ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২০:৫৩

প্রিন্ট

‘কোনো শিক্ষিত মেয়ের দেনমোহর নেয়া উচিৎ নয়’

‘কোনো শিক্ষিত মেয়ের দেনমোহর নেয়া উচিৎ নয়’
অনলাইন ডেস্ক

গত ৪ দিন আগে আমার বিয়ে হইছে। যেহেতু ৫ বছর প্রেমের পর আমার বিয়ে, তাই দেনমোহরের ব্যাপারটা আমরা দুইজন আগেই ঠিক করে রেখেছিলাম।

বিয়ের কয়দিন আগে বাবা-মা আমাকে জিজ্ঞেস করলো, আমি দেনমোহর কত চাই? আমি বললাম, আমি দেনমোহর চাই-ই না। দেনমোহর ছাড়া বিয়ের কোনো উপায় আছে কি না?

তারপর কাজির কাছে খোঁজ নিয়ে জানা গেলো ন্যূনতম কিছু দেনমোহর নেয়া লাগবেই।

তারপর আমি আর পারভেজ মিলে ঠিক করলাম দেনমোহর হবে ১১১১ টাকা (এক হাজার একশ এগারো টাকা)। আমার বিয়েতে যারা উপস্থিত ছিলেন তারা সবাই কম বেশি দেনমোহরের এমাউন্টে অবাক হইছিলেন। যে এত কম দেনমোহরও হয় নাকি! বা সোনার গয়না ছাড়াও বিয়ে হয় নাকি!

আমাদের সমাজ ব্যবস্থা এমন জায়গায় দাঁড়িয়েছে যে দেনমোহরের এমাউন্ট, সোনার গয়না এসবের উপর সামাজিক স্ট্যাটাস ডিপেন্ড করে। বরকে প্রেশার দিয়ে এগুলো আদায় করা হয়। এদিকে বরের অবস্থা হয় কাহিল।

আর আমি এবং আমার বাবা-মা একজন স্বাবলম্বী-শিক্ষিত মেয়ের বিয়েতে দেনমোহরের ঘোর বিরোধী। আমি সব সময় দেখেছি কনের বাবা-মা দেনমোহর বাড়াইতে চায় আর বরের বাবা-মা দেনমোহর কমাইতে চায়। এগুলা নিয়ে ক্যাচাল হওয়া একটা ‘পণ্য ক্রয়-বিক্রয়ের’ মত অবস্থা তৈরি হয়।

আমার ব্যক্তিগতভাবে মনে হয়, একজন আত্মসম্মানবোধ সম্পন্ন স্বাবলম্বী এবং শিক্ষিত মেয়ের দেনমোহর নেয়া তো উচিতই না, উলটো স্বামীকে কিছু টাকা পয়সা দিয়ে বিয়েতে হেল্প করা উচিত!

জগতের সকল স্বামীরা সুখী হোক!

রুবাইয়া সৃষ্টির ফেসবুক থেকে নেয়া।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত
close
close