ঢাকা, রোববার, ১৪ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ আপডেট : ১২ মিনিট আগে

যে কারণে ডায়ানা অ্যাওয়ার্ড পেলেন ফায়েজ বেলাল

  আলফি শাহরীন

প্রকাশ : ২৬ জুলাই ২০২২, ১৭:৪১

যে কারণে ডায়ানা অ্যাওয়ার্ড পেলেন ফায়েজ বেলাল
আলফি শাহরীন

এবারের আন্তর্জাতিক সম্মাননা ‘দ্য ডায়ানা অ্যাওয়ার্ড-২০২২’ পেলেন ইউল্যাবের সাবেক শিক্ষার্থী ফায়েজ বেলাল। ব্রিটিশ রাজপরিবার থেকে গত ১ জুলাই এ পুরস্কার পান বাংলাদেশের তরুণ এই সামাজিক উদ্যোক্তা। তার সামাজিক কাজে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে সম্মানজনক এই ডায়ানা অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন তিনি।

সামাজিক উদ্যোগ ও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করে থাকেন এমন তরুণদের জন্যই মূলত এই অ্যাওয়ার্ড। তরুণদের সামাজিক কাজের প্রতি সম্মান প্রদর্শন এবং তরুণদের মাঝে উৎসাহ বাড়তে তাদের সামাজিক কাজের জন্য স্বীকৃতি হিসেবে প্রতিবছর ডায়ানা অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। ডায়ানা অ্যাওয়ার্ড প্রবর্তন করা হয়১৯৯৯ সালে। এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী তরুণদের বয়সসীমা ৯ থেকে ২৫ বছর। প্রিন্সেস ডায়ানার নামেই তার দুই ছেলে প্রিন্স হ্যারি এবং প্রিন্স উইলিয়াম ব্রিটিশ রাজপরিবারের পক্ষ থেকে এই পুরস্কারটি প্রবর্তন করেন।

বরিশালের ছেলে ফায়েজ। বাংলাদেশ ইয়ুথ সোসাইটির (বিওয়াইএস) প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক তিনি। স্নাতক সম্পন্ন করেছেন ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) মিডিয়া স্টাডিজ অ্যান্ড জার্নালিজম (এমএসজে) বিভাগ থেকে।

তার প্রতিষ্ঠিত উদ্যোগ বিওয়াইএসএর পথচলা শুরু হয় আট বছর আগে। উচ্চমাধ্যমিকে পড়ার সময় বরিশালেই গড়ে তোলেন এই প্রতিষ্ঠান। তবে শুধু বরিশালই নয়, বর্তমানে বিওয়াইএস এর কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে বরিশাল, ঢাকা এবং রংপুর বিভাগের প্রায় ১২টি জেলায়।

ফায়েজের মূল লক্ষ্য তার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে নারী-পুরুষ সমানাধিকার, ক্লাইমেট অ্যাকশন এবং মানসম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিত করা। সেই লক্ষ্য অর্জনে বিওয়াইএস এর মাধ্যমে বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করতে দেখা যায় তাকে। সেজন্য ব্রিটিশ রাজপরিবার থেকে এই মর্যাদাপূর্ণ স্বীকৃতি প্রদান করা হয় তাকে।

গার্লস সামিট, ইউথ ফেস্ট,সপ্নজয়সহ নানান উদ্ভাবনী প্রকল্পের মাধ্যমে সামাজিক সমস্যা সমূহ সমাধান করে আসছে ডায়ানা অ্যাওয়ার্ড জয়ী ফায়েজ বেলালের প্রতিষ্ঠান বিওয়াইএস।

এছাড়া মেয়েদের অধিকার সম্পর্কে সচেতনের জন্য ফায়েজ তৈরি করেন ‘অ্যাভয় অ্যাপ’। জরুরি পরিস্থিতিতে মেয়েদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নিকটস্থ থানায় তাদের সংযোগ করতে সাহায্য করে এই অ্যাপ। বর্তমানে ফায়েজের এই উদ্যোগ পৌঁছেছে অর্ধ মিলিয়নেরও বেশি নারী ও মেয়ের কাছে।

তরুণ এই উদ্যোক্তার এতদূর এগিয়ে আসার পেছনে রয়েছে তার কঠোর পরিশ্রম এবং সামাজিক কাজের প্রতি ভালোবাসা। তার কাজের প্রতি ভালোবাসা, শ্রম এবং বিশ্বাসে জেরেই তার সংগঠনটি আজ দক্ষিণাঞ্চলের সর্ববৃহৎ তরুণ সংগঠন হিসেবে পরিচিত। কাজ করে যাচ্ছে নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ করতে এবং কিশোরীদের নেতৃত্ব বিকাশকের জন্যে।

শুধু তাই নয়, ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা সামনে রেখে ২০ লাখ নারী এবং কিশোরীকে কর্মসংস্থান তৈরি করা এবং তাদের অধিকার রক্ষায় ভূমিকা রাখতে কাজ করে যাচ্ছে মাত্র ২৫ বছরের তরুণ উদ্যোক্তা ফায়েজ বেলালের প্রতিষ্ঠান বিওয়াইএস।

বাংলাদেশ জার্নাল/এএস/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত