ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯ আপডেট : ১৫ মিনিট আগে

রতি আঁধারের নির্মম বলি

  রাজীব কুমার দাশ

প্রকাশ : ১৬ মে ২০২২, ১৭:৩৫  
আপডেট :
 ১৬ মে ২০২২, ১৮:৪০

রতি আঁধারের নির্মম বলি
রাজীব কুমার দাশ

যুগে যুগে বিনা পুঁজিতে লেখকদের বেচে খেয়ে এ পর্যন্ত একটি স্বার্থান্ধ সম্প্রদায় লেখকদের দিনের ঘুম তো কেড়ে নিয়েছেনই, উপরন্তু রাতের ঘুমেও ভাগ বসাতে চান। কবিগুরু, নজরুল, জীবনানন্দ দাশ হয়ে হালের লেখকদের উপজীব্য করে বিক্রি করে খাচ্ছে সোনা মিয়া, গাণ্ডু সরকার, নিশি জোয়ার্দ্দার।

প্রেমের ক্রসফায়ারে পালাতে গিয়ে আহত হয়ে রনি বর্মণ দু'টি বিয়ে করে যে পরিমাণ আত্মীয়-অনাত্মীয় সামলে নিয়ে, প্রতিবেশির টিপ্পনী সয়ে বার বার ঘরে বাইরে সালিশ বৈঠকে গালাগালি শুনে দুরু দুরু বুকে -হৃদয়ে যে পরিমাণ বিয়ে নামের ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড়, যশ অশনি রনির হৃদয়টা লণ্ডভণ্ড করে চলে গেছে, আমার মনে হয়- রনির আত্মশ্লাঘা দূরের কথা, ও যে এখনো নিজের নামটি বলতে পারছে,নিজেকে চিনতে পারছে,দু'টি বউ নিয়ে মিডিয়া ট্রায়াল যুদ্ধে ঠা-ঠা মেশিনগান সামলিয়ে এখনও যে টিকে আছে; এ জনপদে সত্যিই রনি বর্মণের পরম সৌভাগ্য।

হবেই বা না কেন? প্রেমের দুধারি ছোরা দিয়ে রনি একই সমান্তরাল রেখা টেনে যেভাবে একফুল দুই মালি বাংলা সিনেমার মতো বিয়ের স্ক্রিপ্ট তৈরি করেছেন, ডিজিটাল ভয়ঙ্কর সময়ের অদ্ভুত আঁধারে মোটেও আমি অবাক হচ্ছি না।

আমি সবাক হতে না পারলেও নির্বাক হয়ে দেখেছি, কুম্ভিলক লেখকদের মতো রনিকেও উপজীব্য করে ছোট খাটো অনলাইন নিউজ পোর্টালে রনি দম্পতি ঘিরে পুলিৎজার পুরস্কার জেতার সফল আয়োজন করতে।

আরো অবাক হয়ে দেখছি, অনলাইনে মূল ধারার জাতীয় পত্রিকায় রনি দম্পতির সুড়সুড়ি গাঁথুনি, অনলাইন পত্রিকার রনি মার্কা কাঁপুনি,পাঠকের একান্ত ভাবনা কমেন্টস বক্সের শীৎকার, রনি বর্মণের দু'টি বউয়ের সঙ্গম ছাড়া চিৎকার, এ কটা দিন জনপদের সবাই দেখছে।

রনি মার্কা ভয়ঙ্কর ডিজিটাল সময়ে 'ক্রাশ ' শব্দটার সাথে আমিও প্রথমে পরিচিত হতে পারিনি। যা আজকাল প্রেমে পড়ার সমার্থক শব্দে তরুণ-তরুণী ব্যবহার করে থাকেন। তাও চাকরির সুবাদে ফেলে আসা বিভিন্ন ইউনিটে এক কাপড়ে উদ্ধার করে নিয়ে আসা লিকলিকে সমতল পশ্চাৎদেশ তরুণ,পুষ্টিহীন অপরিণত যৌবনে ভেসে বেড়ানো তরুণীর কাছ থেকে জেনেছি।

ফেসবুক, ম্যাটার যেমন, নির্দিষ্ট কিছু গুপ্ত ভাষা স্টিকার ইমোজি আছে, রনি মার্কা সময়েও প্রেমের অনেক গুপ্ত সাংকেতিক ভাষা আছে। তরুণ-তরুণী প্রেমের উচ্ছ্বাস অনুভূতি হারিয়ে বিয়ের আগ্রহ না থাকলেও যৌন সঙ্গমের প্রতি প্রবল আগ্রহ ঝোঁক রয়েছে। রনি মার্কা তরুণ-তরুণীর মনে প্রাণে জীবনে প্রেম মানে- ' শরীরবৃত্তীয় অর্গাজম সুখ।' তরুণ-তরুণী তাদের মোবাইলগুলো সতর্কভাবে এভারেস্ট বিজয়ের মতো যত্ন করেন। সিক্রেট কোড দিয়ে তরতর করে সাজিয়ে রাখেন পর্ণ । যাচ্ছেতাই লাগামহীন বাঁধনহারা সিক্রেট জীবনের রহস্য -এক রুমে খাটে ঘুমানো মা-বাবা আত্মীয় অনাত্মীয় জানতে পারেন না। যখন জানতে পারেন,তখন আসলে কোনোও বাবা মায়ের তেমন কিছু করার থাকে না। ততক্ষণে- অনেক দেরি হয়ে হয়ে যায়।

ডিজিটাল সময় বয়ে যায়। বেলা গড়িয়ে বারবেলা কালবেলা পেরিয়ে রনি জোবায়ের জাম্বু জুয়েল নীলা শীলা বর্ষা কাকলি স্ক্রিন টাচ আট দশ ইঞ্চি মোবাইলে সংসার পাতেন। কেউ কেউ মোবাইল সংসারে একসাথে তিন চারটে বউ-স্বামী, প্রেমিক-প্রেমিকা পোষেন। মাঝে মাঝে ক্ষোভে হাত পা কাটেন। পড়ার 'অ্যাসাইনমেন্ট' দোহাই দিয়ে দরজা বন্ধ করে স্বাধীনতার একচেটিয়া সুফল ভোগ করেন। রাতের পরে রাত জেগে অনিয়ন্ত্রিত জীবনে নিজেকে তিলে তিলে নিজেদের নিঃশেষ করেন।

ডিজিটাল প্রেমের হাতেখড়ি নিয়ে এক সময়ে চোরাগোপ্তা শিকার-শিকারি খেলায় রনি, বাপ্পী, কাকলি, অঙ্কন শাকিল, প্রীতি অনুর্বর প্রেমে হেরে যান। কেউ-কেউ নীরবে ভ্রূণ মাস তিন চারেকের অবৈধ বাবা মা হয়ে এদিকে ওদিকে পালিয়ে বেড়ান। আবার কেউ প্রতারণা ঘুঘু ফাঁদ বিছিয়ে মোভাভি ভিডিও স্যুট, নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প নোটারি করে নারী যোনিগুলো সেরেফ বানিয়ে দেন- ' বীর্য ডাস্টবিন। '

গ্রাম বাংলার ঘরে বাইরে অফিসে মাঠে ঘাটে বন বাদাড়ে লক্ষ কোটি ডিজিটাল ধূর্ত ভোল পালটানো রতি পালটানো পল্টি মারা, রনি জনি সাবলু সিবলু শাকিল জাম্বু মদন জীবন সুজন প্রেমের পরীক্ষার নামে রতিক্রিয়া গর্ভধারণে প্রতিক্রিয়া, চিরস্হায়ী প্রতারণা অব্যর্থ ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার নামে জনমিতিক নন জুডিশিয়াল স্ট্যাস্প নোটারী দিয়ে দিকে দিকে চারিদিকে গ্রাস করে কমেন্টস বক্সে হা হা করছে। নির্বোধ রতি আধাঁরের যাঁতাকলে পড়ে রনিরা কাঁদছে।

বোধের জিজিটাল রনিরা ভালো থাকুক; অঙ্কনগুলো আবার বেঁচে উঠুক।

লেখক: প্রাবন্ধিক ও কবি,পুলিশ পরিদর্শক, বাংলাদেশ পুলিশ। মেইল:[email protected] gmail.com

বাংলাদেশ জার্নাল/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত