ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : ৪ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৪৯

প্রিন্ট

‘দুরদানার জন্য শুভকামনা’

‘দুরদানার জন্য শুভকামনা’
দুরদানা ইসলাম
অনলাইন ডেস্ক

কানাডার ম্যানিটোবার প্রভিন্সিয়াল নির্বাচনে অংশ নিয়ে আলোচনায় ওঠে এসেছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত প্রার্থী ড. দুরদানা ইসলাম। এনডিপির মনোনয়ন নিয়ে ম্যানিটোবার সিয়াইন রিভার নির্বাচনী এলাকা থেকে তিনি প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। মঙ্গলবার ম্যানিটোবার প্রভিন্সিয়াল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

নির্বাচনে দুরদানার জয় কামনা করে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন নতুন দেশ পত্রিকার সম্পাদক শওগাত আলী সাগর।

‘দুরদানার জন্য শুভ কামনা’ শিরোনামের ওই পোস্টে তিনি জানান, এই নির্বাচনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত দুরদানা ইসলাম এনডিপির প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। সিয়াইন রিভার নামের যে রাইডিং থেকে দুরদানা প্রার্থী হয়েছেন- সেখানে মাত্র ১৮ শতাংশ অভিবাসী। আর ৯০ শতাংশের বেশি বাসিন্দাই বাড়ীর মালিক। এই তথ্যটা উল্লেখ করলাম- এই কারনে, রাইডিংটি আসলে অর্থিকভাবে স্বচ্ছল মানুষদের এলাকা। সেই এলাকা থেকে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত দুরদানা ইসলামকে প্রার্থী হিসেবে বেছে নিয়েছে এনডিপি।’

দুরদানাকে এই আসনে শক্তিশালী এবং সম্ভাবনাময় প্রার্থী হিসাবে উল্লেখ করে তিনি এই প্রবাসী সম্পর্কে বলেন, ‘ডলি বেগমের পর দুরদানা ইসলামের প্রার্থীতা আমাকে বিশেষভাবে আকৃষ্ট করেছে। আমরা সব সময়ই মূলধারার রাজনীতিতে বাংলাদেশিদের সম্পৃক্ত হবার, ভোটের লড়াইয়ে প্রার্থী হবার কথা বলি। কেবল ভোটে দাড়িয়ে যা্ওয়াই মূলধারার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হ্ওয়া নয়। অন্যান্য প্রার্থীর সাথে লড়াই করার জন্য নিজের যোগ্যতার ফিরিস্তিটা্ও জোড়ালো হ্ওয়া জরুরি। দুরদানা ইসলামের ব্যক্তিগত যোগ্যতার মাপকাঠিটা তেমনি জোড়ালো। তবে ডলি বেগমের সাথে দুরদানার পার্থক্য হচ্ছে, ডলির বেড়ে ওঠার. লেখাপড়ার প্রায় পুরোটাই কানাডায়। দুরদানা বাংলাদেশে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে পড়াশোন শুরু করে তার পর অভিবাসী হয়েছেন। এসএসমির সম্মিলিত মেধা তালিকায় কুমিল্লা বোর্ড থেকে প্রথম স্থান অধিকার করা দুরদানা, অষ্ট্রেলিয়া এবং কানাডা থেকে দুটি মাষ্টার্স ড্রিগ্রী নিয়ে,. প্রাকৃতিক সম্পাদ এবং জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে পিএইচডি করেছেন, কানাডার মূলধারায় পুরষ্কার বিজযী গবেষক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। ’

‘ডলির মতো, খালিশের মতো, দুরদানার মতো উচ্চ শিক্ষিত, পেশাদার, যোগ্য ব্যক্তিরা যখন কানাডার মুলধারার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হয়, তখন বাংলাদেশি কমিউনিটির মাথাও আরো উঁচু হয়ে যায়’বলেও উল্লেখ করেছেন সম্পাদক শওগাত আলী সাগর।

দুরদানা ইসলামের বিজয় কামনা করে আগাম শুভেচ্ছাও জানিয়ে রেখেছেন তিনি। কানাডার রাজনীতিতে দুরদানা নতুন সুর তুলবে বলেও তার বিশ্বাস।

প্রসঙ্গত, একুশের পদক পা্ওয়া বংশীবাদক ওস্তাদ আজিজুল ইসলাম এবং আঞ্জুমানারা বেগমের কন্যা দুরদানা ইসলামের জন্ম ১৯৭৮ সালে, চট্টগ্রামে। তিনি ১৯৯৪ সালে কুমিল্লা বোর্ডে সম্মিলিত মেধা তালিকায় প্রথম স্থান নিয়ে এসএসসি পাস করেন। নর্থসাউথ ইউনিভার্সিট থেকে কম্পিউটার সায়েন্সে ব্যাচেলর ড্রিগ্রি করার পর তিনি অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি জমান। পরে কানাডায় অভিবাসী হন দুরদানা।

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত