিয়াক সার্জন ও ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরীর উদ্যোগেই মূলত জেকেজি হেলথকেয়ার বুথ স্থাপনের কাজ পায়। তবে পরবর্তীতে তাদের সম্পর্ক নিয়ে আরিফুল চৌধুরী আপত্তি জানালে সেখানেই শুরু হয় টানাপোড়েন। আর এসব বিষয়ে খোদ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরেই একাধিক অভিযোগ যায়।

আরো পড়ুন: স্বামী স্ত্রীর আজব কারবার!

কিন্তু সরকারি চাকরি করে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান পদে থাকার বিষয়ে প্রশ্ন করলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানান, আমরা যারা সরকারি হাসপাতালে চাকরি করি তারা কোনোভাবেই বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কোনো পদে থাকতে পারি না। কিন্তু হাসপাতালের একজন রেজিস্ট্রারড চিকিৎসক হয়ে ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী কিভাবে এই পদের পরিচয় দিতেন বা চেয়ারম্যান পদে থাকেন তা বোধগম্য না।

আরো পড়ুন: সেবা দিতে এসে সংঘাতে জড়ালো জোবেদা খাতুন হেলথ কেয়ার

ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরীর কাছে তিতুমীর কলেজের হামলার সময় তিনি সেখানে ছিলেন কিন্তু দুইমাস ধরে নেই কেন দাবি করছেন এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, তিতুমীরের ঘটনার পর থেকে আমি আর এর সঙ্গে নেই। আমার স্বামীর এর অন্যতম কর্ণধর হলে আমি এর সাথে নেই। আমি যে এর সাথে নেই সেটা সংশ্লিষ্ট অনেকেই জানেন। আমি অনেককে এটা জানিয়ে রেখেছি। আমি দুইমাস ধরে আমার বাবার বাসায় অবস্থান করছি। আমি আসলে দুইমাস ধরেই নাই। কিন্তু তিতুমীরে যখন ঘটনাটা ঘটে আমি সেখানে যাই। কারণ এই স্বাস্থ্যকর্মীদেরকে আমি ট্রেনিং দিয়েছিলাম। তাই তাদের সাথে একটা ঘটনা শুনতে পেরে আমি ছুটে গিয়েছিলাম। কিন্তু তখনও আমি আমার বাবার বাসায় ছিলাম।

আরো পড়ুন: করোনায় সেবার নামে প্রভাব বিস্তার, ভুয়া পরীক্ষার সনদ

জাল সনদের বিষয়ে কিছু জানেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি আসলে স্বেচ্ছা শ্রমের ভিত্তিতে সেবা দিতাম। স্বাস্থ্যকর্মীদের কাজ শেখানো বা পড়া বা প্লানিং করে যে, কী করবো- স্যারদের সাথে আলোচনা করা কীভাবে কী করবো- এগুলো আমি করতাম। ওদের ম্যানেজমেন্টের সাথে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। কাগজ কলমে আমি কোথাও নেই। কোনো মালিকানাতেও আমি নেই। কিছুতেই আমি নেই। আমি এমনি খাটতাম।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত