ঢাকা, সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১১ শ্রাবণ ১৪২৮ আপডেট : ২ মিনিট আগে

প্রকাশ : ২১ জুন ২০২১, ১৮:৫৮

প্রিন্ট

ন্যাপ নেতা পরিতোষ দেবনাথকে বহিষ্কারের প্রতিবাদে ছাত্র সমিতির সাবেক ২০০ নেতার বিবৃতি

ন্যাপ নেতা পরিতোষ দেবনাথকে বহিষ্কারের প্রতিবাদে ছাত্র সমিতির সাবেক ২০০ নেতার বিবৃতি

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পরিতোষ দেবনাথকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে দল থেকে বহিষ্কারের প্রতিবাদ জানিয়েছে দলের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র সমিতির সাবেক ২০০ নেতা।

সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তারা বলেন, গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি যে, বিশ্বজুড়ে করোনার মহামারী আমাদের দেশ ও জাতিকে এক কঠিন সংকটের আবর্তে ফেলেছে। দ্রব্যমূল্য, স্বাস্থ্য খাতে চরম অব্যবস্থাপনা, আয় বৈষম্যের শিকার দরিদ্র মানুষের অবস্থা চরম সংকটাপন্ন। এই দু:সময়ে আন্দোলন-সংগ্রাম ও মানুষের পাশে না থেকে বারিধারার ড্রয়িং রুমে বসে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে আইভি আহমেদকে ন্যাপের কার্যকরী সভাপতি ঘোষণা করা হয়। ন্যাপের ১৪ জন প্রবীণ নেতা এই অগঠনতান্ত্রিক, অগণতান্ত্রিক একক সিদ্বান্তের প্রতিবাদ জানান ।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, দলের নীতি, আদর্শ, গঠনতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া বিসর্জন দিয়ে১ বারিধারার একটি বাসার ড্রইংরুমে ৪ জনের সভায় ন্যাপের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক জননেতা পরিতোষ দেবনাথকে বহিষ্কার করা হয় । ঐ সভায় আরও কয়েকজন উপস্থিতিদের নাম প্রকাশ করা হলেও বাস্তবে তারা উপস্থিত ছিলেন না। প্রেস বিজ্ঞপ্তির বরাত দিয়ে ঢাকার বিভিন্ন দৈনিকে এ খবর প্রকাশিত হয়। ন্যাপের ১৪ জন কেন্দ্রীয় নেতা পরিবারকেন্দ্রিক, অগঠনতান্ত্রিক, অগণতান্ত্রিক ও পার্টি বিরোধী এই সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানান। সোশ্যাল মিডিয়ায় ন্যাপ ও ন্যাপের সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশ ছাত্র সমিতির সাবেক নেতৃবৃন্দ ন্যাপের ১৪ জন কেন্দ্রীয় নেতার বিবৃতির প্রতি পূর্ণ সহমত পোষণ করে বলেন, সাবেক ছাত্র নেতা ও ন্যাপের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পরিতোষ দেবনাথ অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ এবং একজন পরীক্ষিত ত্যাগী রাজনৈতিক নেতা। মুক্তিযুদ্ধে তার অনন্য অবদান স্বীকৃত। এ সংক্রান্ত সকল প্রকার বিভ্রান্তি সৃষ্টির প্রচেষ্টা এক ধরণের ষড়যন্ত্র আর মিথ্যাচার । পার্টির সকল কর্মকা-ে তার নিরলস অংশগ্রহণ ও নেতৃত্ব সর্বদাই পার্টির স্বার্থকেই সমুন্নত রেখেছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, পার্টির অভ্যন্তরে ছাত্র সমিতির সাবেক নেতৃত্বসহ ন্যাপের ত্যাগী অংশ মনে করেন যে, জনগণের দুঃসময়ে দেশের মানুষের পাশে দাঁড়ানো জরুরী কর্তব্য। তাই ত্যাগী ও আদর্শবাদী নেতৃবৃন্দ শত বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে মানুষের নিত্যদিনের সংকটের মোচনে সাধ্যমত রাজপথে থেকে আন্দোলনে সক্রিয় আছেন । অপরদিকে অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের মৃত্যুর পর একটি অংশ পার্টির নেতৃত্ব কুক্ষিগত করে ও পার্টির সাইন বোর্ড ব্যবহার করে ব্যাক্তিস্বার্থ হাসিলের পায়তারা করছেন। পার্টির কোনো নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে মূদি দোকানের মালিকের মত আচরণ করছেন । পার্টি অফিস এবং মদনপুরস্থ সামাজিক বিজ্ঞান পরিষদ পার্টির সম্পদ। একটি স্বার্থান্বেষী মহল পাটির্র সম্পদ পকেটস্থ করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের আকাংক্ষা অনুযায়ী এই সামাজিক বিজ্ঞান পরিষদ পার্টির প্রশিক্ষণ ও প্রগতিশীল রাজনৈতিক গণতান্ত্রিক বিদ্যাপীঠ হিসেবে গড়ে তোলার উদ্যোগ নেয়ার দাবি জানাচ্ছি ।

বাংলাদেশ ছাত্র সমিতির সাবেক ২০০জন নেতা এ বিবৃতিতে স্বাক্ষর প্রদান করেন । তাদের মধ্যে রয়েছেন ছাত্র সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি নিজাম উদ্দিন আহমেদ , সাবেক সভাপিতি এডভোকেট মোঃ আমিনুল ইসলাম ও মাসুদুর রহমান মাসুদসহ বিভিন্ন সময় কেন্দ্রীয় গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করা নেতৃবৃন্দ।

বাংলাদেশ জার্নাল-ওআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত