ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : ১৪ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৬:৪৬

প্রিন্ট

ই-সিগারেটের ‘স্বাস্থ্য ঝুঁকি’

ই-সিগারেটের ‘স্বাস্থ্য ঝুঁকি’
প্রতীকী ছবি
জার্নাল ডেস্ক

বর্তমানে সিগারেট বদলে ব্যবহার হচ্ছে ভেপিং বা ই-সিগারেট। ধূমপায়ীদের কাছে দিনকে দিন এটি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। সর্বশেষ যুক্তরাষ্ট্রে ছয় জনের মৃত্যু আর অনেকের ফুসফুসের জটিলতা ধরা পড়ার পর ই-সিগারেট ব্যাপক আলোচনায় আসে। আর আপাতত এর ক্ষতিকর দিকগুলো চিহ্নিত করে বন্ধে প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চাইছেন আমেরিকায় সুগন্ধি ভেইপ বন্ধ করতে। যদিও অনেকেই ধূমপান ছাড়ার একটি উৎকৃষ্ট বিকল্প হিসেবে ই-সিগারেটের কথা বলেন।

সম্প্রতি হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে একটি মেয়েকে ই-সিগারেট বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাতে দেখা গেছে। ই-সিগারেটের ক্ষতি সম্পর্কে অন্যদের সতর্ক করে দিতে চান সিমা হেরম্যান নামের ওই মেয়ে। নিউমোনিয়া আর ফুসফুসের সমস্যা নিয়ে তাকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছে।

লেনক্স হিল হসপিটালের ড. রবার্ট গ্ল্যাটার বলেন, আমার মতে, বাবা-মা এবং অল্পবয়সীদের ভেপিং এর ক্ষতি সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিত। এটা খুব বিপদজ্জনক। এটা শুধু নিকোটিনে আসক্ত করেই তোলে না সাথে সাথে হৃদপিণ্ড এবং রক্তের চাপ বাড়িয়ে দেয়। যা ফুসফুসের ক্ষতি করে।

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এখন সুগন্ধি ভেইপ বন্ধ করার পরিকল্পনা করছেন।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে একটা সমস্য রয়েছে। এটা নতুন ধরনের সমস্যা। এমন সমস্যা নিয়ে সত্যি কয়েক বছর আগে পর্যন্ত কেউ খুব একটা ভাবেনি।

ভেপিং শিল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ জন্য দায়ী ক্যানাবিস অয়েলের মতো জিনিস। এই নিকোটিন লাখ লাখ মানুষকে ধূমপান ছাড়তে সাহায্য করেছে। ধূমপানের চেয়ে ভেপিং ৯৫ শতাংশ নিরাপদ আর এটি ধূমপায়ীদের জন্য ভালো বিকল্প।

তবে, অসুস্থতার কারণে মৃত্যুর মতো ঘটনা ঘটছে। কালোবাজারে মাদক ব্যবসায়ীদের বিক্রি করা পণ্যের কারণে এসব ঘটনা নিয়ে গবেষণা শুরু হয়েছে। কিন্তু এখনও সঠিক কারণ জানা যায়নি।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত