ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮ আপডেট : ৪৯ মিনিট আগে

প্রকাশ : ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৬:৪৪

প্রিন্ট

যবিপ্রবি

সাবেক কর্মচারী নেতার অর্থ আত্মসাতের বিচার দাবি

সাবেক কর্মচারী নেতার অর্থ আত্মসাতের বিচার দাবি
সাবেক কর্মচারী নেতার অর্থ আত্মসাতের বিচারের দাবিতে যবিপ্রবিতে মানববন্ধন।

যবিপ্রবি প্রতিনিধি

যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) কর্মচারী সমিতির ২০১৯-২০ সেশনের সদ্য সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সমিতির অর্থ আত্মসাত করায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নিকট বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কর্মচারীরা।

বুধবার বেলা ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি ভবনের সামনে তিন শতাধিক কর্মচারীর অংশগ্রহণে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধন শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার বরাবর আগামী সাত দিনের মধ্যে প্রশাসনিক বিচারের দাবি জানিয়ে স্মারকলিপি দিয়েছে সাধারণ কর্মচারীরা।

কর্মচারী আরশাদ আলীর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন আশিকুর রহমান পরাগ, হাফিজুর রহমান, সাইদুর রহমান কানন, কর্মচারী সমিতির সভাপতি শওকত ইসলাম সবুজসহ অনেকে।

মানববন্ধনে বক্তারা জানান, বিগত কমিটির সাধারণ সম্পাদক কে এম আরিফুজ্জামান সোহাগ উপাচার্যের অডার্লী পিওন হওয়ায় উপাচার্যের নাম ভাঙিয়ে নানা ধরণের অপকর্ম করেছেন। বিভিন্ন স্থানে নিয়োগ বাণিজ্য, টেন্ডার বাণিজ্য করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছেন। সমিতির নিয়ম বহির্ভূতভাবে সমিতির কার্যক্রম পরিচালনা, অর্থ সংগ্রহ, অর্থ উত্তোলন এবং আয় ব্যয়ের হিসাব না রেখে ইচ্ছা আর খেয়াল খুশিমতো কাজ করেছেন। কর্মচারী সমিতির নির্বাচিত প্রতিনিধি হয়ে কর্মচারীদের কল্যাণের বদৌলতে অকল্যাণ করেছেন। বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া যেমনিভাবে এতিমের অর্থ আত্মসাত করেছেন ঠিক তেমনিভাবেই সাবেক এ কর্মচারী নেতা খেটে খাওয়া নিরীহ কর্মচারীদের অর্থ লোপাট করেছেন।

আরো পড়ুন: অর্থ আত্মসাতের দায়ে পদ গেল যবিপ্রবির কর্মচারী নেতার

এছাড়া গত মঙ্গলবার কর্মচারী সমিতি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে কর্মচারী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক কে এম আরিফুজ্জামান সোহাগকে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে তার সদস্য পদ আজীবনের জন্য বাতিল করে আর অন্যদিকে সাবেক সভাপতি এস এম সাজেদুর রহমান জুয়েল তার ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চাওয়ায় তাকে ক্ষমা করে বর্তমান নেতারা। সাবেক সভাপতি সম্প্রতি কর্মচারী থেকে পদোন্নতি পেয়ে কর্মকর্তা হয়েছেন যার ফলশ্রুতিতে তিনি এখন কর্মচারী সমিতির সদস্য নন। তার সম্মান ও ক্ষমা প্রার্থনার বিষয়টি বিবেচনা করে বর্তমান সমিতির সাধারণ সভায় উপস্থিত সকল সদস্যের সম্মতিতে জুয়েলকে অসঙ্গতিপূর্ণ ১ লাখ ৪৪ হাজার টাকা সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোহাগের হিসাবের সঙ্গে মিল করে যবিপ্রবি কর্মচারী সমিতির ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ফেরত দেয়ার জন্য জানানো হয়।

বাংলাদেশ জার্নাল/এনকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত