তরুণ উদ্যোক্তা আবেদের সাফল্যের গল্প

প্রকাশ : ২২ জুলাই ২০২২, ২০:০১ | অনলাইন সংস্করণ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

সফলতার স্বপ্ন বোনা যেমন সহজ, ঠিক তেমনই সেই স্বপ্নকে ছোঁয়া খুবই কঠিন। কতিপয় কিছু কারণে মানুষ বৃত্তের বাইরে চিন্তা করতে পারেন না। কিন্তু যারা পারেন, তারাই জীবনে সফল। এমন একজন উদ্যমী এবং তরুণ উদ্যোক্তা হলেন আবেদ সরকার। যিনি পড়াশোনার পাশাপাশি ইতিমধ্যে তরুণ উদ্যোক্তা ও ফ্রিল্যান্সার হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলেছেন।

আবেদ ২০০০ সালের ৩ মার্চ নরসিংদী জেলায় জন্মগ্রহণ করে সেখানেই বড় হয়েছেন তিনি। তার বাবার নাম আবুল সরকার এবং মায়ের নাম রোকেয়া বেগম। আবেদের নেশা-পেশা যেন প্রযুক্তি নিয়েই। প্রযুক্তির প্রতি তার ভালোবাসা দিন দিন বাড়তে থাকে। তাই গ্রামের বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে পড়াশোনার পাশাপাশি মাত্র ১৯ বছর বয়সে তার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু হয়।

সবার মতো আবেদেরও প্রবল ইচ্ছে থাকায় সব সময় তার মাথায় বিভিন্ন ব্যবসার আইডিয়া ঘুরে বেড়াতো। একসময় তিনি নিজেই একটি অনলাইন ব্যবসা প্রতিষ্ঠার কথা চিন্তা করেন এবং মাত্র ২০ বছর বয়সে‘স্বাধীন উদ্যোক্তা’নামে একটি ডিজিটাল এজেন্সি প্রতিষ্ঠা করেন।

আবেদ সরকার বলেন, স্বাধীন উদ্যোক্তা হচ্ছে একটি ডিজিটাল এজেন্সি, যেখানে ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট, ব্যবসায়িক আইডিয়াসহ বিভিন্ন সমাধান পাওয়া যাবে। দেশের ভিতরে ছোট-খাটো, কম-বেশি অনেক স্টার্টআপ কোম্পানি আছে, যারা সঠিক মার্কেটিং-এর কারণে সবাইকে আকৃষ্ট করতে পারেন না। তাই তারা যেন সহজেই ব্যবসাকে দ্রুত প্রসার করাতে পারেন, সে সমাধানই দিচ্ছে স্বাধীন উদ্যোক্তা।

তিনি বলেন, সবার জন্য শুরুটা কখনো সহজ হয় না। তবুও ছোট থেকে বাবা-মা, পরিবারের সমর্থন পেয়েছি বলে অনেক সহজেই আগাতে পেরেছি। প্রযুক্তির প্রতি আমার আলাদা একটা ভালোবাসা ছিল। সেটাই হয়তো আমাকে সাফল্য দিয়েছে।

নতুন তরুণদের উদ্দেশ্যে আবেদ বলেন, আমরা অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচুর সময় ব্যয় করি। যদি সময়টুকু নতুন কিছু শেখার পেছনে ব্যয় করা যেতো তাহলে আমরা অনেকেই হয়তো স্বপ্নের চেয়েও বহুদূর যেতে পারতাম। বর্তমানে অনলাইনে কোটি কোটি ফ্রি রিসোর্স, ইউটিউবে ভিডিও টিউটোরিয়াল ইত্যাদি আছে। তাই শেখার মাধ্যম আগের চেয়ে অনেক সহজ হয়ে গেছে।

তিনি আরও বলেন, একটু বৃত্তের বাইরে চিন্তা আর চেষ্টা করলেই হয়তো সুন্দর সুন্দর সব দক্ষতা আয়ত্তে আনা সম্ভব। বর্তমানে চাকরির অবস্থা কতটা কঠিন, তা হয়তো সবারই জানা। স্কিল বা দক্ষতা থাকলে চাকরির পেছনে দৌড়াতে হবে না। চাকরি আপনার পিছনে দৌড়াবে। নিজেই ব্যবসা শুরু করতে পারবেন কিংবা ইন্টারনেট উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে পারবেন সুন্দর ক্যারিয়ার।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমএম