ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : ৮ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৩ জুলাই ২০১৯, ০৮:১৯

প্রিন্ট

অলির মঞ্চ নিয়ে বিএনপি জোটে অসন্তোষ

অলির মঞ্চ নিয়ে বিএনপি জোটে অসন্তোষ
কিরণ সেখ

খালেদা জিয়ার মুক্তি ও মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবিতে এলডিপির সভাপতি অলি আহমেদের জাতীয় মুক্তি মঞ্চ নিয়ে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের মধ্যে ক্ষোভ এবং অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র বলছে, অলি আহমেদ বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আলোচনা না করে একক সিদ্ধান্তে মঞ্চ করেছেন। মূলত জোটের ভিতরে থেকে আরেকটি নতুন জোট গঠন করে অলি আহমেদ ২০ দলীয় জোটের মধ্যে বিভক্তি ও বিভাজন তৈরি করতে চাচ্ছেন।

এদিকে গত ২৭ জুন নাজুক অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক পরিস্থিতি, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লক্ষ্যে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির সভাপতি কর্ণেল (অব.) অলি আহমেদ বীরবিক্রম জাতীয় মুক্তি মঞ্চ নামে নতুন মঞ্চের ঘোষণা করেন। নতুন এই মঞ্চ ঘোষণা সময় উপস্থিত ছিলেন- বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক দল কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, এলডিপির মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ, যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির তাসমিয়া প্রধান, খেলাফত মজলিসের আহমদ আলি কাসেমী প্রমুখ।

তবে অলির নতুন মঞ্চ ঘোষণার পরের দিনই বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, একটা রাজনৈতিক দলের কোনো কর্মসূচি গ্রহণ করার সম্পূর্ণ স্বাধীনতা আছে। গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য যে কোনো উদ্যোগকেই আমরা স্বাগত জানাই। কিন্তু ফখরুলের এই স্বাগত জানানোকে রাজনৈতিক ভাষায় আনুষ্ঠানিকতা বলছেন বিএনপির নেতারা।

বিএনপির মহাসচিব অলি আহমেদের নতুন মঞ্চকে স্বাগত জানানোর পর দলটির সিনিয়র নেতারা এবিষয়ে সরাসরি কথা বলতে অনীহা প্রকাশ করেন।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক শীর্ষ নেতা বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, অলি আহমেদ মূল জায়গা থেকে সরে গিয়ে নতুন মঞ্চ গঠন করেছেন। আর একারণে ২০ দলীয় জোটের মধ্যে বিভক্তি সৃষ্টি হতে পারে এবং জনগণ বিভ্রান্তিতে পড়বে।

এবিষয়ে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক দল ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, অলি আহমেদ বলেন নাই যে, এখন আমরা ২০ দলীয় জোট ছেড়ে চলে যাচ্ছি। তবে উনি ২০ দলীয় জোটে থেকে আলাদা জোট না করলেও পারতেন। আর আলাদা মঞ্চ করার আগে উনি জোটের সাথে এবিষয়ে আলোচনা করেন নাই। আলোচনা করলে ২০ দল তখন একটা সিদ্ধান্ত তাকে দিতো। তবে ২০ দলীয় জোটের সাথে অলি আহমেদের এই নতুন মঞ্চের কোন সম্পৃক্তা নেই।

অলি আহমেদের নতুন মঞ্চের বিষয়ে ২০ দলীয় জোটের সিদ্ধান্তের বিষয়ে জানতে চাইলে ফরহাদ বলেন, ২০ দলীয় জোট মঞ্চকে পর্যসবেক্ষণ করছে।

জোটের আরেক শরীক দল বাংলাদেশ লেবার পার্টি চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, এটা একটা হঠকারী সিদ্ধান্ত। কারণ জোটের ভিতরে জোট কেমন করে হয়? আর বিএনপি যে কর্মসূচি দেবে, সেই কর্মসূচি আমরা বাস্তবায়ন করবো। কিন্তু বিএনপির বাইরে গিয়ে আরেকটি মঞ্চ তৈরী করে খালেদা জিয়ার মুক্তি হাস্যকর হবে।

জানতে চাইলে ডেমোক্রেটিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ মণি বাংলাদেশ জার্নাল বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রথম দায়িত্ব বিএনপির। আর আমরা বিএনপির সাথে আছি। তবে এই মঞ্চের মাধ্যমে ভুল-বোঝাবুঝি হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। কিন্তু খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন ২০ দলীয় জোট থেকেই আমরা করবো।

কেএস

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত