ঢাকা, রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ আপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৮ অক্টোবর ২০২০, ০০:৪৫

প্রিন্ট

প্রতিপক্ষকে গুলি, ভাতিজাসহ ইউপি চেয়ারম্যান কারাগারে

প্রতিপক্ষকে গুলি, কারাগারে ইউপি চেয়ারম্যান
​পাবনা প্রতিনিধি

প্রতিপক্ষের উপর প্রকাশ্যে গুলিবর্ষণের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় পাবনার সুজানগর উপজেলার সাগরকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন চৌধুরি ও তার ভাতিজা রবিন চৌধুরিকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার বিকেলে পাবনার আমলি আদালত- ৬ এর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মিলন হোসেন এ আদেশ দেন।

বাদী পক্ষের আইনজীবী এ্যাড. বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মামলার বাদী হাশমত খলিফা (৪০) জানান, ২০১৮ সালের ২৮ নভেম্বর তারিখে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে চেয়ারম্যান শাহীন চৌধুরি দলবল নিয়ে তার উপর হামলা চালান। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান শাহীন চৌধুরির নির্দেশে তার ভাতিজা রবিন চৌধুরি তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে প্রকাশ্যে গুলি চালান। গুলিটি তার পায়ে লাগায় তিনি গুরুতর আহত হলেও প্রাণে বেঁচে যান।

এ ঘটনায় তিনি আমিনপুর থানায় ১৩ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছিলেন। পরে তার আবেদনের প্রেক্ষিতে মামলাটি পিবিআইতে (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) স্থানান্তর করা হয়।

পিবিআই এর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফজলে এলাহী জানান, এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ছিলেন মো: আসাদুজ্জামান। পিবিআই তদন্ত শেষে ঘটনার সত্যতা পায়। সে মোতাবেক আদালতে সম্প্রতি চার্জশিট দাখিল করা হয়।

এদিকে মঙ্গলবার মামলার শুনানির দিন ধার্য ছিল। এতে মামলার ১৩ আসামি আদালতে হাজির হন। বিজ্ঞ আদালত মামলার ১১ আসামিকে জামিন দেন এবং সাগরকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন চৌধুরি ও তার ভাতিজা রবিন চৌধুরিকে কারাাগরে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এ মামলার আসামি পক্ষে ছিলেন এ্যাড. শাহজাহান মন্ডল।

উল্লেখ্য, পাবনার সুজানগর উপজেলার বরুরিয়া খলিলপুর গ্রামে আ. লীগের বিবাদমান দুই গ্রপের সংঘর্ষে ২০১৮ সালের ২৮ নভেম্বর হাশমত খলিফা (৪০) নামের একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন। তিনি ওই গ্রামের আজিবর খলিফার ছেলে। সাগরকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন চৌধুরির উপস্থিতিতে তার ভাতিজা রবিন চৌধুরি প্রকাশ্যে পিস্তল দিয়ে গুলি চালিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন- এক চেয়ারম্যানের মামলায় কারাগারে আরেক চেয়ারম্যান

বাংলাদেশ জার্নাল/আর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত