ঢাকা, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১০ চৈত্র ১৪২৬ অাপডেট : ২০ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ১২:৩৭

প্রিন্ট

হাড়ে ব্যথার সমাধান

হাড়ে ব্যথার সমাধান
জার্নাল ডেস্ক

স্পন্ডিলোসিস হলো মেরুদন্ডের হাড়ের সমস্যা। আমাদের বিভিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ, হাড় বা হাড়ের জয়েন্ট যেমন অবস্থায় থাকে পরবর্তীকালে এগুলো ব্যবহারের ফলে ধীরে ধীরে ক্ষয় হতে থাকে।

যদিও স্পন্ডিলোসিস হওয়ার ক্ষেত্রে কোনো বয়স সীমা নেই। তবু সাধারণত ৩৫ বছরের বেশি বয়সী মানুষদের এই সমস্যা শুরু হয়। নিয়মিত বসে বা দাঁড়িয়ে দীর্ঘক্ষণ কাজ করার কারণেও স্পন্ডিলোসিস হতে পারে।

আর ঘাড়ের দিকের অংশে এই সমস্যা হলে তাকে বলে সার্ভাইক্যাল স্পন্ডিলোসিস। পিঠের নিচের দিকে হলে তাকে বলে লাম্বার স্পন্ডিলোসিস। পুরুষ বা নারী উভয়ই কিন্তু এই রোগ হতে পারে।

সাধারণত ঘাড় সামনে ঝুঁকিয়ে কাজ করতে হয় এমন সব পেশার মানুষদের এ অসুখটি বেশি হয়। আবার ঘাড়ের ঝাঁকুনি হয় এমন কাজে যারা থাকেন যেমন নৃত্যশিল্পী, গাড়ি বা মোটরসাইকেল চালান বা যাতায়াত করেন তাদেরও হতে পারে।

তবে এই ঘাড়ের ব্যথা অনেক সময় কাঁধ থেকে উপরের পিঠে, বুকে, মাথার পিছনে বা বাহুতেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। এই রোগে স্পাইনাল কর্ডের উপর চাপ পড়ে ফলে হাত পায়ে দুর্বলতা, হাঁটতে অসুবিধা, পায়খানা প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

স্পন্ডিলোসিসের রোগীকে ওষুধের পাশাপাশি দেয়া হয় বিভিন্ন ব্যায়াম। এছাড়াও এই সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে এক ভাবে দীর্ঘক্ষণ বসে বা দাঁড়িয়ে থাকতে নিষেধ করা হয়।

নির্দিষ্ট কিছু ব্যায়াম আছে যেগুলো স্পন্ডিলোসিসের সমস্যার সময়ে রোগীদের দেয়া হয়। বিশেষত স্ট্রেচিং এক্সারসাইজ। ব্যথা যেখানে হচ্ছে তার আশপাশের মাংসপেশিকে শক্ত রাখার জন্য বিশেষ ব্যায়াম দেখিয়ে দেয়া হয় রোগীকে।

হাতে পায়ে ব্যাথা, অবশ হয়ে যাওয়া বা ঝিনঝিন করছে মনে হলে প্রথম অবস্থাতেই দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। একটানা কাজ করতে করতে ঘাড়ে অস্বস্তি বোধ করা বা মেয়েদের চুলের খোপা খুব ভারি মনে হওয়া স্পন্ডিলোসিসের একেবারে প্রথম ধাপ।

এই সমস্যায় রাতের ঘুম সবচেয়ে জরুরি। ছয় ঘণ্টা থেকে আট ঘণ্টা রাতে অবশ্যই ঘুমাতে হবে। কখনোই বালিশ ছাড়া ঘুমাবেন না এবং সব সময় নরম একটা বালিশ নিন। আর ঘুম থেকে ওঠার সময় সোজা উঠবেন না বরং পাশ ফিরে উঠুন।

চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় স্পন্ডিলোসিস অনেকাংশে সাইকোসোমাটিক অর্থাৎ ১৫ শতাংশই মানসিক। তাই অনেক বেশি টেনশন খুব খারাপ এই রোগের জন্য। আপনার মন হাসিখুশি থাকলে স্পন্ডিলোসিসের সমস্যায় সহজে পড়বেন না।

আরএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত
close
close