ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ৩ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : ২৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৫:১১

প্রিন্ট

বেতন বাড়ছে না প্রাথমিকে: যেসব সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষকরা

বেতন বাড়ছে না প্রাথমিকে: যেসব সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষকরা
জার্নাল ডেস্ক

উচ্চ আদালতের রায় থাকার পরও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য আপাতত দূর হচ্ছে না। বেতন বাড়ানোর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাব নাকচ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। অর্থ মন্ত্রণালয় চিঠি দিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে জানিয়ে দিয়েছে- প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষক পদের বেতন গ্রেড ঠিক আছে। তাই বেতন বাড়ানোর বিষয়টি অযৌক্তিক।

এনিয়ে প্রাথমিক শিক্ষকদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের গ্রেড-১০ ও সহকারী শিক্ষকদের গ্রেড-১১ করার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি। তাদের দাবি মানা না হলে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দিয়েছে তারা।

শুক্রবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. আতিকুর রহমান বলেন, ‘দীর্ঘ সময় ধরে আন্দোলন করে আসছি। আন্দোলনের প্রেক্ষিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সেই দাবি গ্রহণ করে। দাবির প্রস্তাবনা অর্থ মন্ত্রণালয়ে তুলে ধরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। অথচ অর্থ মন্ত্রণালয় সেই প্রস্তাবনা বাতিল করেছে।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যখন বলেছেন শিক্ষকদের মর্যাদার স্কেল প্রদান করা হবে, তখন অর্থ মন্ত্রণালয় বলে দিল শিক্ষকদের বেতন বাড়ানোর কোনো সুযোগ নেই! অর্থ মন্ত্রণালয় শিক্ষকদের অবহেলার চোখে দেখছে।’

কর্মসূচি তুলে ধরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি জানান, ২৬ সেপ্টেম্বর দুপুর ৩টায় দেশের সব উপজেলায় মানববন্ধনসহ প্রধানমন্ত্রী বরাবর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে এ দাবিতে স্মারকলিপি দেয়া হবে।

এর মধ্যে দাবি মানা না হলে ২৮ সেপ্টেম্বর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন এবং প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদানে পদযাত্রা করা হবে।

এরপরও দাবি মানা না হলে ১ অক্টোবর থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অবস্থান ধর্মঘট শুরু হবে বলেও জানান আতিকুর রহমান।

এদিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকরা দ্বিতীয় শ্রেণির মর্যাদা পেলেও তাঁরা বেতন পাচ্ছেন ১১তম গ্রেডে। অথচ একই পদমর্যাদার অন্য সরকারি কর্মকর্তারা বেতন পান ১০ম গ্রেডে। আর সহকারী শিক্ষকরাও দীর্ঘদিন ধরে প্রধান শিক্ষকদের এক ধাপ নিচে বেতন গ্রেড নির্ধারণের দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন। বিষয়টির গুরুত্ব অনুধাবন করে আওয়ামী লীগ তাদের এবারের নির্বাচনী ইশতেহারেও শিক্ষকদের বেতনবৈষম্য নিরসন করা হবে বলে অঙ্গীকার করেছিল। কিন্তু প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বেতন গ্রেড উন্নীতকরণের প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠালে তাতে অসম্মতি জানানো হয়েছে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পৌনে চার লাখ শিক্ষক।

আরএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত