ঢাকা, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৯ ফাল্গুন ১৪২৬ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২১ জানুয়ারি ২০২০, ১২:০০

প্রিন্ট

শিক্ষার্থীদের খাবারের মূল্য ৫ টাকা!

শিক্ষার্থীদের খাবারের মূল্য ৫ টাকা!
রাজশাহী প্রতিনিধি

শিরোনাম পড়ে হয়তো অবাক হচ্ছেন আপনি! হয়তো ভাবছেন এটা কি করে সম্ভব? তবে এই মানবিকতা দেখিয়ে চলেছেন রাজশাহীর বাঘা উপজেলার ‘অন্নপূর্ণা হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট’। সেখানে প্রতিদিন ৬০-৭০ জন শিক্ষার্থীকে ডাল, ভাত ও সবজি নিজ হোটেলে খাওয়ান এক যুবক। বিনিময়ে তাদের কাছ থেকে নেন মাত্র পাঁচ টাকা।

তবে সম্প্রতি টাকার অভাবে শিক্ষার্থীদের জন্য সেখানে একটি ‘শৌচাগার’ (ওয়াশরুম) নির্মাণ করতে পারছেন না বলে একটি খবর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। পরে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার ‘অন্নপূর্ণা হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট’ উন্নয়নে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক।

ওই হোটেল মালিক বিপ্লব সরকারের চাহিদা অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের জন্য সেখানে একটি ‘শৌচাগার’ (ওয়াশরুম) করতে নগদ ৫০ হাজার টাকা দিয়েছেন আইনমন্ত্রী। গত রোববার রাতে মন্ত্রীর ঢাকার গুলশান-২ এর কার্যালয়ে ওই টাকা বিপ্লব সরকারের হাতে তুলে দেন মন্ত্রী।

বিপ্লব সরকার এখন গড়ে প্রতিদিন ৬০-৭০ জন শিক্ষার্থীকে পাঁচ টাকায় ডাল, ভাত ও সবজি খাওয়ান। সপ্তাহের একদিন মাছ কিংবা মাংস। ইউটিউবে এ নিয়ে ভিডিও চিত্র দেখতে পেয়ে আইনমন্ত্রীকে বিষয়টি অবহিত করেন মন্ত্রীর ঘনিষ্টজন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌরসভার মেয়র মো. তাকজিল খলিফা কাজল। টাকার অভাবে ‘শৈাচাগার’ করতে না পারার বিষয়টিও মন্ত্রীকে অবহিত করেন তিনি। বিষয়টি বিস্তারিত জেনে শৌচাগার করার জন্য ৫০ হাজার টাকা দেয়ার ঘোষণা দেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া) আসনের ওই সংসদ সদস্য।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিপ্লব সরকারের হোটেলটি আড়ানী বাজারের বড়াল নদীর ধারে। বাবা শ্যামল সরকারের মালিকানাধীন ‘অন্নপূর্ণা হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট’ এ কয়েক বছর ধরেই আড়ানী মনোমোহিনী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদেরকে পাঁচ টাকায় ভাত খাওয়ানো হচ্ছে। প্রচার বাড়ার পর পাঁচ টাকার ক্রেতার সংখ্যা বেড়েই চলছে।

হোটেলটিতে খেতে হলে শিক্ষার্থীদের গায়ে বিদ্যালয়ের পোশাক থাকা বাধ্যতামূলক। খাওয়ানোর আগে পোশাকের পাশাপাশি একাধিক শর্তও দিয়ে দেন বিপ্লব। এসব শর্তের মধ্যে রয়েছে, এ খাবার খাওয়ার আগে বা পরে কোনো ধরণের মুখরোচক খাওয়া যাবে না। যে পরিমাণ খাবার দেয়া হয় বিশেষ করে যতটুকু সবজি দেয়া হয় সেটা নষ্ট করা যাবে না।

বিপ্লব সরকার জানান, ক্ষুধার কষ্টটা তিনি বুঝেন। সেবার মানসিকতা থেকে আনন্দের সঙ্গে তিনি সাধ্য অনুযায়ী কাজটা করে যাচ্ছেন। তিনি জানান, কেউ যদি অতিরিক্ত টাকায় মাছ বা মাংস থেতে চান তাহলে পাশেরজনকেও এক টুকরো দেন যেন তার মন খারাপ না হয়। বাবার অগোচরেই তিনি কাজটা শুরু করেছিলেন। পরে বাবা জানলেও এতে আপত্তি তুলেননি।

আখাউড়া পৌরসভার মেয়র মো. তাকজিল খলিফা কাজল বলেন, ‘পাঁচ টাকায় শিক্ষার্থীদেরকে খাওয়ার বিষয়টি ইউটিউবে দেখি। এ নিয়ে বিপ্লব সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে হোটেলের জন্য ‘শৌচাগার’ নির্মাণ জরুরি বলে জানান। ৪০ হাজার টাকায় ‘শৈাচাগার নির্মাণ করা যাবে বলে তিনি বলেন। বিষয়টি আইনমন্ত্রী মহোদয়কে জানানো হলে বিপ্লব সরকারকে নগদ ৫০ হাজার টাকা দিবেন বলে ঘোষণা দেন। ঘোষণা অনুযায়ী রোববার রাতে বিপ্লব সরকারের হাতে টাকা দেয়া হয়।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওয়াইএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত