ঢাকা, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬ অাপডেট : ৫ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ১৫ মে ২০১৯, ১৬:০৫

প্রিন্ট

খালেদাকে কেরানীগঞ্জে স্থানান্তরে বিএনপির খুশি হওয়ারই কথা: তথ্যমন্ত্রী

‘খালেদাকে কেরানীগঞ্জে স্থানান্তরে বিএনপির খুশি হওয়ারই কথা’
নিজস্ব প্রতিবেদক

নাজিমুদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে খালেদা জিয়াকে কেরানীগঞ্জে নবনির্মিত অত্যাধুনিক কারাগারে স্থানান্তরে বিএনপির খুশি হওয়ারই কথা বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। বুধবার সচিবালয়ে তার কার্যালয়ে ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিএনপি চেয়ারপরসন বেগম খালেদা জিয়াকে কেরানীগঞ্জ কারাগারে নিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে বিএনপির প্রতিক্রিয়ার জবাবে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, নাজিমুদ্দিন রোডের কারাগারে বেগম খালেদা জিয়াকে রাখার বিষয়ে বিএনপি বলেছে, উনাকে জনমানবহীন নির্জন কারাগারে রাখা হয়েছে। এখন উনাকে নবনির্মিত অত্যাধুনিক কারাগারে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। পুরনো কারাগারটি জাদুঘরে রূপান্তরিত হচ্ছে। এখনতো বিএনপির খুশি হওয়ারই কথা।

বাংলাদেশ একটি অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে মির্জা ফখরুলের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাসড়কে অধম্য গতিতে এগিয়ে চলছে। স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উঠে এসে বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশ, খাদ্য ঘাটতির দেশ থেকে খাদ্য উদ্বৃত্ত দেশে পরিণত হয়েছে। দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় এখন ২ হাজার ডলার, দারিদ্র্য ৪০ শতাংশ থেকে ২০ শতাংশে নেমে এসেছে, দেশের মানুষের গড় আয়ু এখন ৭৩ বছরে উন্নীত হয়েছে। সুতরাং রাষ্ট্র এগিয়ে যাচ্ছে। বরং মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবদের নেতৃত্বে বিএনপি অকার্যকর দলে পরিণত হয়েছে।’

ভারতের হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ভারত-বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। বিশেষ করে দুই দেশের যৌথ প্রযোজনায় ‘বঙ্গবন্ধু’র উপর নির্মিতব্য ছবির বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু ফিল্মের কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে উল্লেখ করে তিনি জানান, ছবির স্ক্রিপ্ট রাইটার আগামী সপ্তাহে বাংলাদেশে আসছেন। তিনি দুই সপ্তাহ এদেশে থাকবেন।

বিখ্যাত পরিচালক শ্যাম বেনেগাল এই ছবিটি পরিচালনা করবেন উল্লেখ করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ছবিটি ভারত-বাংলাদেশের যৌথ মালিকানায় নির্মিত হচ্ছে। এতে বাংলাদেশের মালিকানা ৬০ শতাংশ এবং ভারতের মালিকানা ৪০ শতাংশ।

ভারতে বাংলাদেশ টেলিভিশন দেখানোর বিষয়ে অগ্রগতি হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলো ভারতে দেখানোর ব্যাপারেও হাইকমিশনারের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে।

ডিপি/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত
close
close