ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ৬ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১:০০

প্রিন্ট

ছাত্রদলের ভোট শুরু

ছাত্রদলের ভোট শুরু
নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতীয়তাবাদী ছাত্র দলের নেতা নির্বাচনে রাত ৮টা ৪০ মিনিটে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। বুধবার শাহজাহানপুর মোড়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ঢাকার সাবেক মেয়র মির্জা আব্বাসের বাসায় ভোট কেন্দ্র স্থাপন করে এই ভোটাভোটির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে এই ভোট হচ্ছে।

মির্জা আব্বাসের বাসায় প্রধান ফটকে কাউন্সিলর ও প্রার্থীদের কার্ড দিয়ে ঢোকানো হয়। সারাদেশে ১১৭টি ইউনিটের ৫৩৩ জন কাউন্সিলর ভোট দিয়ে ছাত্র দলের নেতৃত্ব নির্বাচন করবেন। ব্যালটের মাধ্যমে পাঁচটি বুথে ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে।

এদিকে ভোটগ্রহণের শুরুতে কাউন্সিলরদের সাথে স্কাইপের মাধ্যমে কথা বলেন তারেক রহমান।

১৯৯২ সালের পর এটি ছাত্র দলের নেতৃত্ব দীর্ঘদিন পর ভোটের মাধ্যমে নির্ধারিত হচ্ছে। সর্বশেষ ১৯৯২ সালে ভোটে রুহুল কবির রিজভী সভাপতি ও এম ইলিয়াস আলী সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন।

নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহবায়ক খায়রুল কবির খোকন বলেন, নানা প্রতিকূলতা ও প্রতিবন্ধকতা অতিক্রম করে আমরা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নেতা নির্বাচনের কাজটি শুরু করেছি। ভোট শুরু হয়ে গেছে। টানা ভোট হবে, কোনো বিরত নেই। ভোটের পর আমরা দ্রুতই ভোট গণনার কাজ শুরু করে ফলাফলও ঘোষণা করবো।

ছাত্রদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে মোট প্রার্থী ২৮ জন। এর মধ্যে সভাপতি পদে ৯ জন এবং সাধারণ সম্পাদক ১৯ জন।

ছাত্রদলের সভাপতি পদে প্রার্থীরা হলেন, ফজলুর রহমান খোকন, হাফিজুর রহমান, মামুন বিল্লাহ (মামুন খান), সাজিদ হাসান বাবু, মাহমুদুল হাসান বাপ্পি, রিয়াদ মো. তানভীর রেজা রুবেল, মো. এরশাদ খান, মাহমুদুল আলম সরদার ও কাজী রওনুকুল ইসলাম শ্রাবন।

সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীরা হলেন, মো. শাহনেওয়াজ, আমিনুর রহমান আমিন, জাকিরুল ইসলাম জাকির, তানজিল হাসান, কারিমুল হাই নাঈম, মাজেদুল ইসলাম রুমন, ডালিয়া রহমান, শেখ আবু তাহের, সাদিকুর রহমান, কেএম সাখাওয়াত হোসাইন, সিরাজুল ইসলাম, ইকবাল হোসেন শ্যামল, জুয়েল হাওলাদার, মুন্সি আনিসুর রহমান, মিজানুর রহমান শীরফ, শেখ মো. মসিউর রহমান রনি, মোস্তাফিজুর রহমান, সোহেল রানা ও কাজী মাজহারুল ইসলাম।

এর আগে বিকালে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাবেক ছাত্রদল নেতাদের সাথে তারেক রহমান রুদ্ধদ্বার এই বৈঠকে করেন।

বৈঠকে শামসুজ্জামান দুদু, আসাদুজ্জামান রিপন, রুহুল কবির রিজভী, ফজলুল হক মিলন, খায়রুল কবির খোকন, শহিদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, আজিজুল বারী হেলাল, এবিএম মোশাররফ হোসেন, শফিউল বারী বাবু, সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, আবদুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েল, আমিরুল ইসলাম খান আলিম, রাজীব আহসান, আকরামুল হাসান প্রমুখ নেতারা আছেন।

তারেক প্রার্থী ও কাউন্সিলরদের সাথে স্কাইপের মাধ্যমে কথা বলেন। পরে সিদ্ধান্ত হয় ভোটের মাধ্যমে নির্বাচন হবে।

প্রার্থীদের কয়েক হাজার কর্মী-সমর্থকরা নয়াপল্টনের অফিসের সামনে দুপুর থেকে অবস্থান নিতে শুরু করে বিকেলে অফিসের সামনে সমাবেশে পরিণত হয়েছে।

বিকাল ৫টায় নয়া পল্টনের কার্যালয়ের দ্বিতীয় তলায় সাবেক ছাত্রনেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে তারেক রহমান। স্কাইপে তিনি নেতাদের সাথে কথা বলেন।

গত ১৩ সেপ্টেম্বর ঢাকার চতুর্থ জজ আদালত সাবেক কমিটির সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আমান উল্লাহর দায়ের করা মামলায় স্থগিতাদেশ দিলে ১৪ সেপ্টেম্বরের নির্ধারিত কাউন্সিলের ওপর স্থগিতাদেশ দেয়। একইসঙ্গে আদালত বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ১০ জনকে কারণ দশানোর নোটিশ দেয়।

বাংলাদেশ জার্নাল/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত