ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯ আপডেট : ১ মিনিট আগে
শিরোনাম

সন্ত্রাসীদের ফের ক্ষমতায় দেখতে চায় না জনগণ: হানিফ

  চাঁদপুর প্রতিনিধি

প্রকাশ : ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৬:৪১  
আপডেট :
 ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৬:৪৩

সন্ত্রাসীদের ফের ক্ষমতায় দেখতে চায় না জনগণ: হানিফ
মাহবুবউল আলম হানিফ। সংগৃহীত ছবি
চাঁদপুর প্রতিনিধি

আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি বলেছেন, বিএনপির দুর্নীতিবাজ নেতাদের কথায় এই বাংলাদেশ আর পেছনে ফিরবে না। দেশের মানুষ দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসীদের ফের ক্ষমতায় দেখতে চায় না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন অগ্রগতিতে এগিয়ে যাওয়াই দেশের মানুষের লক্ষ্য।

সোমবার (২৮ নভেম্বর) চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি

তিনি বলেন, বর্তমানে দেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা স্বাধীনতা বিরোধী বিএনপি-জামায়াত। বিএনপি-জামায়াতকে উৎখাতের লক্ষ্যে কাজ করতে হবে। আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া দল। আন্দোলন, সংগ্রাম করে আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘটানো যাবে না।

টানা ১৪ বছর রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকায় শেখ হাসিনা দেশকে উন্নয়ন, অগ্রগতিতে এগিয়ে কোথায় নিয়ে এসেছেন। সেই বিষয়ে মূল্যায়ন করার সময় এসেছে জানিয়ে হানিফ বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আর এক বছর বাকি আছে। ২০০৯ সালে জনগণের নিরঙ্কুশ ম্যান্ডেট নিয়ে আমরা ক্ষমতায় এসেছি। বঙ্গবন্ধুকন্যা সেই বাংলাদেশকে আজ কোথায় নিয়ে এসেছেন। আমাদের মূল্যায়ন করতে হবে। জনগণের কাছে তুলে ধরতে হবে। কী ছিল আর কোথায় এসেছি, মানুষকে জানাতে হবে।

হানিফ বলেন, ২০০৯ সালে বাংলাদেশ ৬০ লাখ মেট্রিক টন খাদ্য ঘাটতির দেশ ছিল। আমাদের এতো অর্থ ছিল না আমদানির। রিলিফ আনতে হতো। রিলিফ মানেই ভিক্ষা, সাহায্য। বিশ্বের মানুষ আমাদের ভিক্ষুকের জাতি হিসেবে চিনতো। মধ্যপ্রাচ্যে পরিচিত ছিলাম মিসিকিনের জাতি হিসেবে। আমরা ক্ষমতায় আসার পর আমাদের প্রথম লক্ষ্য ছিল খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করা। মাত্র তিন বছরে আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছি। আজ আমরা ভিক্ষুকের জাতি নই; আত্মমর্যাদাশীল দেশ হিসেবে পরিচিত। আমাদের এই পরিচয় এনে দিয়েছেন শেখ হাসিনা।

বিএনপি নেতাদের সমালোচনা করে হানিফ বলেন, বিএনপি নেতারা আজ অনেক সুরে কথা বলেন। সরকার হঠাতে নানা ষড়যন্ত্র করছেন। মিথ্যা কথা বলে জনগণকে বিভ্রান্ত করতে চাচ্ছেন। তারা বলছেন- ‘টেক ব্যাক বাংলাদেশ’। বাংলাদেশকে পিছনে নিয়ে যাও। হত্যা, খুন ও জঙ্গিদের পৃষ্টপোষকতা করা তাদের পলাতক নেতা তারেক রহমান মুচলেকা দিয়ে রাজনীতি থেকে চলে গিয়েছিল। এখন আবার খায়েশ হয়েছে প্রধানমন্ত্রী হবার।

আওয়ামী লীগের এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, দেশের দুই-এক জায়গা গোলযোগ করে দলের কর্মী মারা যাওয়ার ঘটনায় মির্জা ফখরুল সাহেব কান্না করে বলছেন, সরকার নাকি নির্যাতন করছে। ২০০১-০৬ সালে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসীরা আওয়ামী লীগের ২৬ হাজার নেতাকর্মীকে হত্যা করেছিল। মির্জা ফখরুল সাহেব তখন কোথায় ছিল গণতন্ত্র, মানবতা। ক্ষমতায় আসার পর আওয়ামী লীগের কর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নির্যাতন করেছেন।

বিএনপি মহাসচিবকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, কার জন্য মায়াকান্না করেন? ক্ষমতায় থাকতে যে পাপ কাজ করেছেন। সেই পাপের প্রায়শ্চিত্ত করতে হবে। আপনার নেত্রী খালেদা জিয়া একটি মামলায় দণ্ড হয়ে কারাগারে। শেখ হাসিনার মানবতায় তিনি এখন বাসায় আছেন। আর এই খালেদাই আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার জন্য গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিলেন। হামলা পর বলেছিলেন- শেখ হাসিনাকে কে মারতে যাবে। খালেদা জিয়ার মতো নিষ্ঠুর, পিশাচিনী বাংলার মাটিতে আর নেই।

ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মন্ত্রী মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীর উত্তম এমপি, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দীসহ প্রমুখ।

সম্মেলন উদ্বোধন করেন চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নাছির উদ্দীন আহমেদ। সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু নাঈম পাটওয়ারী দুলাল।

বাংলাদেশ জার্নাল/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত