ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯ আপডেট : ৯ মিনিট আগে
শিরোনাম

জঙ্গি আতঙ্কে বিশেষ সতর্কতা

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ২৭ নভেম্বর ২০২২, ২১:৫১

জঙ্গি আতঙ্কে বিশেষ সতর্কতা
প্রতীকী ছবি
নিজস্ব প্রতিবেদক

দীর্ঘদিন আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণে থাকলেও সম্প্রতি জঙ্গিরা নতুন করে মাথাচাড়া দিয়ে ওঠায় পরিস্থিতি অশান্ত হয়ে উঠছে। এরই মধ্যে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গিকে আদালত প্রাঙ্গণ থেকে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে ছিনিয়ে নিয়ে গেছে জঙ্গিরা। এ নিয়ে দেশজুড়ে চলছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিশেষ অভিযান।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জঙ্গিদের পালিয়ে যাওয়ার পর দেশের বিভিন্ন সীমান্ত এলাকায় জারি করা হয় সতর্কতা। একইসঙ্গে সব আদালতে বিশেষ নিরাপত্তা জোরদারের কথা বলা হয়। এমনকি রাজধানীতে রেড এলার্ট জারি করা হয়। এর পরপরই দেশজুড়ে শুরু হয় আতঙ্ক। দ্রুত এসব জঙ্গি এবং তাদের সহযোগিরা ধরা পড়বে বলে জানিয়েছেন খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও একই কথা বলেছেন।

এদিকে ঢাকার আদালত চত্বর থেকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গিকে ছিনতাইয়ের মামলার এক আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করেছে। ইদি আমিন নামে ওই আসামি রোববার আত্মসমর্পণ করলে তাকে জঙ্গি ছিনতাইয়ের ওই মামলায় চার দিন পুলিশ রিমান্ডের আদেশ হয়। এছাড়া ছিনতাইয়ের সময় বাধা দিতে গিয়ে নুরে আজাদ নামে যে পুলিশ সদস্য আহত হয়েছিলেন, তিনিও সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন। কনস্টেবল নুরে আজাদসহ সেদিন কর্তব্যরত মোট সাত পুলিশ সদস্যকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিএমপির প্রসিকিউশন বিভাগের উপ-কমিশনার জসিম উদ্দিন।

গত ২০ নভেম্বর জঙ্গি ছিনতাইয়ের পরদিন পাঁচ পুলিশ সদস্যকে বরখাস্তের কথা জানানো হয়েছিল। তারা হলেন- ঢাকার কোর্ট ইন্সপেক্টর মতিউর রহমান, হাজতখানার ইনচার্জ এসআই নাহিদুর রহমান, আসামিদের আদালতে নেওয়ার দায়িত্বে থাকা পুলিশের এটিএসআই মহিউদ্দিন, কনস্টেবল শরিফুল হাসান ও কনস্টেবল আব্দুস সাত্তার। তাদের সঙ্গে কনস্টেবল নূরে আজাদ ও কনস্টেবল জয়নাল যোগ হলেন। আজাদ ডিএমপির প্রসিকিউশন রিজার্ভ ইউনিটের সদস্য ছিলেন।

দেশজুড়ে আতঙ্ক তৈরি হওয়ায় জঙ্গি ইস্যুতে দেশের মানুষকে সতর্ক থাকার পরামর্শসহ ১১টি নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সচিব সভায় তিনি এ নির্দেশনা দেন। প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির (নিকার) সভা ও সচিব সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী। পরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাগুলো হলো- বৈশ্বিক অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপটে করণীয়, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত, আমদানি ইস্যুতে ব্যয় সংকোচন, কৃষির উৎপাদন বৃদ্ধি, প্রকল্প বাস্তবায়নে ফিজিবিলিটি স্টাডি ঠিকভাবে করা, তথ্য-প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে আয় বৃদ্ধি করা, জঙ্গি ইস্যুতে সতর্ক থাকা, রেমিট্যান্স বাড়াতে পদক্ষেপ গ্রহণ, বাজার দর নিয়ন্ত্রণ, ভূমির ই-রেজিট্রেশন ইস্যু এবং সুশাসনের ওপর জোর দেয়া।

এরআগে গত ২০ নভেম্বর ঢাকার আদালত চত্বর থেকে পুলিশকে মেরে এবং পিপার স্প্রে ছুড়ে আনসার আল ইসলামের সদস্য মইনুল হাসান শামীম ওরফে সামির ওরফে ইমরান এবং আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব ওরফে সাজিদ ওরফে শাহাবকে ছিনিয়ে নিয়ে যায় তাদের সহযোগীরা।

এই দুজন প্রকাশক ফয়সাল আরেফিন দীপন হত্যামামলায় মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত। আরেকটি মামলায় হাজিরা দিতে গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে তাদের আদালতে নেয়া হয়েছিল।

শুনানি শেষে আসামিদের আদালত থেকে হাজতখানায় নেয়ার সময় পুলিশের উপর হামলা চালায় সন্দেহভাজন জঙ্গিরা। তখন নূরে আজমও আহত হয়েছিলেন। চিকিৎসা নিয়ে শনিবারেই তিনি কাজে যোগ দিয়েছিলেন, তারপরই তাকে বরখাস্ত করা হয়। উপ-কমিশনার জসিম বলেন, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনারের নির্দেশে নূরে আযমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তার সঙ্গে চার পুলিশ সদস্য ঘটনার দিন ডিউটিতে ছিলেন। কিন্তু তিনি একাই চার জঙ্গিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন। ডিউটিতে চারজন থাকা সত্ত্বেও তিনি কেন একাই চার জঙ্গিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন, তা তদন্তের বিষয়। এ বিষয়ে নিয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে প্রকৃত ঘটনা উদঘাটন হবে। সেদিন আহত ৩৯ বছর বয়সী আজাদকে প্রথমে নেয়া হয়েছিল কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে, সেখান থেকে পাঠানো হয় জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইন্সটিটিউটে। আজাদের নাকের উপর সেদিন মোটা ব্যান্ডেজ ছিল, তিনি কথা বলতে পারছিলেন না। তার সঙ্গে থাকা একজন বলেছলেন, স্প্রে করার পর আজাদের নাকে ও মাথায় ভারী কিছু দিয়ে আঘাত করার পর তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়েছিলেন।

জঙ্গি ছিনতাইয়ের এ ঘটনা তদন্তে তিনটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ একজনকে গ্রেপ্তার করেছে, ওই ব্যক্তিও সন্ত্রাসবিরোধী আইনের এক মামলার আসামি। ওই মামলায় মইনুল ও সোহেলও আসামি। পলাতক দুজনের কোনো হদিস এখনও বের করতে পারেন পুলিশ।

বাংলাদেশ জার্নাল/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত