ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : ৫ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১০ অক্টোবর ২০১৯, ১৫:৩৫

প্রিন্ট

‘শক্তিমান প্রতিবেশীকে খুশি করে মসনদ টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করছে সরকার’

‘শক্তিমান প্রতিবেশীকে খুশি করে মসনদ টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করছে সরকার’
নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশের স্বার্থ বিরোধী চুক্তি বাতিল ও এই চুক্তির বিরোধীতার কারণে আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে দুই দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। ভারতের সঙ্গে চুক্তির বিষয়ে দলটি বলছে, দেশের জন্য হানিকর এসব চুক্তি আসলে শক্তিমান প্রতিবেশীকে খুশি করে সরকারের মসনদ টিকিয়ে রাখার ব্যর্থ চেষ্টা।

বৃহস্পতিবার রাজনীতির নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্যদের এক সংবাদ সম্মেলনে খন্দকার মোশাররফ হোসেন এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, দেশের স্বার্থ বিরোধী চুক্তি বাতিল ও এই চুক্তির বিরোধীতার কারণে আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে আমরা আগামী শনিবার ঢাকাসহ দেশের সকল মহানগর সদরে জনসমাবেশ এবং আগামী রবিবার দেশের সকল জেলা সদরে জনসমাবেশ অনুষ্ঠানের কর্মসূচি ঘোষণা করছি।

প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এবারও শুধু আশ্বাস পেয়েছে- কোনো স্পষ্ট নিশ্চয়তা পায়নি। আসামের নাগরিক পঞ্জির প্রেক্ষিতে কয়েক লক্ষ আসামবাসীকে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেওয়ার ব্যাপারে ভারতীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ আসাম রাজ্য ও কেন্দ্রীয় গুরুত্বপুর্ণ ব্যক্তিদের স্পষ্ট হুমকির মুখে দুই প্রধানমন্ত্রীর যৌথ বিবৃতিতে এ ব্যাপারে ইতিবাচক কোনো স্পষ্ট প্রতিশ্রুতির উল্লেখ নেই। আর ভারতে পাটজাত দ্রব্যসহ অন্যান্যে পণ্য রপ্তানির উপর আরোপিত অন্যায় বাধা অপসারণে নিশ্চয়তা আদায় করতেও বাংলাদেশ সরকার নিদারুনভাবে ব্যর্থ হয়েছে।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, দেশের স্বার্থে যা কিছু দরকার তার সবকিছুই অনিশ্চয়তায় ঝুলিয়ে রেখে অন্যের স্বার্থ পূরণ করা সরকারের নতজানুর নীতির প্রমাণ। বাংলাদেশ এলপিজি আমদানি কারক দেশ হয়ে প্রতিবেশীর প্রয়োজনে তা রপ্তানির জন্য ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠিত ওমেরা পেট্টোলিয়াম লি: এবং বেক্সিমকো এলপিজি ইউনিট-১’কে লাভবান করার উদ্যোগ ব্যক্তি ও গোষ্ঠী বিশেষকে লাভবান করবে-দেশকে নয়। দেড় হাজার কিলোমিটার পথের স্থলে এখন মাত্র ২০০ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে এলপিজি গ্যাস ভারত পৌছবে। তাদের এই সুবিধা দেয়ার বিনিময়ে ‘ঠাকুর শান্তি পুরস্কার’ ছাড়া আমরা কি পেলাম? আমদানি করা ডিউটি ফ্রি এলপিজি দেওয়ার উদ্দেশ্য তাহলে কি?

বিএনপির এই স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, গতকাল প্রধানমন্ত্রী ভারত সফরের মাধ্যমে দেশের বিপুল লাভ ও উন্নয়নের বর্নানা দিতে গিয়ে নানা অবান্তর বিষয়ের অবতারনা করেছেন। অসত্য তথ্য ও ইতিহাস বর্ণনা করে তিনি ব্যর্থতা ঢাকার অপচেষ্টা করেছেন। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই। অনেক বিষয়ের মধ্যে আমরা আজ শুধু গঙ্গা চুক্তি ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ভারত সফর নিয়ে তিনি যেসব তথ্য দিয়েছেন সে সম্পর্কে সত্য তথ্য জানাতে চাই। প্রকৃতপক্ষে ’৭৫-এর আগে গঙ্গার পানি নিয়ে কোনো চুক্তি হয়নি-সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছিলো। চুক্তি হয়েছে ১৯৭৭ সালে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আমলে। এই চুক্তিতে যে গ্যারান্টি ক্লজ ছিলো তা ১৯৯৬ সালে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক স্বাক্ষরিত চুক্তি থেকে বাদ দেওয়া হয়। যার ফলে বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা নিকট প্রতিবেশী ভারতের সাথে সমতাভিত্তিক সুসস্পর্ক চাই। কিন্তু এই সরকার যা করছে তাতে দেয়া নেয়ার বিষয়ে নেই, আছে শুধু দেয়ার। দেশের স্বার্থ হানিকর এমন অসম চুক্তির অধিকার জনগণ সরকারকে দেয়নি। কাজেই আমরা প্রধানমন্ত্রীর সাম্প্রতিক সফরের সময় স্বাক্ষরিত সকল চুক্তি ও সমঝোতার বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাই এবং দেশের ও দেশের স্বার্থ হানিকর সকল চুক্তি বাতিল চাই।

মোশাররফ বলেন, অবৈধ সরকারের দ্বারা দেশের স্বার্থ-বিরোধী ও সার্বভৌমত্ব বিরোধী চুক্তির প্রতিবাদ করায় গত ৬ অক্টোবর জীবন দিতে হয়েছে বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরারকে। আবরার দেশের জন্য, দেশের সার্বভৌমত্বের জন্য, দেশের স্বাধীনতার জন্য শহীদ হয়েছে। আবরারের পুরো বক্তব্যটি বাংলাদেশের স্বার্থের পক্ষে তাই আবরার বাংলাদেশের কণ্ঠস্বর। তার এই নির্মম মৃত্যু বৃথা যেতে পারে না। বৃথা যেতে দেওয়া হবে না। দেশের স্বার্থের পক্ষে তার এই শহীদি মৃত্যু বাংলাদেশের জনগণ বৃথা যেতে দেবেনা।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, বেগম সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, মো. শাহজাহান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/কেএস/কেআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত